সংবাদ শিরোনাম
সিলেট চেম্বার নির্বাচন: বিজয়ী হলেন যারা  » «   বিভাগীয় মহাসমাবেশকে ঘিরে সিলেট বিএনপিতে ব্যাপক তোড়জোড় চলছে  » «   ভোলাগঞ্জ সাদাপাথর বেড়াতে গিয়ে লাশ হলেন আরেকজন  » «   দক্ষিন সুরমায় গাঁজাসহ মহিলা মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   সুরমা মার্কেট থেকে কিশোর নিখোঁজ  » «   জৈন্তাপুরে পুলিশের পৃথক অভিযানে আটক ৪  » «   বিশ্বনাথে প্রতিপক্ষের হামলায় এক বৃদ্ধ আহত  » «   কোম্পানীগঞ্জের কলাবাড়ি এলাকা থেকে মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   বিশ্বনাথে মোবাইল গার্ডেনে চুরির ঘটনায় সিলেট থেকে এক নারী গ্রেপ্তার  » «   জালালপুরে বাকপ্রতিবন্ধি নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার  » «   যুবলীগ নেতা জি কে শামীম ১০ দিনের রিমান্ডে  » «   ‘তথ্য-প্রমাণ পেলে সম্রাটের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা’  » «   কুষ্টিয়ায় চাঁদাবাজির অভিযোগে দুই যুবলীগ নেতা গ্রেপ্তার  » «   মা হলেন নুসরাত হত্যার আসামি কারাবন্দি মনি  » «   কিশোরগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় কটিয়াদী উপজেলার যুবদল সভাপতি নিহত  » «  

বিএনপি স্বর্ণলতা, শেকড় নেই: প্রধানমন্ত্রী

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::বিএনপির জন্ম ইতিহাস তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বুঝতে হবে বিএনপির জন্ম কোথা থেকে? দলটি স্বর্ণলতার মতো। দেখতে সুন্দর কিন্তু শেকড় নেই।

শুক্রবার বিকেলে গণভবনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন। ব্রুনাই সফরের বিভিন্ন দিক তুলে ধরতেই এই সংবাদ সম্মেলন করেন প্রধানমন্ত্রী।

শুরুতেই তিনি ব্রুনাই সফরে বিভিন্ন চুক্তি, সমঝোতা ও সফরের বিভিন্ন দিক নিয়ে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান। এরপর ঘণ্টাব্যাপী সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন শেখ হাসিনা।

এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘বিএনপির কোনো বিষয়েই সরকারের চাপ নেই। যে জনপ্রতিনিধিরা শপথ নিয়েছেন, তারা স্বেচ্ছায়। সেখানে সরকারের চাপ দেয়ার কিছু নেই। আমরা চাপ দিতে যাব কেন?’

তিনি বলেন, ‘বিএনপির রাজনীতিকে পুনরুজ্জীবিত করা নিয়েও সরকারের কোনো চাপ বা চেষ্টা নেই। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির ব্যাপারে সরকারের চাপ থাকার কোনো কারণ নেই। কেন না প্যারোলে মুক্ত হবেন কিনা, সেটা নির্ভর করে দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তির আবেদনের ওপর। কিন্তু, এ ব্যাপারে কোনো আবেদন আসেনি।’

নিজের দল সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আওয়ামী লীগ পোড় খাওয়া দল। এই দলে সুবিধাভোগী বা অনুপ্রবেশকারী আছে বলে মনে করি না। তবে, কিছু লোক আসবে-যাবে, এটা রাজনীতিতে স্বাভাবিক।’

জঙ্গিবাদ রুখতে হবে ঐক্যবদ্ধভাবে

জঙ্গিবাদ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সবাই মিলে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ রুখতে হবে। জঙ্গিবাদে যারা লিপ্ত তাদের ধর্ম নাই, দেশ নাই। হলি আর্টিজানে হামলার পর থেকে আমরা জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে রাখছি। তারপরও বিভিন্ন সময় বিভিন্ন তথ্য পাই। এসবের পেছনে কারা সেটাও দেখা হচ্ছে। এটা আন্তর্জাতিক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলার পাশাপাশি জনগণকেও সচেতন হতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে হত্যা-জঙ্গিবাদ লেগেই আছে। অগ্নিসন্ত্রাস, প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রেনেড-বোমা হামলা, প্রকাশ্যে গুলি- এগুলো অনেক আগে থেকেই আছে। অগ্নিসন্ত্রাস, নির্বাচন ঠেকানোর নামে ২০১৩, ২০১৪, ২০১৫ সালে এসব হয়েছে। নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে মারা হলো, এটাও অগ্নিসন্ত্রাস।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের মতো জায়গায় সন্ত্রাসী হামলা হচ্ছে। সেখানে খ্রিস্টানরা করেছে। শ্রীলঙ্কায় মুসলিমরা। জঙ্গিবাদের কোনো ধর্ম নেই। দেশ নেই। এদের বিরুদ্ধে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।’

নুসরাতের ঘাতকদের ছাড় নয়

ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে সংবাদ সম্মেলনে হুঁশিয়ারি দেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘অপরাধী যেই হোক না কেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি উদ্যোগ না নিলেতো মেয়েটিকে চরিত্রহীন বানিয়ে দেয়া হতো। এ ছাড়া তাকে নিয়ে নানা ধরনের কথা বলা হতো। এজন্য আমি নিজেই এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিয়েছি। এ হত্যায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যাবে।’

যৌন হয়রানি বন্ধে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কমিটি গঠন করা হবে বলেও জানান তিনি।

রোহিঙ্গা ফেরত নিতে মিয়ানমারের অনীহা

প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা ফেরত নেয়ার ব্যাপারে একটা চুক্তি হয়েছিল। কিন্তু, তাদের পাঠানো শুরু করার সময় তারা আর যেতে চাচ্ছে না। অন্যদিকে রোহিঙ্গা নেয়ার ব্যাপারে মিয়ানমার সরকারের প্রচণ্ড অনীহা আছে। আমরা জাতিসংঘকে এসব বিষয়ে জানিয়েছি। আমরা মানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি। মিয়ানমারের সঙ্গে আমাদের একটা চুক্তিও হয়েছে। যে মুহূর্তে রোহিঙ্গা যাওয়ার কথা সেই মুহূর্তে তারা প্রতিবাদ শুরু করল যে তারা যাবে না।

তিনি জানান, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় ধন্যবাদ জানিয়ে তাদের প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশের প্রচেষ্টায় সমর্থন দিয়েছেন ব্রুনাইয়ের সুলতান।

বর্ষা মৌসুমে রোহিঙ্গাদের সমস্যার দায় বিদেশি সংস্থার

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভারত, রাশিয়া, জাপান ও চীন চায় রোহিঙ্গা সঙ্কটের সমাধান হোক। কিন্তু, এ ব্যাপারে তাদের জোরালো ভূমিকা নেই।

তিনি বলেন, ‘আমরা রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে নিতে চেয়েছি। কিন্তু, তারা যেতে চায় না। জোরও করতে পারি না। এর সঙ্গে বিদেশি সংস্থা ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাও চায় না কক্সাজার ছাড়তে। মনে হয়, সংস্থাগুলো রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি নিজেদের থাকা-খাওয়ার সুব্যবস্থা চায়। সহজ যাতায়াত চায়। এ কারণে তারা কক্সবাজার ছাড়তে চায় না। অথচ ভাসানচরে নেয়া গেলে রোহিঙ্গারা ভালো থাকতে পারত। তাদের জীবন এতটা অমানবিক হতো না।’

এখন সময় অনলাইনের

গণমাধ্যম নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন যুগের চাহিদা বা প্রযুক্তির চাহিদা হলো অনলাইন সংবাদপত্রের। বিশ্বের অনেক দেশে বড় বড় পত্রিকা বন্ধ হয়ে গেছে। সেগুলো এখন কেবল অনলাইনে আছে। প্রিন্ট পত্রিকা বের করে না।

সম্প্রচার মাধ্যম সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘অনেকেই টেলিভিশনের জন্য আবেদন করছেন। আমি বলেছি দিয়ে দাও। এতে চাকরির বাজার বড় হবে।’

সরকারের ১০০ দিন নিয়ে আনন্দের কী

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কেউ কেউ বলছেন সরকারের ১০০ দিন নিরানন্দের। এটা তারাই ঠিক করেছে। সরকারতো ১০০ দিন ধরে কাজ করছে না। যখন যে কাজ করা দরকার তা করা হচ্ছে। জনগণের কল্যাণের জন্য আওয়ামী লীগ একাই একশ’। যারা সব সময় নিরানন্দে ভোগেন তারাই সারাক্ষণ নিরানন্দ খোঁজেন । এদের সবাইকে আমি চিনি। আমার অচেনা কেউ নেই। রাজনীতিবিদদের মধ্যে আমি প্রবীণ, আমি সবাইকেই চিনি।

আমার পর নেতৃত্বে কে, ঠিক করবে আ’লীগ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ নেতৃত্বে কে আসবেন তা দল ঠিক করবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান শেখ হাসিনা।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি এক সময় অবসরে চলে যাব। তখন দলে নতুন নেতৃত্ব আসবে। তবে কে নেতৃত্বে আসবেন, তা ঠিক করবে দল। আওয়ামী লীগ ঠিক করবে দলের নেতৃত্ব দেবেন কে? সেটা আমি ঠিক করব না।’

দলকে ডিজিটাল করা প্রসঙ্গে সরকারপ্রধান বলেন, ‘তৃণমূল থেকে শুরু করে দলের সবকিছু ডাটাবেজ করা হবে। আমি অবসর নিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় চলে গেলেও সুইচ টিপে সব তথ্য পাব।’

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.