সংবাদ শিরোনাম
জগন্নাথপুরে বন্যায় পানিতে তলিয়ে গেছে রাস্তা: পানির স্রোতে রাস্তা ভেঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন  » «   গোয়াইনঘাটে করোনায় আরও এক ব্যক্তির মৃত্যু  » «   গোয়াইনঘাটে অসহায় ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে দাঁড়ালেন জেলা প্রশাসক  » «   সাবরিনার গ্রেফতারে তাদের স্বপ্নদোষ শুরু হয়েছে:ফেসবুকে মিলি সুলতানা  » «   থানায় যেভাবে রাত কাটে সাবরিনার’তার সিম জালিয়াতি’কললিস্টে ভিআইপিদের নম্বর  » «   বাংলাদেশে করোনায় ১২ এবং উপসর্গ নিয়ে ৯ সাংবাদিকের মৃত্যু, দায়ী সুরক্ষা সরঞ্জামের অভাব  » «   কমলগঞ্জে শাহেদের অবস্থান নিয়ে গুঞ্জন  » «   ওসমানীনগরে চেয়ারম্যান রবের মৃত্যু: উমরপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের শোক  » «   রশি দিয়ে বেঁধে নেয়ার হুমকি দেওয়া ওসামীনগরের ওসির বদলি  » «   দিরাইয়ে প্রথম করোনায় একজনের মৃত্যু  » «   সুনামগঞ্জে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ ৬৫০টি পরিবারের মাঝে খিচুরী বিতরণ  » «   উন্নয়ন কাজ পরিদর্শনকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চেয়ারম্যানের মৃত্যু  » «   সুনামগঞ্জে সুরমা নদীর পানি বিপদ সীমার ৩১ সেঃ মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে  » «   কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ওরফে পাথর শামীম রাতারাতি আঙুল ফুলে কলাগাছ:একাধিক মামলা  » «   শিক্ষকের যৌন লালসার শিকার ছাত্রীরা..এমন একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল  » «  

কোরআন ও মাথা ছুঁয়ে শপথ করছেন? কিন্তু জানেন কি ইসলাম কি বলে?

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::দেখা যায়, অনেকেই কোরআন ছুঁয়ে, মাথা ছুঁয়ে, মাজার বা পীরের নামে শপথ করে। কিন্তু জানেন কি ইসলাম কি বলে? ইসলামী বিধান মতে, তা শিরক ও সবচেয়ে বড় গুনাহ। হাদিস শরিফে আছে, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো নামে শপথ করে, সে অবশ্যই কুফরি বা শিরক করল।’ (তিরমিজি শরিফ, হাদিস : ১৫৩৫)

শপথ আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নামে করতে হয়। কিন্তু কোরআন স্পর্শ করে যদি কেউ শপথ করে, তাহলে সে শপথও রক্ষা করতে হবে। কেননা কোরআন আল্লাহর কালাম। এটি রাব্বুল আলামিনের কথা। তাই এটিও এক ধরনের কসম।

এই ধরনের কসম করলে অবশ্যই তা পূরণ করতে হবে। আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কালাম হওয়ার কারণে কোরআনের মর্যাদা কোনোভাবেই ক্ষুণ্ন করার সুযোগ নেই। আল্লাহর নামে কসম করলে যেমন তার মর্যাদা রক্ষা করা জরুরি, তেমনি কোরআন ছুঁয়ে শপথ করলে এর মর্যাদা কোনোভাবে ক্ষুণ্ন করা যাবে না।

কোনো ব্যক্তি আল্লাহর নামে করা শপথ ভঙ্গ করলে কাফফারাস্বরূপ তিনটি কাজের মধ্যে যেকোনো একটি কাজ করতে হবে।

এক. ১০ জন দরিদ্রকে মধ্যম শ্রেণির খাদ্য সকাল-বিকাল দুই বেলা খাওয়াতে হবে। এটি অর্থমূল্যে দিতে চাইলে প্রত্যেককে পৌনে দুই সের গম বা তার অর্থমূল্য দিতে হবে।

দুই. ১০ জন দরিদ্রকে ন্যূনতম ‘সতর ঢাকা’ পরিমাণ পোশাক-পরিচ্ছদ দান করতে হবে।

তিন. ক্রীতদাস থাকলে একজন ক্রীতদাস মুক্ত করে দিতে হবে। কেউ যদি এ আর্থিক কাফফারা দিতে সমর্থ্য না হয়, তার জন্য কাফফারা হলো তিনটি রোজা রাখা। হানাফি মাজহাব মতে, ওই রোজা উপর্যুপরি ও ধারাবাহিকভাবে রাখতে হবে।

কেউ যদি আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো নামে কসম করে, তাহলে তার কাফফারা হলো কালেমা ত্বাইয়েবা ‘লা ইলা-হা ইল্লাল্লাহ’ পাঠ করা। মহানবী (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি শপথ করতে গিয়ে লাত ও উজজার (আরবের মূর্তির) নামে শপথ করে বসে, সে যেন বলে, ‘লা ইলা-হা ইল্লাল্লাহ’। (বুখারি, মুসলিম, মিশকাত, হাদিস : ৩৪০৯)

স্মরণ রাখতে হবে, অহেতুক শপথ করা ইসলাম সমর্থন করে না। আবার শপথ ভঙ্গ করাও ইসলামে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.