সংবাদ শিরোনাম
সীমিত চলাচলের সময় বাড়ল  » «   দুদিন বয়সী সন্তানকে রেখে পরপারে ক্রিকেটার তিন্নি  » «   বাবা হারিয়ে বাবা পেলেন শিপলু  » «   নগরীর নিউ সুরমা হোটেলে রমরমা দেহ ব্যাবসা:আবারও আটক নারী-পুরুষ ৬  » «   ফেঞ্চুগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত  » «   ওসমানীনগরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত পরিবারের অলৌকিক বেচেঁ যাওয়া বড় ছেলে আজ মারা গেল:দিরাইয়ে শোকের ছায়া  » «   এবারো কোনো ব্যতিক্রম হলো না চামড়ার ব্যাবসায়ীদের গালে হাত আর হতাশ..  » «   উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ ওসমানীনগরে এক দিনে করোনা আক্রন্ত ৫  » «   স্বীকারোক্তি:টাকা ধার না দেওয়ায় খুন করে প্রবাসী রহিমার লাশ রেখে যায় বাথরুমে  » «   দোয়ারাবাজারে বিষপান করে বোনের আত্মহত্যা,ভাই আশংঙ্কাজনক  » «   নগরীতে চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে কোরবানীর বর্জ্য অপসারণে নেমেছে সিটি করপোরেশন  » «   সিলেটে করোনা ও বন্যা পরিস্থিতিকে সামনে নিয়ে এবার পবিত্র ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত  » «   ওসমানীনগরে নিজ বাসায় প্রবাসী মহিলা খুন,আটক-২  » «   দিরাই’য়ে মোবাইলে বিকাশ নম্বর হ্যাক করে শাহজাহানের ৮৬’৭০০ টাকা হাতিয়ে নিল প্রতারক চক্র  » «   সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত দিরাই’র ৫ জন,এলাকায় শোকের ছায়া  » «  

সাগরে ভাসমান মসজিদ, প্রতি ৩ মিনিট পর পর খুলে ছাদ

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::মহাসাগরে পানির ওপর ভাসমান একটি মসজিদ। অদ্ভুত সুন্দর এই মসজিদটি মরক্কোয় অবস্থিত। দৃষ্টিনন্দন এই মসজিদটির নাম গ্র্যান্ড মস্ক হাসান–২ বা দ্বিতীয় হাসান মসজিদ। বাদশাহ দ্বিতীয় হাসান কাসাব্লাঙ্কা শহরে এ মসজিদটি তৈরি করেছেন। মসজিদটিতে প্রায় এক লাখ মানুষ একসঙ্গে নামাজ পড়তে পারেন।

ভাসমান এই মসজিদটি দূরের কোনো জাহাজ থেকে দেখলে মনে হবে ঢেউয়ের বুকে যেন মসজিদটি দুলছে। আরো মনে হবে মুসল্লিরা নামাজ পড়ছেন পানির ওপর।
মসজিদটির নির্মাণ কাজ করেছেন ফরাসি কোম্পানি বয়গিসের প্রকৌশলীরা। এটির নকশা তৈরি করেছিলেন ফরাসি স্থপতি মিশেল পিনচিউ।

মসজিদটির মিনারের উচ্চতা ২০০ মিটার। আর মেঝে থেকে ছাদের উচ্চতা ৬৫ মিটার। মসজিদের ছাদটি প্রতি ৩ মিনিট পরপর যান্ত্রিকভাবে খুলে যায় বলে এর ভেতরে আলো-বাতাস প্রবেশ করতে পারে। তবে বৃষ্টির সময় ছাদটি খোলা হয় না।

২২.২৪ একর জায়গার ওপর অবস্থিত এ মসজিদের মূল ভবনের সঙ্গেই আছে লাইব্রেরি, কোরআন শিক্ষালয়, ওজুখানা এবং কনফারেন্স রুম।

২৫০০ পিলারের ওপর স্থাপিত এ মসজিদের ভেতরের পুরোটাই টাইলস বসানো। মসজিদ এলাকার আশপাশে সাজানো আছে ১২৪টি ঝরনা এবং ৫০টি ক্রিস্টালের ঝাড়বাতি।

১৯৮৭ সালের আগস্ট মাসে মসজিদটির নির্মাণকাজ শুরু হয়। প্রায় ২৫ হাজার শ্রমিক ও কারুশিল্পীর পরিশ্রমে এটি প্রায় সাত বছরে নির্মিত হয়। মসজিদটির নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৮০ কোটি ডলার।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.