সংবাদ শিরোনাম
উল্লাপাড়ায় বাড়ি ফেরার পথে ট্রেনের ধাক্কায় বর-কনেসহ মাইক্রোবাসের ৯ যাত্রী নিহত  » «   সিলেটের গোয়াইনঘাটে ডাকাত গ্রেপ্তার  » «   পুত্রবধূকে ধর্ষণ করলেন শ্বশুর!  » «   সোনারগাঁয়ে বিয়াইর ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা বেয়াইন  » «   ক্যাম্পাসে অনৈতিক কর্মকাণ্ড, ডাকা হয় কলগার্লদেরও  » «   দলিত নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে ৬ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করল পুলিশ  » «   সত্যিকার সমর্থ অনলাইন মিডিয়া নিবন্ধন পাবে : তথ্যমন্ত্রী  » «   পটুয়াখালী মায়ের পরকিয়ার জেরে সন্তান খুন, ছয় মাস পরে ইউপি সদস্য গ্রেফতার  » «   এরশাদের দাফন সংক্রান্ত প্রস্তাবে প্রস্তাবে সায় নেই সরকারের  » «   শ্রীমঙ্গলে ৪৩৪ টন ধান কিনবে সরকার  » «   সারা দেশে নারী ও শিশু ধর্ষণের বিরুদ্ধে শাবি শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ  » «   নবীগঞ্জে পানিবন্দি অর্ধশতাধিক গ্রাম হুমকির মুখে বিবিয়ানা  » «   মৌলভীবাজারে ইভটিজিং আতঙ্ক, দেশব্যাপী ধর্ষণ ও প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন  » «   ভিডিও বানাতে সুরমায় ঝাঁপ: ৩ দিন পর মিলল লাশ  » «   মালয়েশিয়ায় ৩০০ বাংলাদেশি আটক  » «  

স্বামীর কাছে ৩০ রুপি চেয়ে পেলেন তিন তালাক

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::স্বামী সাবিরের কাছে তার স্ত্রী জয়নব (৩০) চেয়েছিলেন ৩০ রুপি। বিনিময়ে তিনি পেলেন তিন তালাক। সঙ্গে প্রহারও। জয়নবকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ অভিযোগে দাদ্রি’তে পুলিশ স্টেশনে একটি মামলা করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের নয়ডায়। এ খবর দিয়েছে অনলাইন টাইমস অব ইন্ডিয়া।

জয়নবের অপরাধ শনিবার তিনি স্বামী সাবিরে কাছে সবজি কেনার জন্য ৩০ রুপি চেয়েছিলেন। তা নিয়ে তাদের কথা কাটাকাটি হয়।

তিনি আরো জানান, সাবির বিভিন্ন মিলে তেলের কন্টেইনার বিক্রি করতো। তার সঙ্গে জয়নবের বিয়ে হয় ৯ বছর। তাদের দাম্পত্য সম্পর্ক খুব একটা ভাল ছিল না। তাদের রয়েছে চারটি সন্তান। দুই বছর আগে একটি লাঠি দিয়ে জয়নবের মাথায় আঘাত করেছিল সাবির। তা ছাড়া তার শ্বশুর-শাশুড়ি তার সঙ্গে খারাপ আচরণ করতেন। কয়েকদিন আগে জয়নব অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাই তিনি তাকে নিজের বাড়ি নিয়ে যান। মুরসালিম বলেন, জয়নব আমাদের সঙ্গে ৫ দিন ছিল। শুক্রবার সে দাদ্রি এলাকায় তার শ্বশুরবাড়ি ফিরে যায়। এ সময় সাবির বলে, সে তাকে তালাক দিতে চায়।
এ সব নিয়ে সাবির, নাজ্জো, সাবিরের বোন শামার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। সাবিরকে আদালতে তোলার পর সে সেখান থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছে। মুরসালিম বলেন, তাকে সুরাজপুর কোর্টে চালান দেযা উচিত ছিল। এ মামলায় অভিযুক্ত অন্য দুজনকে এখনও ধরতে পারে নি পুলিশ। পুলিশ বলেছে, তারা এ বিষয়টি পারিবারিক আদালতে পাঠাবে। কারণ, এখন তিন তালাক ইস্যুতে গেজেট নোটিফিকেশন দেয়ার মতো কোনো কর্মকর্তা নেই। তবে পুলিশ তিন তালাকের অভিযোগ তদন্ত করছে। উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের আগস্টে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট তিন তালাকের বিরুদ্ধে রায় দেন। এমন তালাককে তারা বাতিল, অবৈধ ও অসাংবিধানিক বলে রায়ে বলেন।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.