সংবাদ শিরোনাম
ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে সরাসরি যান চলাচল বন্ধ  » «   জগন্নাথপুরের আশারকান্দি ইউনিয়নে শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা-মামলা  » «   অর্থমন্ত্রী বাসায় ফিরেছেন  » «   শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার প্রথম চেয়ারম্যান হলেন রশিদ তালুকদার  » «   জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে ইউসুফ আল আজাদ বিজয়ী  » «   জুড়ীতে বাসের চাপায় ফল ব্যবসায়ী নিহত  » «   বিয়ানীবাজারে ইভটিজিংয়ের দায়ে তরুণের কারাদন্ড  » «   রাজনগরে দুর্ধর্ষ ডাকাতি  » «   বিরোধীদলগুলোকে সংসদে সমান সুযোগের প্রতিশ্রুতি মোদির  » «   পানির নিচে খাঁচার ভিতর প্রাণ গেল জাদুকরের  » «   তীব্র দাবদাহে বিহারে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৮৪  » «   চীনে ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১২  » «   গোপনেই দাফন করা হল মুরসিকে  » «   ‘দেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে ধ্বংস করা হয়েছে’  » «   নওগাঁয় মাকে হত্যা করে মেয়েকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ১  » «  

দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশি যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::দক্ষিণ আফ্রিকায় অষ্টগ্রামের প্রদীপ চন্দ্র দাস (৪২) নামে এক যুবকের রহস্যজনক মৃত্যুতে শোকাহত তার পরিবার। প্রদীপ কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলার সদর ইউনিয়নের আড়ারপার ঋষিপাড়ার মনোরঞ্জন দাসের ছেলে। জানা যায়, গত ২৭শে মে দক্ষিণ আফ্রিকায় রহস্যজনকভাবে প্রদীপের মৃত্যু হলে বাংলাদেশ হাই কমিশনার প্রিটোরিয়া দক্ষিণ আফ্রিকা কর্তৃক তার মরদেহ বাংলাদেশে হস্তান্তর করে। পরিবারের পক্ষে ভাতিজা বিশ্বজিৎ ঋষি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হতে মরদেহ গ্রহণ করে অষ্টগ্রামে পারিবারিক শ্মশানে শেষকৃত্য সম্পন্ন করেন। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, প্রদীপ দাস ১৮ বছর যাবৎ দক্ষিণ আফ্রিকায় কাননা ক্লিয়ারেন্স ফ্রি-স্টিটে নিজস্ব কসমেটিকস দোকানে ব্যবসা করে আসছিলেন। কিন্তু হঠাৎ প্রদীপ দাসের মৃত্যুর খবর শুনে তার পরিবারের লোকজন তা বিশ্বাস করতে পারেনি। পরে ভগ্নিপতি আফ্রিকা প্রবাসী সন্তোষ মোহন ঋষি প্রদীপ দাসের মৃত্যুর ঘটনাটি নিশ্চিত করেন। এলাকার ব্রাহ্মণ পুরোহিত সুধীর চক্রবর্তী জানায়, নিহত প্রদীপ দাসের মাথায়, হাতে, পায়ের গিড়াসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য জখমের চিহ্ন দেখা গেছে।

প্রদীপ দাসের মৃত্যুর ঘটনা রহস্যজনক বলে পরিবারের ধারণা। কিন্তু বিষয়টিকে দুর্ঘটনা বলে চাপা দিলেও এটি পরিকল্পিত হত্যা বলে পরিবার পরিজন মনে করছেন। প্রদীপ দাস নিহত হওয়ার দিবাগত রাতে তার মা সুমিত্রা বালার সঙ্গে প্রয়োজনীয় টাকা দেয়ার ব্যাপারে কথা বলেছিল। আফ্রিকায় প্রদীপের ভালো ব্যবসা বাণিজ্য ছিল বলে তার মা সুমিত্রা বালা জানান। প্রদীপ দাস আফ্রিকায় অনেক পরিশ্রমে টাকা অর্জন করে সেখানে ব্যবসা দিয়েছিল। তার মা সুমিত্রাকে বলেছিল কিছুদিনের মধ্যেই বাংলাদেশে এসে সে বিয়ে করবে। কিন্তু মায়ের শেষ ইচ্ছেটুকু আর পূরণ হলো না। প্রদীপ নিজ দেশে ঠিক ফিরলো, তবে জীবিত নয় লাশ হয়ে। দেখা হলো না তার প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের অষ্টগ্রামসহ পরিবার পরিজন ও আত্মীয়স্বজনদের। প্রদীপ দাসের মৃত্যুতে তার মা সুমিত্রা বালা বার বার মূর্চ্ছা যান। করছেন পুত্রশোকে বিলাপ। প্রদীপ ছিল মা বাবার ছোট ছেলে। প্রদীপের এই রহস্যজনক মৃত্যুতে তার মা সুমিত্রা বালা বাংলাদেশ সরকারের কাছে সঠিক তদন্তের মাধ্যমে বিচারের দাবি জানান।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.