সংবাদ শিরোনাম
মাহমুদুলের সহকারী থেকে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি   » «   তামাবিল স্থলবন্দরে কাষ্টমস এসির সাথে ব্যবসায়ী নেতাদের সভা  » «   জগন্নাথপুরে নতুন করে এক পরিবারের ৪ জন সহ ৫ জন  করোনা আক্রান্ত: মোট আক্রান্ত ১৭  » «   চিকিৎসা না পেয়ে মারা গেছেন বন্দরবাজারের এক ব্যবসায়ী  » «   মাধবপুরে বিজিবির অভিযানে গাঁজাসহ আটক ৩  » «   শ্রীমঙ্গলে মা-মেয়ের রহস্যজনক মৃত্যু  » «   সিলেটে করোনার ভয়ঙ্কর থাবা : একদিনে আক্রান্ত ৮৬, মৃত্যু ৩  » «   ছাতকে করোনা আক্রান্ত হয়ে এক মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু,এ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা ২  » «   বীর মুক্তিযোদ্ধা কবির আহমদ মোশনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ  » «   গোয়াইনঘাটে এক শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত: মোট আক্রান্ত ৯  » «   বিক্ষোভ অব্যাহত রাখতে ও পুলিশে সংস্কারের আহ্বান ওবামার  » «   কিছু মানুষ আছে যারা কখনোই করোনায় আক্রান্ত হবেন না!  » «   করোনা পরিস্থিতিতে মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়েছে গর্ভবতীদের: এখন গর্ভধারণ না করার পরামর্শ  » «   উষ্ণতায় বেড়েছে বজ্রপাত সিলেট সহ সারাদেশে এক দিনেই নিহত ১২  » «   ব্যাংকে টাকা জমার খরচ বাড়ছে  » «  

মাত্র ১০০ টাকায় চিকিৎসাসেবা দেন ডা. রওশন আরা

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::মাত্র ১০০ টাকায় সেবা দিচ্ছেন ডাক্তার রওশন আরা বেগম। মানিকগঞ্জে তাঁর পরিবারের ভিটায় গড়ে তোলা সায়েরা হাসান মেমোরিয়াল হাসপাতালে সাধ্য অনুযায়ী টাকা দিয়ে অস্ত্রোপচারের সুযোগ পাচ্ছেন রোগীরা। মহৎপ্রাণ এ চিকিৎসকের ডাকে সাড়া দিয়ে দেশি-বিদেশি প্রায় ৬শ’ চিকিৎসক ও সার্জন যুক্ত হয়েছেন এ উদ্যোগে। এখন পর্যন্ত এই হাসপাতালে প্রায় আড়াই লাখ রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন।
গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. রওশনের সঙ্গে দেশসেরা হাসপাতাল থেকে আসা কয়েকজন সার্জন নিয়ে তার নেতৃত্বে জরায়ু অপারেশন। মাত্র ১০০০ টাকা জমা দিয়েই ২৪ ঘণ্টায় রোগী পৌঁছেছেন অপারেশনের টেবিলে। যদি সাধ্যে কুলায় বাকি খরচ দেবেন। খরচের দুশ্চিন্তায় থাকতে হবে না তাকে।
একজন রোগী বলেন, ‘আমি ১ হাজার টাকা দিয়ে ভর্তি হয়েছি। যাওয়ার সময় বলে কয়ে একটু কম দেবো।’
আরও একজন বলেন, ‘আমার পরিবারের ৭ টা অপারেশন হইছে এখানে। কম টাকা নেয় এখানে। কোনো অসুবিধা হয়নি।’
প্রত্যন্ত অঞ্চলের হতদরিদ্র রোগীদের দুরাবস্থা দেখেই এমন উদ্যোগ নিয়েছেন জানালেন ডা. রওশন আরা।
সাহেরা হাসান মেমোরিয়াল ট্রাস্টের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. রওশন আরা বেগম বলেন, ‘মানুষের সাথে থাকা এটাই একটা বিরাট প্রশান্তি। এছাড়া নিজের শেকড়ের কাছে ফিরে আসা। আসলে শেকড়ের ঋণ শোধ করার ক্ষমতা তো কারো নেই। তবু একটু চেষ্টা করা।’
দীর্ঘদিন বিনামূল্যে সেবা দেবার পর এলাকাবাসীর ঠিক করে দেয়া ২০ টাকা ফি ২০ বছরে ১০০ টাকা ছুঁয়েছে। মানিকগঞ্জের গড়পাড়া ইউনিয়নের চান্দের গ্রামে সাড়ে ৫ বিঘা জমির ওপর গড়ে ওঠা হাসপাতালটির শয্যা সংখ্যা এখন ৩০। মানবতার সেবার পাশাপাশি হাতে কলমে শিক্ষা নিতে এখানে আসছেন দেশের বিভিন্ন পর্যায়ের চিকিৎসকরা।
প্রতিদিন ১০০ থেকে ২০০ রোগী আসেন সায়েরা হাসান হাসপাতালে। নামমাত্র মূল্যে হার্নিয়া, ফিস্টুলা, সিজারিয়ান, জরায়ু থেকে শুরু করে নারীদের সব ধরনের অস্ত্রোপচার করা হয় এই হাসপাতালে। রোগীদের পাশে দাড়ানোর এমন দৃষ্টান্ত ছড়িয়ে পড়ুক দেশের প্রতিটি প্রান্তে।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.