সংবাদ শিরোনাম
সিলেটে চোরাই মোবাইল ফোন ‘গায়েবের’ সঙ্গে জড়িত থাকায় পুলিশের এএসআইসহ ৪ জন রিমান্ডে  » «   বিয়ে বাড়িতে গিয়ে মদপানে দু’জনের মৃত্যু  » «   লন্ডনে সন্ত্রাসীদের গুলিতে আহত সিলেটের হিরণের মৃত্যু  » «   স্ত্রীর মাথা ন্যাড়া করে দিল ট্রাক চালক স্বামী  » «   খেলা দেখতে কলকাতায় শেখ হাসিনা  » «   হবিগঞ্জে অটোরিকশাসহ ৫ চোর আটক-মালামাল উদ্ধার  » «   জকিগঞ্জে বাঁশের সঙ্গে ঝুলিয়ে যুবককে নির্যাতন: ইউপি সদস্য আটক  » «   বাহুবলে সড়ক দুর্ঘটনায় এক নারী নিহত  » «   পাঠানটুলা থেকে অস্ত্র মামলার আসামি গ্রেপ্তার  » «   বিশ্বনাথে নারীসহ বিভিন্ন মামলার ১১ পলাতক আসামি গ্রেপ্তার  » «   মৌলভীবাজারে ৭০ পিছ ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ২  » «   ছাতকে আওয়ামী লীগ নেতাসহ ২ পলাতক আসামি গ্রেপ্তার  » «   র‌্যাবের খাঁচায় আটক হওয়া নিপুকে কারাগারে প্রেরণ  » «   ইতালিতে আতশবাজি কারখানায় বিস্ফোরণে নিহত ৫  » «   ইরাকে সরকার বিরোধী বিক্ষোভে গুলি, নিহত ৪  » «  

শায়েস্তাগঞ্জে রেলের অধিকাংশ লেভেল ক্রসিং ঝুঁকিপূর্ণ

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনের আওতাধীন রেলপথের উভয়পাশে ৫০ কিলোমিটারের মধ্যে ছোটবড় অর্ধশতাধিক লেভেল ক্রসিং ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। তার মধ্যে ১৭টি অনুমোদিত ও বাকি লেভেল ক্রসিংয়ে রেলওয়ের কোনো অনুমোদন নেই। বিভিন্ন স্থানে রেল লাইনের ওপর দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে সড়ক পথ। এসব ক্রসিংয়ের অধিকাংশই ঝুকিপূর্ণ। ফলে বাড়ছে দুর্ঘটনা। ঘটছে প্রাণহানিও।

মহাসড়কের অলিপুর ও লস্করপুর রেল ক্রসিং এলাকায় গত ৩ বছরে কমপক্ষে ১০০ দুর্ঘটনায় ৭০ জনের প্রাণহানী এবং অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছে। এলাকাটি এখন মৃত্যুফাঁদ।

শাহজীবাজার রেল স্টেশনের উত্তর দিকে পাহাড়ের কিছু অংশ কেটে মহাসড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। ওই এলাকায় মহাসড়ক আরও সোজা করে নির্মাণের সুযোগ থাকা সত্ত্বেও তাতে বিপদজনকভাবে বাক সৃষ্টি করে নির্মাণ করায় প্রায়ই দুঘর্টনা সংঘটিত হচ্ছে।

জানা যায়, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ঢাকা-ভৈরব অংশ ৫২ ফুট প্রশস্ত করে নির্মাণ করা হলেও হবিগঞ্জ জেলার জগদীশপুর থেকে সিলেট পর্যন্ত অংশে তা সঙ্কুচিত করে ৪০ ফুট প্রশস্ত করে নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে দ্রুতবেগে যাতায়াতকারী যানবাহনগুলোর মুখোমুখী সংর্ঘষের আশংকা থেকে যায়। মহাসড়কের হবিগঞ্জ অংশে লস্করপুর থেকে  অলিপুর এবং দুরত্ব প্রায় ৮ কিলোমিটার। প্রাথমিক পর্যায়ে উভয় স্থানের রেল ক্রসিংয়ের দুই ফ্লাইওভার নির্মাণের কথা শোনা গেলেও পরবর্তী পর্যায়ে তা বাস্তবায়ন।

মুকুন্দপুর থেকে সাটিয়াজুরী রেলস্টেশনে অনুমোদিত ১৭টি লেভের ক্রসিংয়ের মধ্যে রয়েছে হরষপুর, মনতলা, শাহপুর, ইটাখোলা, নোয়াপাড়া, ছাতিয়াইন, শাহপুর-২, শাহজীবাজার গ্যাস ফিল্ড, শাহজীবাজার মাজার গেইট, বিদ্যুৎ পাওয়ার ষ্টেশন গেট, নছরতপুর তেলিয়াপাড়া অলিপুর, শায়েস্তাগঞ্জ জংশন, শায়েস্তাগঞ্জ দাউদনগর বাজার, শায়েস্তাগঞ্জ পুরানব বাজার, লস্করপুর। এছাড়া নাম না জানা অসংখ্য লেভেল ক্রসিং অনুমোদিত রয়েছে। অনুমোদিত লেভেল ক্রসিংগুলোতে রয়েছে নানাবিধ সমস্যা। গেট থাকলেও লোক নেই, কোনো কোনো স্থানে গেটম্যান থাকলেও গেট নেই। পার্শ্ববর্তী রেলস্টেশনের সঙ্গে টেলিফোন যোগাযোগ ব্যবস্থা থাকলেও গেটে বিদ্যুতের কোন ব্যবস্থা না থাকায় রাতের আধারে দুর্ঘটনা ঘটে। গেটম্যানের দায়িত্ব অবহেলায়ও অনেক সময় ট্রেনের সঙ্গে সড়ক পথের যানবাহনের দুর্ঘটনায় প্রাণহাণী ঘটে। অনুমোদিত ১৭টির মধ্যে মাত্র সাতটি স্থানের লেভেল ক্রসিংয়ে গেটম্যান রয়েছে। অন্যান্য লেভেল ক্রসিংগুলোতে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ শুধু সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দায় সেরেছেন। তাতে লেখা- গেটম্যান নেই, নিজ দায়িত্বে লেভেল ক্রসিং পারাপার হন।

আর যেসব লেভেল ক্রসিংয়ের অনুমোদন নেই। সেগুলো আরও বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।

এ ব্যাপারে সড়ক পথের যানবাহন চালকদের অভিযোগ গেটগুলোতে বিদ্যুতের কোন ব্যবস্থা নেই। তাতে শীত মৌসুমে প্রচন্ড ঘন কুয়াশার কারণে রাতের অন্ধকারে গেট ওঠানো না নামানো দেখা যায় না। ফলে দুর্ঘটনার শিকার হতে হয় প্রতিনিয়ত। এ ব্যাপারে শায়েস্তাগঞ্জ রেল জংশনের উর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (পথ) জানান, অনুমোদিত ১৭টির মধ্যে ৭টিতে গেটম্যান আছে। এছাড়া গুরুত্বপূর্ণ আরও পাঁচ-ছয়টি স্থানের গেটম্যানের জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.