সংবাদ শিরোনাম
এখন থেকে প্রতিদিন তিনবার ফুটপাতে অভিযান চলবে-মেয়র আরিফ  » «   মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে সিলেট জেলা বিএনপির শোভাযাত্রা মঙ্গলবার  » «   নগরীর কাষ্টঘর এলাকা থেকে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি গ্রেপ্তার  » «   সিলেটে আজ থেকে কার্যকর হলো নতুন সড়ক পরিবহন আইন  » «   কমলগঞ্জে ৫ মাস পর কবর থেকে তরুণীর লাশ উত্তোলন  » «   প্রত্যেক নারীকে অসাম্প্রদায়িক চিন্তা চেতনার হতে হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   দিরাইয়ে দুইদিন থেকে নিখোঁজ কিশোরের মরদেহ উদ্ধার  » «   ছাতকে পিকআপ ভর্তি ভারতীয় কসমেটিকসহ আটক ৩  » «   সিলেটে চালু হচ্ছে আরও একটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়  » «   রাজধানীতে বিএনপির বিক্ষোভ, আটক ১২  » «   জগন্নাথপুরে মোটর সাইকেল দু্র্ঘটনায় এক প্রবাসীসহ নিহত ২  » «   রুদ্ধশ্বাস ফাইনালে সোনা জিতলো বাঘিনীরা  » «   বরকে আটকে রেখে অন্য যুবকের সঙ্গে বিয়ে  » «   হবিগঞ্জে দালাল শাহীনের বিরুদ্ধে সৌদিতে নির্যাতিত হুসনার অভিযোগ  » «   গোয়াইনঘাটে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা  » «  

তর্কেও তাচ্ছিল্য নয় : আল-কুরআন

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::মুমিন ব্যক্তি কথা বলুক আর থেকে তর্কই করুক — তা করতে হবে উত্তম পন্থায়। যেন এর মাধ্যমে কারও ক্ষতি না হয়, মানসিকভাবে কেউ আঘাত না পায়। কাউকে খাটো করা না হয় বা তাদের প্রতি ঠাট্টা-বিদ্রূপ প্রকাশ না পায়। আল্লাহ তাআলা তাঁর রাসুল মুহাম্মাদ (সা.) কে সম্বোধন করে বলছেন,

وَجَادِلْهُم بِالَّتِي هِيَ أَحْسَنُ
“এবং তাদের সঙ্গে বিতর্ক করুন পছন্দ যুক্ত পন্থায়…।” –সূরা নাহল, আয়াত : ১২৫

 

 

তর্কে কাউকে মানুষকে ছোট করলে, মানসিকভাবে আঘাত করলে বা ঠাট্টা-বিদ্রুপ করলে কেবল শত্রুতাই বৃদ্ধি পায়। কিন্তু উপরের আয়াতে বর্ণিত “পছন্দ যুক্ত পন্থায়” তর্ক করলে বরং পরস্পরে শত্রুতা দূর হয়ে হৃদ্যতা স্থাপিত হয়, আন্তরিকতাপূর্ণ বন্ধুত্ব সৃষ্টি হয়। কুরআনে আল্লাহ তাআলা বলেন,
وَلَا تَسْتَوِي الْحَسَنَةُ وَلَا السَّيِّئَةُ ۚ ادْفَعْ بِالَّتِي هِيَ أَحْسَنُ فَإِذَا الَّذِي بَيْنَكَ وَبَيْنَهُ عَدَاوَةٌ كَأَنَّهُ وَلِيٌّ حَمِيمٌ . وَمَا يُلَقَّاهَا إِلَّا الَّذِينَ صَبَرُوا وَمَا يُلَقَّاهَا إِلَّا ذُو حَظٍّ عَظِيمٍ

“ভাল ও মন্দ সমান নয়। আপনি উত্তম কথা দিয়ে জবাব দিন। দেখবেন, আপনার সাথে যার শত্রুতা আছে, সে যেন হয়ে উঠবে অন্তরঙ্গ বন্ধু। এ চরিত্র তারাই লাভ করে, যারা সবর করে এবং এ চরিত্রের অধিকারী তারাই হয়, যারা অত্যন্ত ভাগ্যবান।” –সূরা হা-মীম সেজদাহ : ৩৪-৩৫

সকল নবীদের মাধ্যমেই মানুষকে সুন্দরভাবে কথা বলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আল্লাহ তাআলা যখন মূসা (আ.) এবং তাঁর ভাই হারূন (আ.) কে ফিরআউনের কাছে প্রেরণ করেছিলেন, তখন তিনি তাঁদেরকে বলে দিয়েছিলেন,
فَقُولَا لَهُ قَوْلًا لَّيِّنًا لَّعَلَّهُ يَتَذَكَّرُ أَوْ يَخْشَىٰ
“তোমরা তার সাথে নম্র কথা বলবে। হয়তো সে উপদেশ গ্রহন করবে অথবা ভয় করবে।” –সূরা ত্ব-হা : ৪৪

আর বলাই বাহুল্য যে, আপনি মূসা (আ.) এবং হারূন (আ.) থেকে উত্তম নন। আর যে লোকটির সাথে কথা বলছেন সেই লোকটিও ফিরআউনের থেকে নিকৃষ্ট নয়।

রাব্বুল আলামিন আমাদের চরিত্র ও আচার-আচরণকে সার্বিক দিক থেকে উন্নত করার তাওফিক দান করুন। আমীন।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.