সংবাদ শিরোনাম
রিফাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার সত্যতা পাওয়ায় মিন্নি গ্রেপ্তার  » «   ৯০ দিনের মধ্যে এরশাদের আসনে উপনির্বাচন  » «   ১৬ জুয়াড়িকে জেলহাজতে প্রেরণ  » «   শ্রীমঙ্গলে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘট স্থগিত  » «   দক্ষতা উন্নয়নে প্রতি উপজেলায় প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হবে  » «   রংপুরেই সমাহিত করা হলো এরশাদকে  » «   জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ লাইনে মিন্নি  » «   ভারতে মন্দিরের ভেতরে পুরোহিতসহ তিন জনের গলা কাটা দেহ, নরবলির আশঙ্কা  » «   নেপালে বন্যা ভূমিধসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৫  » «   ঘুষ লেনদেন প্রমাণিত  » «   নেতাকর্মীদের চাপের মুখে এরশাদের লাশ দাফনের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন  » «   আততায়ীর গুলিতে ফুটবলারের মৃত্যু  » «   এইচএসসির ফল প্রকাশ আগামীকাল  » «   উল্লাপাড়ায় বাড়ি ফেরার পথে ট্রেনের ধাক্কায় বর-কনেসহ মাইক্রোবাসের ৯ যাত্রী নিহত  » «   সিলেটের গোয়াইনঘাটে ডাকাত গ্রেপ্তার  » «  

গোলাপগঞ্জের আজিমকে ব্রাজিলে নির্যাতন!

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::বেকার যুবক আজিম। পড়াশুনা শেষ করে দেশে চাকরির জন্য ঘুরতে ঘুরতে কোনো চাকরি না পাওয়ায় সিদ্ধান্ত নেন প্রবাসে পারি জমানোর। কারণ প্রবাসে গিয়ে দেশের অনেক বেকার যুবক আজ প্রতিষ্ঠিত। যেই সিদ্ধান্ত সেই কাজ। ভাইসহ আত্মীয় স্বজনদের কাছ থেকে টাকা ঋণ নিয়ে শুরু করেন সিলেট নগরীর বিভিন্ন ট্রাভেলস এজেন্সির সাথে যোগাযোগ। কিন্তু কোনো পথ পাননি আজিম। পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আলাপ হয় তারই পরিচিত এক বাজিল প্রবাসী ফয়জুর রহসমানের সাথে। কথা বার্তা হয় ব্রাজিল যাওয়ার ব্যাপারে। ব্রাজিল যেতে ১২ লাখ টাকায় লাগবে, তবে এক্ষেত্রে শর্ত হয় ৭ লাখ টাকা এডভান্স তার এ্যাকাউন্টে পাঠাতে হবে, বাকি ৫ লাখ টাকা তৃতীয় পক্ষের কাছে আমানত হিসেবে দিতে হবে। আজিম ব্রাজিল পৌঁছার পর তৃতীয় পক্ষ সেই টাকা ফয়জুর রহমানকে পাঠাবে।

ব্রাজিল পৌঁছে আজিম। তবে ব্রাজিল গিয়ে কোনো কাজ করতে পারছেনা আজিম। সেখানে তার পাসর্পোট জব্দ করে তাকে বন্ধি করে নির্যাতন করা হচ্ছে দাবি তার পরিবারের। কথামতো ব্রাজিল যাবার পর আজিমের পরিবার তৃতীয় পক্ষকের কাছে টাকা আমানত রাখে। কিন্তু সেই তৃতীয় পক্ষই বাকি টাকা হজম করার জন্য  প্রবাসী ফয়জুর রহমান ছিনতাই হয়ে গেছে বলে জানায় আজিমের পরিবারকে। কিন্তু তৃতীয় পক্ষ এই ছিনতাইয়ের ঘটনায় থানায় কোনো সাধারণ ডায়েরিও করেননি! এনিয়ে আজিমের এলাকায় একাধিক বৈঠক করেন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা। প্রবাসে টাকা না পেয়ে আজ নির্যাতন চলছে আজিমের উপর। শেষমেষ ঘটনাটি থানা পর্যন্ত গড়ায়।

ঘটনাটি ঘটেছে গোলাপগঞ্জ উপজেলার আমকোনা এলাকার মৃত আকদ্দস আলীর ছেলে মো. আব্দুল আজিমের সাথে। এঘটনায় গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় ৩ জনের নামোলে­খ করে একটি অভিযোগ করেছেন আজিমের ছোট ভাই মো. আব্দুল আলীম।

অভিযোগ সূত্র জানা গেছে, মো. আজিমের সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আলাপ হয় তারই পরিচিত বাজিল প্রবাসী ফয়জুর রহসমানের সাথে। কথা বার্তা হয় ব্রাজিল যাবার ব্যাপারে। ফয়জুর রহমানের ব্যাপরে তৃতীয় পক্ষের মধ্যস্ততা করেন আজিমের চাচাতো বোন হাফছা বেগম ও হাফছা বেগমের স্বামী বিয়ানীবাজরের দেবরাইয়ের বুরহান উদ্দিনের ছেলে আতাউর রহমান আতিক। আতিক ব্রাজিল প্রবাসী ফয়জুর রহমানেরও বন্ধু। তিনি নাভানা ফার্মাসিস্টের মৌলভীবাজার ব্রাঞ্চের ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত।

ব্রাজিল যেতে হলে ১২ লাখ টাকায় লাগবে। শর্ত হয় ৭ লাখ টাকা এডভান্স ফয়জুর রহমানের এ্যাকাউন্টে দিতে।  ব্রাজিল পৌঁছার পর বাকি ৫ লাখ টাকা তৃতীয় পক্ষ হাফছা বেগম ও আতাউর রহমান আতিকের কাছে দিতে হবে। আতিক সেই টাকা ফয়জুর রহমানের কাছে পাঠাবে।

২৫ মে আজিম প্রবাসী ফয়জুর রহমানের একাউন্টে ৭ লাখ টাকা পরিশোধ করে। পরে সে ব্রাজিল পৌঁছে। কথামতো বাকি ৫ লাখ টাকা তৃতীয় পক্ষ হাফছা বেগম ও আতাউর রহমান আতিকের কাছে আমানত হিসেবে আজিমের পরিবার। এখন আতিক ও তার স্ত্রী হাফসা বেগম আমানতের ৫ লাখ টাকা ফয়জুর রহমানকে না দেয়ায় ব্রাজিলে আজিমের পাসপোর্ট জব্দ করে তাকে বন্দী করে নির্যাতন করছে। এ নিয়ে ৪ জুন গোলাপগঞ্জের আমকোনা এলাকার মুরুব্বীরা আজিমের চাচাতো বোন হাফছা বেগম ও তার বোন হাসনা বেগমের সাথে এক সালিশ বৈঠক করেন। সালিশ বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় ১৩ জুন আমকোনার সাবেক মেম্বার রেহান উদ্দিনের কাছে আমানতের টাকা এনে দিবেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তারা সেই টাকা এনে দেয়নি তারা।

আজিমের ছোট ভাই মো. আব্দুল আলীম বলেন, ব্রাজিল প্রবাসী ফয়জুর রহমানের কথামতো ৭ লাখ টাকা এডভান্স দেবার পর আমার ভাইকে তিনি ব্রাজিলে নিয়েছেন। বাকি ৫ লাখ টাকা তৃতীয় পক্ষের কাছে আমানত হিসেবে রাখা ছিলো, কিন্তু তারা সেই টাকাটি ফয়জুর রহমানকে দিচ্ছে না। আমার ভাই আমাকে জানায়, টাকা না দেয়ায় ভাইয়ের পাসর্পোট জব্দ করা হয়েছে। আজ আমার ভাইকে বন্দী করে নির্যাতন চলছে তার উপর। আমাদের এলাকার মুরুব্বীরা আমার চাচাতো বোন হাফছা বেগম ও তার বোন হাসনা বেগমের সাথে একাধিক সালিশ বৈঠক করেন। সালিশ বৈঠকে সিদ্দান্ত হয় ১৩ জুন আমকোনার সাবেক মেম্বার রেহান উদ্দিনের কাছেআমানতের টাকা এনে দিবেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তারা সেই টাকা এনে দেয়নি।

এ বিষয়ে বিয়ানীবাজরের দেবরাইয়ের বুরহান উদ্দিনের ছেলে নাভানা ফার্মাসিস্টের মৌলভীবাজার ব্রাঞ্চের ম্যানেজার আতাউর রহমান আতিক বলেন, আমি টাকা নিয়ে ব্যাংকে জমা দিতে যাচ্ছিলাম আমার মোটরসাইকেল দিয়ে। পথে শেরপুরের কামাননগর ব্রিজে দুইটি মোটরসাইকেলযোগে চারজন ছিনতাইকারী টাকা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। আমি এই ক’দিনের মধ্যে বাকি টাকাগুলো পরিশোধ করবো।

ছিনতাইয়ের ঘটনায় কোনো মামলা বা সাধারণ ডায়েরি করেছেন কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি এই বিষয়ে কোনো কিছুই করিনি। ফয়জুর রহমানের মাধ্যমে আমি আমার আরো অনেক আত্মীয় স্বজনকে বিদেশে পাঠিয়েছি।

অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান মিজান বলেন, একটি অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত চলছে।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.