সংবাদ শিরোনাম
ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে সরাসরি যান চলাচল বন্ধ  » «   জগন্নাথপুরের আশারকান্দি ইউনিয়নে শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা-মামলা  » «   অর্থমন্ত্রী বাসায় ফিরেছেন  » «   শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার প্রথম চেয়ারম্যান হলেন রশিদ তালুকদার  » «   জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে ইউসুফ আল আজাদ বিজয়ী  » «   জুড়ীতে বাসের চাপায় ফল ব্যবসায়ী নিহত  » «   বিয়ানীবাজারে ইভটিজিংয়ের দায়ে তরুণের কারাদন্ড  » «   রাজনগরে দুর্ধর্ষ ডাকাতি  » «   বিরোধীদলগুলোকে সংসদে সমান সুযোগের প্রতিশ্রুতি মোদির  » «   পানির নিচে খাঁচার ভিতর প্রাণ গেল জাদুকরের  » «   তীব্র দাবদাহে বিহারে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৮৪  » «   চীনে ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১২  » «   গোপনেই দাফন করা হল মুরসিকে  » «   ‘দেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে ধ্বংস করা হয়েছে’  » «   নওগাঁয় মাকে হত্যা করে মেয়েকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ১  » «  

বিএনপি অফিসে তালা, ছাত্রদলের বিক্ষোভ ও অবস্থান

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনের আগে বয়সসীমা বাতিলের দাবিতে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও তালা ঝুলিয়ে তা-ব চালায় ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ বয়স্ক নেতাকর্মীরা। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে তারা বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচী শুরু করেন। একপর্যায়ে ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও বর্তমানে বিএনপির সিনিয়র নেতা এমন ক’জন সেখানে গিয়ে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের দলীয় কার্যালয় খুলে দিতে বললে তারা বিক্ষোভকারীদের তোপের মুখে পড়েন এবং নাজেহাল হন। একপর্যায়ে ছাত্রদল নেতাকর্মীরা রিজভী কেন পার্টি অফিসে থাকেন এমন প্রশ্ন করে তাকে কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে বের করে দেয়ার দাবি জানান।

বিকেল সোয়া ৪টায় বিএনপি কার্যালয়ে ঝুলিয়ে দেয়া তালা খুলে দেয় ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। এ সময় তারা আগে থেকে বিএনপি কার্যালয়ে প্রবেশ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীকে পাহারা দেয়া ঢাকা মহানগর পূর্ব ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রবিউল ইসলাম নয়নকে ধরে এনে মারধর করে। এ সময় আরও ক’জনকে বিএনপি কার্যালয় থেকে বের করে প্রহার করে তারা। এ ছাড়া বিএনপি কার্যালয়ে কর্মরত স্টাফদেরও বের করে দেয়া হয়। তবে রুহুল কবির রিজভী অসুস্থ হয়ে পড়ায় বিএনপি অফিসের ২ কর্মী ও একজন ডাক্তারকে কার্যালয়ের ভেতর থাকতে দেয় ছাত্রদল কর্মীরা। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা বিএনপি কার্যালয়ের সামনেই অবস্থান কর্মসূচী পালন করছিলেন।

সকাল ১০টা থেকেই ছাত্রদলের শতাধিক বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মী নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে গিয়ে জড়ো হয়। এ সময় তারা চিৎিকার চেঁচামেচি করে বলতে থাকে কেন ৩৫ বছরের বেশি বয়সের ছাত্ররা ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে থাকতে পারবে না। আর যদি ৩৫ বছরের বেশি বয়সের অভিজ্ঞরা কমিটিতে থাকতে না পারে তাহলে ছাত্রদল মেধাশূন্য হয়ে যাবে। তবে কার স্বার্থে এ হটকারী সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অবিলম্বে এ সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করা হোক। এ সময় তারা স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত করে তোলে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয় সংলগ্ন এলাকা। বেলা ১১টার দিকে বিক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাকর্মীরা বিএনপি কার্যালয়ের মূল গেটে তালা ঝুলিয়ে দেয়। এ সময় ক’জন নেতাকর্মী অনশনে বসে।

এর পর বিক্ষোভরতরা স্লোগান সহকারে বলতে থাকে ছাত্রদলের কমিটি ভেঙ্গে দেয়ার ঘোষণা প্রত্যাহার করতে হবে। সেই সঙ্গে ছাত্রদলের দেয়া তিনটি প্রস্তাবের ভিত্তিতে নতুন কমিটি করতে হবে। প্রস্তাবগুলো হচ্ছেÑ নতুন কমিটিতে বয়সের সীমারেখা না রাখা, স্বল্পমেয়াদী কমিটি গঠন এবং কেন্দ্রীয়, বিশ্ববিদ্যালয়, মহানগর ও কলেজের সমন্বয়ে কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করা।

একপর্যায়ে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে গিয়ে ছাত্রদলের সাবেক সভাপতিদের মধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, বরকত উল্লাহ বুলু, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, প্রচার সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, দলের নেতা এবিএম মোশাররফ হোসেন, মীর সরাফত আলী সপু, শফিউল বারী বাবু, আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল, হাবিবুর রশিদ হাবিবসহ বেশ ক’জন নেতা বিক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাকর্মীদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

পরে বিএনপি নেতারা তালা খুলে কার্যালয়ের ভেতর প্রবেশ করতে চাইলে বিক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাকর্মীদের তোপের মুখে পড়েন। তাদের সঙ্গে তর্কবিতর্কেও জড়িয়ে পড়েন। বিএনপির এসব নেতা ছাত্রদলের নতুন কমিটি গঠন প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত হওয়ায় তাদের উদ্দেশ করে কটু বাক্য উচ্চারণসহ বিভিন্নভাবে নাজেহাল করতে থাকেন বিক্ষুব্ধরা। আর তাদের উদ্দেশে বলতে থাকে বয়সসীমা না করে ছাত্রদলের ধারাবাহিক কমিটি দিতে হবে। ছাত্রদলের সাবেক নেতাদের মধ্যে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সব সময় বিএনপি কার্যালয়েই অবস্থান করেন। আর বিক্ষোভ শুরুর আগে মঙ্গলবার সকালে বিএনপি কার্যালয়ে প্রবেশ করেছিলেন সাবেক ছাত্রদল নেতা ও বর্তমানে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন ও দলের নেতা আজিজুল বারী হেলাল। দুপুর ১টার দিকে তারা দু’জন বিএনপি কার্যালয় থেকে বেরিয়ে এলে ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা ভুয়া ভুয়া বলে স্লোগাান দেন। কিছু সময় হোটেল ভিক্টোরিয়ার সামনে দাঁড়িয়ে থাকার পর ছাত্রদলের সাবেক ও বর্তমানে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটিতে থাকা নেতারা দুপুরের পর গুলশান বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে চলে যান। বিকেলে সেখান থেকেই তারা লন্ডনে তারেক রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করে সার্বিক পরিস্থিতির কথা জানান। আর বিকেল ৫টার দিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায়সহ ক’জন নেতা ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ নেতাদের নিয়ে বৈঠক করে তাদের ক্ষোভ প্রশমনের চেষ্টা করেন।

একপর্যায়ে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী একাই দুটি পদ নিয়ে পার্টি অফিসকেই বাড়িঘর বানিয়ে বসে আছেন কেন এমন প্রশ্ন করে তাকে সেখান থেকে বের করে নিয়ে যাওয়ার দাবি জানাতে থাকে ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। এক সময় বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী বিএনপি কার্যালয়ের ভেতরে গিয়ে কথা বলার অনুরোধ করলে ছাত্রনেতারা বলেন, ভেতরে নয়, যা বলার এখানেই কথা বলুন। এ সময় অপমান বোধ করে ক্ষোভ প্রকাশ করে সেখান থেকে চলে যান বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু। আর বিএনপির অন্য নেতারা দলীয় কার্যালয়ের নিচে বইয়ের দোকানে বসতে চাইলে দোকানের শাটার নামিয়ে দেন বিক্ষুব্ধরা। এর পর এ্যানী ছাত্রদল নেতাদের ধমক দিলে এক নেতা তাকে ধাক্কা দিয়ে নাজেহাল করেন। এর পর বিএনপি ও ছাত্রদল নেতাদের মধ্যে তুমুল বাগ্বিত-া ও তর্কবিতর্ক হয়।

ছাত্রদল নেতাকর্মীদের সঙ্গে তর্কবিতর্ক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন বলেন, ছাত্রদলের কমিটির বিষয়ে সিদ্ধান্ত দল থেকে দেয়া হয়েছে। আর আমরা সবাই বসে এটা কার্যকর করব। তবে কারও দুঃখ ও অভিমান থাকতেই পারে। এটা অস্বাভাবিক কোন ঘটনা নয়। আর তাদের দুঃখ ও বেদনা আমরা শুনব। সেটা আমরা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বলব। তিনি যে সিদ্ধান্ত দেবেন সেটাই চূড়ান্ত।

বিএনপির প্রচার সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রদল সভাপতি শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি বলেন, যারা এখানে বিক্ষোভ করছেন, তারা আমাদের ছোট ভাই। তাদের যদি সুন্দরভাবে মূল্যায়ন করতে পারে বিএনপি অথবা তাদের সঙ্গে যদি আলাপ-আলোচনা করতে পারি, তাহলে সমাধানে আমরা আসতে পারব। আমরা সেই কাজটি অবশ্যই করব। অবশ্যই তাদের সঙ্গে ধীরে ধীরে আলোচনা করব। বয়সসীমা না রাখার যে দাবি সে বিষয়ে এ্যানী বলেন, এটা তো আমার একার বিবেচনার বিষয় নয়, এটা তাদের সঙ্গে আলোচনা করেই সমাধান ও সমন্বয় হতে পারে।

বিএনপি কার্যালয়ের সামনে ছাত্রদলের ভেঙ্গে দেয়া কমিটির সহ-সভাপতি এজমল হোসেন পাইলট সাংবাদিকদের বলেন, এটা আমাদের প্রতিবাদ কর্মসূচী। হঠাৎ করে ঈদের আগে এই কমিটি ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। আমরা ঢাকা শহরের ১২টা ইউনিট ও আমাদের সদ্য বিলুপ্ত কেন্দ্রীয় কমিটি ঐক্যবদ্ধভাবে একটা আবেদননামা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে পাঠিয়েছিলাম। সেখানে নতুন কমিটি গঠনের জন্য তিনটা বিষয়ের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। একটা দাবি ছিল বয়সের সুনির্দিষ্ট সীমারেখা থাকবে না। ধারাবাহিক কমিটি হতে হবে এবং একটা কমিটি হবে ছয় মাসের অর্থাৎ আগামী ১ জানুয়ারি পর্যন্ত। পরে একবছরের জন্য কমিটি দিতে হবে, যাতে ছাত্রদলকে সুন্দর গোছানো সংগঠনের চেহারায় নিয়ে আসা যায়। এখানে ভুল বোঝার কোন অবকাশ নেই। আমাদের দাবি একটা, আমাদের ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচী একটাÑ আমাদের দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি। আমরা এখানে এসেছি ঈদে যারা বাড়িতে ছিলাম সবাই কোলাকুলি করব বলে। কিন্তু ঈদের আগের দিন আমরা দেখতে পেলাম রাতের বেলা প্রেস রিলিজের মাধ্যমে আমাদের কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। আমরা এতে আহত বোধ করছি। আমাদের যে দাবি বা প্রস্তাব তারেক রহমানের কাছে দিয়েছি, তার বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আমাদের কর্মসূচী চলবে।

বিলুপ্ত কমিটির সহ-সভাপতি মামুন বিল্লাহ বলেন, ছাত্রদলের কমিটিতে থাকার জন্য ৩৫ বছর বয়স নির্ধারণ করা হয়েছে, এটা বাতিল করতে হবে। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদলের বিলুপ্ত কমিটির সহ-সভাপতি মনিরুল ইসলাম মনির, ইখতিয়ার কবির, নাজমুল হাসান, যুগ্ম সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, রাসেল মিয়া, আবুল হাসান, আব্দুল আজিজ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ৩ জুন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্রদলের মেয়াদোত্তীর্ণ কেন্দ্রীয় কমিটি বাতিল করা হয়। একইসঙ্গে বাতিলের পরবর্তী ৪৫ দিনের মধ্যে ছাত্রদলের কাউন্সিলরদের মতামতের ভিত্তিতে নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনের কথা বলা হয়। তবে হঠাৎ করে কমিটি বিলুপ্ত করায় ছাত্রদল নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দেয়। এরই অংশ হিসেবে মঙ্গলবার নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে ছাত্রদল নেতাকর্মীরা।

প্রসঙ্গত, ছাত্রদলের সর্বশেষ কমিটি গঠন করা হয়েছিল ২০১৪ সালের ১৪ অক্টোবর। রাজীব আহসানকে সভাপতি ও আকরামুল হাসানকে সাধারণ সম্পাদক করে গঠিত ওই আংশিক কমিটিতে তখন ১৫৩ সদস্য ছিল। দীর্ঘদিন পর সেই কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা হলে তাতে ৭৩৬ জনকে পদ দেয়া হয়। তবে ওই কমিটি নিয়েও সংগঠনে ক্ষোভ-বিক্ষোভ দেখা দেয়। ৩ জুন এ কমিটি ভেঙ্গে দেয় বিএনপি। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে কমিটি ভেঙ্গে দেয়ার পাশাপাশি নতুন কমিটি গঠন করতে কাউন্সিলে প্রার্থী হওয়ার জন্য তিনটি যোগ্যতা নির্ধারণী শর্তও ঠিক করে দেয়া হয়। সেখানে বলা হয়, প্রার্থীকে ছাত্রদলের প্রাথমিক সদস্য হতে হবে, তাকে অবশ্যই দেশের কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী হতে হবে এবং ২০০০ সালের পরে এসএসসি/সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।

এর পর নতুন কাউন্সিল অনুষ্ঠানে সংগঠনটির সাবেক নেতাদের নিয়ে ৯ জুন তিনটি কমিটি করে দেয়া হয় বিএনপির পক্ষ থেকে। এগুলো হলো- নির্বাচন পরিচালনা, বাছাই ও আপীল কমিটি। নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান করা হয়েছে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনকে। এ কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- ছাত্রদলের সাবেক নেতা শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, এবিএম মোশাররফ হোসেন, শফিউল বারী বাবু, আমিরুল ইসলাম খান আলিম, রাজিব আহসান।

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলনকে বাছাই কমিটির প্রধান করা হয়েছে। এ কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- সাবেক ছাত্রদল নেতা আজিজুল বারী হেলাল, সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, আবদুল কাদের ভুইয়া জুয়েল, হাবিবুর রশিদ হাবিব ও আকরামুল হাসান। আপীল কমিটির প্রধান করা হয়েছে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুকে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- ড. আসাদুজ্জমান রিপন ও আমানউল্লাহ আমান।

এটা কিছু না, মান-অভিমানের বিষয়Ñ মির্জা আব্বাস ॥ সন্ধ্যায় বিএনপি কার্যালয়ে থেকে বেরিয়ে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ছাত্রদলের ‘পোলাপাইন’ রাগ করেছে। তবে এটা কিছু না, মান-অভিমানের বিষয়। ওরা মান-অভিমান করেছে, এটা ঠিক হয়ে যাবে। এটা ঠিক হয়ে যাবে। কারও কিছু করতে হবে না। কোন সালিশ, আলোচনা কিছুই করতে হবে না। আর গয়েশ্বর চন্দ্র রায় সাংবাদিকদের বলেন, কেউ ব্যথা পেলে চিৎকার দেয়Ñ এটাই স্বাভাবিক। নিয়মিত কাউন্সিল না হওয়ার কারণে যোগ্য ছেলেরা তাদের আরাধ্য লক্ষ্যে পৌঁছতে পারে নাই। সেই বিষয়টা আমাদের বিবেচনা করতে হবে, এরা দলের জন্য পরিশ্রম করে, এরা বাইরের নয়, এরা দলের মঙ্গল চায়। সমস্যা যেমন আছে, সমাধানও আছে। আলোচনার মাধ্যমে এটার সমাধান হবে। রিজভী অসুস্থ জানিয়ে তিনি বলেন, তাকে স্যালাইন দিয়ে রাখা হয়েছে। ডাক্তার সেখানে আছে।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.