সংবাদ শিরোনাম
কুলাউড়ায় কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ-প্রেমিক জেলহাজতে  » «   কমলগঞ্জে পানিতে পড়ে প্রতিবন্ধী যুবকের মৃত্যু  » «   সিলেটে ডিবি পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ!  » «   কমলগঞ্জে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ দুইজন আটক  » «   আজ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর জন্মদিন সিলেটে আসছেন তিনি  » «   বিশ্বনাথে দেয়াল নির্মাণকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে প্রবাসীসহ আহত ১১  » «   নগরীর মহাজনপট্টিতে ডিবির অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১  » «   মাছ ধরার জেরে মামা-ভাগ্নের ঝগড়ায় প্রাণ গেলো অনিকের  » «   হবিগঞ্জের বাহুবলে দুই অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী নিহত  » «   বিশ্ববাসীকে জেগে উঠার আহ্বান ইমরানের  » «   সৌদি আরবে চালু তাৎক্ষণিক লেবার ভিসা সার্ভিস  » «   যাত্রা শুরু হলো ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ গাঙচিলের  » «   মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১  » «   ‘একজন রোহিঙ্গাও ফেরত যেতে রাজি হয়নি’  » «   মোদির বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে বিক্ষোভ করবে পিটিআই  » «  

রোজাদার বাচ্চারা কী খাবে?

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::চলছে পবিত্র রমজান মাস। প্রতিটি মুসলমান এর জন্যই রোজা ফরজ। এ তালিকা থেকে কিন্তু বাদ দেয়া যায় না বালক-বালিকা, কিশোর-কিশোরীদেরও। অনেক শিশুই আছে যারা দশ বছরের পর থেকে রোজা করতে শুরু করে।
বাড়ন্ত বাচ্চাদের রোজায় খাবার তালিকা হতে হবে সুষম খাবার তালিকা। বাড়ন্ত বাচ্চাদের রোজায় কোন খাদ্য উপাদানের ঘাটতি যেন না হয় সে দিকে বিশেষ লক্ষ্য রাখতে হবে।
ইফতারিতে বাড়ন্ত বাচ্চাদের যা খাওয়া উচিৎ:
লেবুর শরবত, বাসায় তৈরি যেকোন পছন্দসই ফলের রস, ডিম বা ডিমের তৈরি খাবার যেমন পুডিং, কেক, প্যানকেক, ডিমের চপ ইত্যাদি। এর সাথে নিতে পারে বাসায় তৈরি হালিম, ছোলা-মুড়ি, ২/৩টা পেঁয়াজু, বেগুনি, আলুর চপ ইত্যাদি।
রাতের খাবার:
অবশ্যই রাখতে হবে ভাত, মাছ, মাংস, সবজি, ডাল ইত্যাদি।
যদি ভাত খেতে ভাল না লাগে তাহলে মাঝে মাঝে বাসায় তৈরি তান্দুরি চিকেন বা নরমাল মুরগির মাংস, রুটি বা তান্দুরি রুটি, সালাদ ইত্যাদি রাতের খাবারে রাখা যায়।
রাতে শোবার আগে এক গ্লাস দুধ বা দই খেয়ে নিতে হবে।
সেহেরিতে বাচ্চাকে কী দেবেন:
ভাত, মাছ/মাংস, সবজি, ডাল ইত্যাদি নিতে হবে। নরমাল ভাত অনেক বাচ্চারা খেতে পছন্দ করে না সেক্ষেত্রে তাকে ভাত ডিম বা মাংস এবং সবজি দিয়ে ভাত ভাজি করে দেয়া যায়।
লক্ষ্য রাখুন:
ইফতারের পর থেকে রাতে শোবার আগ পর্যন্ত প্রতি ঘন্টায় এক গ্লাস পানি খেতে হবে।
খাবারে লবণ কম খেতে হবে এবং লবণাক্ত খাবারও কম খেতে হবে।
যেসব বাড়ন্ত বাচ্চাদের ওজন বেশি তাদের তেলে ভাজা খাবার এবং মিষ্টি জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে হবে।
মাহফুজা নাসরীন (শম্পা)
ক্লিনিক্যাল ডায়টেশিয়ান
ইমপালস্ হসপিটাল, তেজগাঁও, ঢাকা

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.