সংবাদ শিরোনাম
জগন্নাথপুরের পাটলী সাতহাল গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিনের ইন্তেকাল  » «   বিয়ানীবাজারের জিরো পয়েন্টের চরিয়ার রাস্তায় গাছ ফেলে দুধর্ষ ডাকাতি  » «   চীনে দাড়ি, বোরকা জন্য মুসলিমদের বন্দি  » «   আয়রন ম্যানের মতো আকাশে উড়ে গেলেন ভিন্স রেফেট  » «   উনিশের যুবারাই রাঙালো প্রস্তুতি ম্যাচ  » «   জগন্নাথপুরে টমটমের চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে এক বৃদ্ধা মহিলার মৃত্যু  » «   তাপস পালের মৃত্যুতে শোকস্তদ্ধ টলিউড  » «   অভিনেতা তাপস পাল মারা গেছেন  » «   করোনায় আক্রান্ত চিকিৎসাকর্মীদের সংখ্যা নিয়েও মিথ্যা বলছে চীন?  » «   চীনে পানি সমস্যায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা!  » «   পাকিস্তানে বিষাক্ত গ্যাস লিক, নিহত ৮  » «   প্রধান শিক্ষক ছাড়াই চলছে ৭ হাজার ১৮ প্রাথমিক বিদ্যালয়  » «   বিএনপি-জামায়াতের ঘাড়ে সওয়ার ড. কামালরা জনবিচ্ছিন্ন  » «   ‘গরু কচুরিপানা খেতে পারলে আমরা কেন পারবো না’  » «   কুলাউড়ায় ঘুষ ও গ্রেপ্তার বাণিজ্য’র অভিযোগে এসআই দিদার উল্ল্যাহ প্রত্যাহার  » «  

পেঁয়াজের বাজার মনিটরিং করার সিদ্ধান্ত

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::কৃত্রিম সঙ্কট সৃষ্টি করে পেঁয়াজের দাম বাড়ানো হচ্ছে কি না তা যাচাইয়ে বাজার মনিটরিং করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। কোরবানি সামনে রেখে এক সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম দ্বিগুন হয়ে ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অথচ পেঁয়াজের প্রধান উৎস ভারতে দাম বাড়ার তেমন কোন খবর নেই। এছাড়া দেশেও এ বছর পেঁয়াজের বাম্পার ফলন হয়েছে। এ কারণে অভ্যন্তরীর বাজারে পেঁয়াজের সঙ্কট হওয়ার কোন কারণ নেই।

বৃহস্পতিবার নিত্যপণ্যের বাজার পরিস্থিতি বিশেষ করে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় জরুরী বৈঠক করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। বাণিজ্য সচিবের নেতৃত্বে ওই বৈঠকে মন্ত্রণালয়ের উর্ধতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে পেঁয়াজ, আদা ও রসুনের ব্যবসায়ীরা অংশ গ্রহণ করেন।

এ প্রসঙ্গে বাণিজ্য সচিব মো. মফিজুল ইসলাম জনকণ্ঠকে বলেন, নিত্যপণ্য বিশেষ করে পেঁয়াজ, আদা ও রসুনের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করা হয়েছে। পেঁয়াজের দাম বাড়ার বিষয়টি ব্যবসায়ীদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে। এছাড়া কেন পেঁয়াজের দাম বাড়ছে সে বিষয়টি যাচাইয়ে বাজার মনিটরিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। তিনি বলেন, পেঁয়াজ আমদানি হয় ভারত থেকে। সেখানে কেজিতে ১-২ টাকা দাম বেড়েছে। ওই হিসেবে দেশেও এক থেকে দুই টাকা দাম বাড়ার কথা। কিন্তু ২৫ টাকার পেঁয়াজ ৫০ টাকা হয় কিভাবে? বাণিজ্য সচিব বলেন, কারসাজি করে দাম বাড়ানোর কোন সুযোগ নেই। ভোক্তা স্বার্থে দেশে আইন-কানুন ও বিধিবিধান রয়েছে। উদ্দেশ্যমূলকভাবে কৃত্রিম সঙ্কট সৃষ্টির প্রমাণ পাওয়া গেলে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নেবে সরকার।

এদিকে, সরকারী বাজার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্যমতে, প্রতিকেজি দেশী পেঁয়াজ ৪৫-৫০, আমদানিকৃত ভারতীয়টি ৪০-৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে। অথচ সপ্তাহখানেক আগেও এই পেঁয়াজ ২৫-৩৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। রাজধানীর কাপ্তান বাজার, কাওরান বাজার ও ফকিরাপুল বাজার ঘুরে দেখা যায় বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, পাইকারি বাজারে দাম বাড়ার কারণে খুচরায় দাম বেড়েছে। তবে বাজারে পর্যাপ্ত পেঁয়াজের সরবরাহ রয়েছে।

ক্রেতাদের অভিযোগ, কোরবানির ঈদ সামনে রেখে কারসাজি করে পেঁয়াজের দাম বাড়ানো হচ্ছে। প্রতিবছর কোরবানির সময় কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি করে দাম বাড়ানো হয়ে থাকে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, দেশে বছরে ২৪ লাখ টন পেঁয়াজের চাহিদা রয়েছে। কোরবানির ঈদে বাড়তি আরও প্রায় দুই লাখ টনের চাহিদা তৈরি হয়। মোট চাহিদার প্রায় ১৭ লাখ টন দেশে উৎপাদিত হয়। বাকি সাত লাখ টন ভারতসহ অন্যান্য উৎস আমদানি করে থাকে ব্যবসায়ীরা।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.