সংবাদ শিরোনাম
আজ হেমন্ত: খুব নীরবে শুরু হলো ফসলের ঋতু  » «   বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা: মাঠ পর্যায়ের আন্দোলনের ইতি  » «   হাগিবিসে বিধ্বস্ত জাপান, নিহত বেড়ে ৭৪  » «   পাবিপ্রবি’তে বিক্ষোভ, ডীনসহ ৩ শিক্ষক অবরুদ্ধ  » «   নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশী ২ বিধবার মানবিক আবেদন  » «   কূটনীতিকরা শিষ্টাচার লঙ্ঘন করেছেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   সোনাগাজীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৩৭ মামলার আসামি নিহত  » «   মেক্সিকোতে অস্ত্রধারীদের গুলিতে নিহত ১৩ পুলিশ  » «   অস্ট্রেলিয়ায় প্রতিবাদের নামে নগ্নতা  » «   সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের স্থলে এখন রাশিয়া!  » «   হবিগঞ্জে ইয়াবাসহ স্বামী-স্ত্রী আটক  » «   রবিবারে জেলার শ্রেষ্ঠ ওসির সম্মাননা আর সোমবারে ৪৫০ কোটি টাকার অভিযোগে মামলা  » «   তুহিনের হত্যাকারী তার বাবা, চাচা এবং চাচাতো ভাই আরও একটি হত্যাসহ দুটি মামলার আসামি  » «   পাষন্ড বাবা কোলে করে নিয়ে যান’ চাচা ও চাচাতো ভাই’ তুহিনকে খুন করে  » «   তুহিনের খুনিদের পক্ষে আদালতে দাড়াবেননা কোন আইনজীবি  » «  

এবার ভাঙন পশ্চিমবঙ্গে?

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::ভারতের সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে কাশ্মীরিদের বিশেষ মর্যাদা ও সুবিধা বাতিল করার পর অনুরুপ সুবিধা পাওয়া অন্যান্য রাজ্যেও ভাঙন আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।
ভারতের সংবিধানে মোট ৯টি রাজ্যকে বিশেষ সুবিধা দেয়া রয়েছে। সেগুলো হচ্ছে; কাশ্মীর, মহারাষ্ট্র, গুজরাট, আসাম, মিজোরাম, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, অরুণাচল ও অন্ধ্রপ্রদেশ।
সোমবার (৫ আগস্ট) কাশ্মীরসংক্রান্ত ধারা বাতিলের পর বিষয়টি দার্জিলিংয়েও পৃথক রাজ্যের দাবিকে উসকে দিয়েছে। গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার নেতা বিমল গুরুং আত্মগোপনে রয়েছেন। সেখান থেকেই এক বার্তায় দার্জিলিংয়েও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা করার দাবি জানিয়েছেন।
বিমল গুরুংয় পালিয়ে থেকে গোপন আস্তানা থেকে মোদিকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ। আশা করি, দার্জিলিংয়েও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা করলে তা অত্যন্ত সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত হবে।’
বিমল গুরুং বলেন, ‘আমরা অনেক দিন ধরে পৃথক গোর্খাল্যান্ড রাজ্যের দাবি নিয়ে আন্দোলনে আছি। এই দাবি আদায়ে আমরা আন্দোলনে থাকব।’
বিমল গুরুং-এর সঙ্গে দাবির সঙ্গে সুর মিলিয়েছেন পাহাড়ের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। বিমল গুরুংয়ের বিরোধী পক্ষ বিনয় তামাংও কেন্দ্রশাসিত গোর্খাল্যান্ডের দাবির একাত্বতা প্রকাশ করেছেন।
ফলে মমতার রাজ্যে এখন চাইলেই মোদি সরকার হস্তক্ষেপ করতে পারে তা পরিস্কার হয়ে উঠেছে। পশ্চিমবঙ্গকে ভেঙে সরাসরি কেন্দ্রের অধীনে নেয়া হবে কিনা সেটিই এখন দেখার বিষয়।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.