সংবাদ শিরোনাম
বিশ্বনাথে দেয়াল নির্মাণকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে প্রবাসীসহ আহত ১১  » «   নগরীর মহাজনপট্টিতে ডিবির অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১  » «   মাছ ধরার জেরে মামা-ভাগ্নের ঝগড়ায় প্রাণ গেলো অনিকের  » «   হবিগঞ্জের বাহুবলে দুই অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী নিহত  » «   বিশ্ববাসীকে জেগে উঠার আহ্বান ইমরানের  » «   সৌদি আরবে চালু তাৎক্ষণিক লেবার ভিসা সার্ভিস  » «   যাত্রা শুরু হলো ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ গাঙচিলের  » «   মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১  » «   ‘একজন রোহিঙ্গাও ফেরত যেতে রাজি হয়নি’  » «   মোদির বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে বিক্ষোভ করবে পিটিআই  » «   বিএনপিকে ধ্বংসের চক্রান্ত করছে সরকার: রিজভী  » «   ‘২১শে আগস্ট হত্যাকাণ্ডের মাস্টারমাইন্ড তারেক রহমান’  » «   ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুন  » «   প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিয়ে ঢাকা ছাড়লেন জয়শঙ্কর  » «   ট্রেনের বগিতে ছাত্রীর লাশ ! ধর্ষণের পর হত্যা  » «  

মেয়েকে বাঁচাতে দিনমজুর বাবার আবেদন

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের ডি-ব্লকের ৩০৭ নম্বর ইউনিটের ৯ নম্বর বেডে চিকিৎসা চলছে রাফিকা আক্তারের। ব্লাড ক্যান্সার আক্রান্ত ৫ বছরের এই শিশুটি দীর্ঘ প্রায় ৯ মাস ধরে এই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।  
রাফিকার শরীরে এখন পর্যন্ত ছয়বার কেমোথেরাপি দেওয়া হয়েছে। সবশেষ কেমোথেরাপি দেওয়ার পর তাকে হাসপাতাল থেকে সাময়িক ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তার শরীরে সংক্রমণ হওয়ায় গত বৃহস্পতিবার আবার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এখন প্রতিদিন রাফিকার ওষুধ কিনতে খরচ হচ্ছে প্রায় ৪ হাজার ৫০০ টাকা।
রাফিকার চিকিৎসা করাতে গিয়ে তার দিনমজুর বাবা রফিকুল ইসলাম এখন নিঃস্ব। অন্যদের সহায়তায় চলছিল রাফিকার চিকিৎসা। কিন্তু সেই সাহায্যের অর্থও শেষ। মেয়েকে নিয়ে এখন তিনি ‘অকুল দরিয়ায়’।
রফিকুল ইসলাম জানান, ছোট্ট মেয়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে ধার-কর্জ আর বসতভিটা বিক্রি করেছেন। মানুষও সহায়তা করেছে। এখন পর্যন্তত অন্তত ১০ লাখ টাকা খরচ হয়েছে রাফিকার পেছনে। কিন্তু চিকিৎসা ব্যয় থামছে না। মেয়ের সঙ্গে থাকার কারণে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতে পারছেন না। এখন মেয়ের প্রতিদিনের চিকিৎসা খরচ প্রায় ৪ হাজার ৫০০ টাকা নিয়ে পড়েছেন বিপদে। ছোট্ট মেয়েকে বাঁচাতে তাই হৃদয়বানদের কাছে সহায়তা চেয়েছেন তিনি।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পেডিয়াট্রিক হেমাটোলজি এবং অনকোলজি বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ আফিকুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা চলছে শিশু রাফিকার।
রাফিকা আক্তারের বাড়ি রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার হুলাশুগঞ্জের করিমপুর গ্রামে। তার বাবা রফিকুল ইসলাম একজন দিনমজুর। ট্রাক্টর চালিয়ে জীবন নির্বাহ করা রফিকুল এখন সর্বস্বান্ত।
চিকিৎসায় রাফিকা কতটুকু সুস্থ হয়েছে, জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের আবাসিক চিকিৎসক কানিজ ফাতেমা বলেন, ‘মোটামুটি রেসপন্ড ভালোই করছে। তবে এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না। রাফিকার যে ব্লাড ক্যান্সার হয়েছে, এ ধরনের ক্যান্সারের রোগীরা ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ রিকভারি করে।’
রাফিকার বাবা রফিকুল ইসলাম জানান, গত বছরের ১১ মে রাফিকার ব্লাড ক্যান্সার ধরা পড়ে। এরপর থেকে রংপুর মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। এখনো সেই চিকিৎসা চলছে।
রাফিকার বাবা আরও জানান, মেয়ের চিকিৎসার জন্য আত্মীয়-স্বজন শুভাকাঙ্ক্ষিরা বিভিন্নভাবে সহায়তা করছেন। না হলে চিকিৎসা বন্ধ হয়ে যেত। তার চিকিৎসা চালাতে আরও অর্থের দরকার। তাই যদি কোনো হৃদয়বান রাফিকার চিকিৎসার এগিয়ে আসেন তাহলে হয়তো বাঁচতে পারে ফুটফুটে এই শিশুটি।
যোগাযোগ ও সহায়তা পাঠানোর ঠিকানা
মুঠোফোন ও বিকাশ নম্বর : ০১৭৫১-৪৪৬০২৭ ও ০১৩০৬৪৩২০৫২
সঞ্চয়ী ব্যাংক হিসাব : ৭১০১১২১০০০০১৮৮১, হিসাবধারীর নাম মো. রফিকুল ইসলাম, শঠিবাড়ী শাখা, মেঘনা ব্যাংক লিমিটেড, রংপুর।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.