সংবাদ শিরোনাম
বাঁচা মরা তো আল্লাহর হাতে:আমার স্ত্রীর অবস্থা খুবই খারাপ-মানবতার ফেরিওয়ালা মাকসুদুল  » «   এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল আজ  » «   কোমা থেকে জাগলেন করোনায় আক্রান্ত ব্রিটিশ পাইলট  » «   করোনা প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধিদের আরও সম্পৃক্তির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর  » «   লিবিয়ায় নিহতদের মরদেহ বাংলাদেশে আনা যাবে না  » «   জগন্নাথপুরে জিয়াউর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল  » «   সুনামগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের হামলা আহত ২-থানায় অভিযোগ  » «   জগন্নাথপুরে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এক নারী চিকিৎসক  » «   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে করোনার নমুনা সংগ্রহের বুথ স্থাপন  » «   সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে ট্রলি চাপায় এক শিশুর মৃত্যু  » «   এবার ছেলের বাবা হলেন আশরাফুল  » «   মেসিকে কাটিয়ে সবচেয়ে বেশি আয় ফেদেরারের  » «   কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার জেরে যুক্তরাষ্ট্রে তুলকালাম  » «   কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা: অভিযুক্ত সেই পুলিশ কর্মকর্তাকে ডিভোর্স দিচ্ছেন স্ত্রী  » «   ছেলেকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা  » «  

আইনজীবীর মাধ্যমে অভিনেত্রী নওশাবার হাজিরা বাতিল

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::ফেসবুকে গুজব ছড়ানোয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে করা মামলায় এতদিন অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদ আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে হাজিরা দিতেন। বিচারক আইনজীবীর মাধ্যমে হাজিরা বাতিল করে ১৪ জুলাই তাকে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম দিদার হোসেনের আদালতে নওশবার হাজিরার দিন ধার্য ছিল। এদিন নওশাবা আদালতে উপস্থিত হয়নি। আইনজীবীর মাধ্যমে হাজিরা দেন তিনি। অন্যদিকে মামলার অভিযোগপত্র শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল আজ। নওশাবার অভিযোগপত্র আসা পর্যন্ত আইনজীবীর মাধ্যমে হাজিরা মঞ্জুর ছিল। তাই বিচারক আইনজীবীর মাধ্যমে হাজিরা বাতিল করে ১৪ জুলাই তাকে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য নির্দেশ দেন।

গত ৩০ এপ্রিল ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে অভিনেত্রী নওশাবার বিরুদ্ধে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে করা মামলার চার্জশিট দাখিল করা হয়। তদন্ত কর্মকর্তা কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইমের পুলিশ পরিদর্শক শওকত আলী সরকার এ চার্জশিট দাখিল করেন। চার্জশিটে এমনটাই উল্লেখ করেছেন তিনি। মামলায় সাক্ষী করা হয়েছে ২০ জনকে।

চার্জশিটে শওকত আলী সরকার উল্লেখ করেন, ‘আসামি কাজী নওশাবা ইচ্ছাকৃত ও পরিকল্পিতভাবে রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতে জনসাধারণের অনুভূতিতে আঘাত করে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটনোর জন্য মিথ্যা ও মানহানিকর তথ্য প্রকাশ এবং প্রচার করে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন-২০০৬ (সংশোধনী) এর ৫৭ (২) ধারায় অপরাধ করেছে।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, গত বছরের ৪ আগস্ট কাজী নওশাবা নিজের ফেসবুক থেকে অত্যন্ত আবেগী কণ্ঠে লাইভ ভিডিও সম্প্রচার করে বলেন, ‘জিগাতলায় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করে একজনের চোখ উঠিয়ে ফেলেছে এবং চারজনকে মেরে ফেলেছে। আপনারা যে যেখানে আছেন, কিছু একটা করেন।’

এজাহারে আরও বলা হয়, এ আহ্বানের ভিডিও মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়। এতে জনমনে আতঙ্ক ও বিদ্বেষ ছড়িয়ে পড়ে। পরে বিভিন্ন গণমাধ্যমকর্মী তার এই প্রোপাগান্ডার উৎস জানতে ফোন করলে এর স্বপক্ষে সঠিক কোনো উত্তর দিতে পারেননি তিনি। ওই সময় জিগাতলায় এ ধরনের কোনো ঘটনাও ঘটেনি। এ ঘটনায় ৫ আগস্ট র্যাব-১ এর কর্মকর্তা আমিরুল ইসলাম বাদী হয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন ২০০৬ সালের ৫৭(২) ধারায় রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলাটি করেন।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.