সংবাদ শিরোনাম
৭৫ বছর বয়সে কন্যা সন্তানের মা হলেন ভারতীয় নারী  » «   দিরাইয়ে তুহিন হত্যাকাণ্ড: ১০ জনকে আসামি করে মামলা  » «   শায়েস্তাগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত নিহত  » «   রোনালদোর ইতিহাসগড়া ম্যাচে পর্তুগালের হার  » «   সুন্দরবনে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৪ বনদস্যু নিহত  » «   মেক্সিকোতে অস্ত্রধারীদের গুলিতে নিহত ১৩ পুলিশ  » «   ধামরাইয়ে চার শিশুকে হাত-পা বেঁধে ধর্ষণ  » «   টাঙ্গাইলে মা ও মেয়েকে গলাকেটে হত্যা, প্রধান আসামি গ্রেপ্তার  » «   নবীগঞ্জে কর্মরত সাংবাদিকদের মতবিনিময়  » «   ফেঞ্চুগঞ্জে শাহজালাল সার কারখানায় চুরির অভিযোগে গ্রেফতার ২ কর্মকর্তা  » «   জকিগঞ্জে নবম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে টমটম থেকে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষন  » «   নগরীর শামীমাবাদ থেকে কুখ্যাত ‘ডাকাত’ জয়নাল গ্রেপ্তার  » «   মাধবপুর নয়াপাড়া ইউনিয়ন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাবেদ বিজয়ী  » «   নবীগঞ্জের দেবপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে নৌকা প্রতীক বিজয়ী  » «   হবিগঞ্জে দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে নিহত ১  » «  

বানিয়াচঙ্গে ২৮ মাস বেতন পান না প্রধান শিক্ষক

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::বানিয়াচঙ্গে ২৮ মাস বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন এক প্রধান শিক্ষক। বেতন-ভাতা প্রদানের জন্য সিলেট শিক্ষা বোর্ড লিখিত নির্দেশ দেয়ার পরও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। এদিকে সিলেট শিক্ষা বোর্ড বৈধ হিসেবে স্বীকৃতি দিলেও বানিয়াচং মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বলছেন নিয়োগ বৈধ নয়। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড এর সচিব মোস্তফা কামাল আহমদ স্বাক্ষরিত পত্রের মাধ্যমে মুরাদপুর এস ই এস ডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় এর পরিচালনা কমিটির সভাপতিসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে অবহিত করা হলেও অদ্যাবধি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন (মহসিন) কে বেতন-ভাতা প্রদান করা হয়নি। উল্টো এখতিয়ার বহির্ভূতভাবে প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনকে দায়িত্ব বুঝে দেয়ার ব্যাপারে ভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে দায়িত্ব পালনে সহযোগিতা করছেন না বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি তৈয়বুর রহমান চৌধুরী। স্কুলটির প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন জানান, বিগত ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে আমাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেন। পরবর্তীতে আমার বিরুদ্ধে সিলেট শিক্ষা বোর্ডে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ এনে চূড়ান্ত বরখাস্তের জন্য আবেদন করেন। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড সিলেট এর আপিল এন্ড আর্বিট্রেশন কমিটি আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ তদন্তের জন্য একটি কমিটি করে দেয়।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির দেয়া প্রতিটি অভিযোগ ওই কমিটি খতিয়ে দেখে সিলেট শিক্ষা বোর্ড-এর কাছে তাদের তদন্তের রিপোর্ট পেশ করে। তদন্তে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি অভিযোগের কোন সত্যতা পায়নি। এরই প্রেক্ষিতে গত ৬ই মে সিলেট বোর্ডের চেয়ারম্যান এর আদেশক্রমে সচিব মো. মোস্তফা কামাল আহমদ এর স্বাক্ষরিত পত্রে আমাকে স্বপদে পুনর্বহালসহ বিধি মোতাবেক বেতন ভাতা প্রদানের জন্য বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতিসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে অবহিত করা হয়। ঘটনার বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) কাওছার শোকরানা বলেন, এটা স্কুল পরিচালনা কমিটির বিষয়, এ বিষয়ে আমার কোনো করণীয় নেই।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.