সংবাদ শিরোনাম
“মুজিব বর্ষ” উদযাপন উপলক্ষে বিয়ানীবাজার কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের গাছের চারা রোপন  » «   প্রকৌশলীর উপর হামলাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবীতে মিছিল সমাবেশ  » «   জেলা পরিষদের অর্থায়নে গোয়াইনঘাটে রাস্তা নির্মাণের উদ্বোধন   » «   মুজিব বর্ষ উপলক্ষে গোয়াইনঘাটে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন  » «   দিরাইয়ে বণ্যায় ক্ষতিগ্রস্ত শতাধিক পরিবারের মাঝে মানবিক সহায়তা চাল ও ডাল বিতরণ   » «   সিসিক মেয়রের সাথে মহানগর ব্যবসায়ী ঐক্য কল্যাণ পরিষদের মতবিনিময়  » «   জাপানে নদীতে পরিণত হয়েছে রাস্তা, নিহত বেড়ে ৪৪  » «   কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোর আর নেই  » «   জগন্নাথপুরে আরো ১জন স্বাস্থ্যকর্মী সহ ২জন করোনায় আক্রান্ত, মোট আক্রান্ত ৯৫: সুস্থ ৬৮  » «   পিয়নের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৩০ কোটি টাকা  » «   জাফলংয়ে টাস্কফোর্সের অভিযানে ১লক্ষ ৯০হাজার টাকা জরিমানা   » «   দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরো ৪৪ জনের মৃত্যু:নতুন সনাক্ত ৩২০১  » «   প্রবাসীদের জন্য ফি ছারা ইকামা ও ভিসার মেয়াদ বাড়িয়েছে সৌদি সরকার  » «   সিলেটে করোনাভাইরাসে কেড়ে নিল এক নার্সের প্রাণ  » «   তাহিরপুরের চাদাঁবাজ কাশেম ও ফয়সল গংদের গ্রেফতারের দাবীতে শ্রমিকদের মানববন্ধন   » «  

এবার ভাঙন পশ্চিমবঙ্গে?

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::ভারতের সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে কাশ্মীরিদের বিশেষ মর্যাদা ও সুবিধা বাতিল করার পর অনুরুপ সুবিধা পাওয়া অন্যান্য রাজ্যেও ভাঙন আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।
ভারতের সংবিধানে মোট ৯টি রাজ্যকে বিশেষ সুবিধা দেয়া রয়েছে। সেগুলো হচ্ছে; কাশ্মীর, মহারাষ্ট্র, গুজরাট, আসাম, মিজোরাম, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, অরুণাচল ও অন্ধ্রপ্রদেশ।
সোমবার (৫ আগস্ট) কাশ্মীরসংক্রান্ত ধারা বাতিলের পর বিষয়টি দার্জিলিংয়েও পৃথক রাজ্যের দাবিকে উসকে দিয়েছে। গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার নেতা বিমল গুরুং আত্মগোপনে রয়েছেন। সেখান থেকেই এক বার্তায় দার্জিলিংয়েও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা করার দাবি জানিয়েছেন।
বিমল গুরুংয় পালিয়ে থেকে গোপন আস্তানা থেকে মোদিকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ। আশা করি, দার্জিলিংয়েও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা করলে তা অত্যন্ত সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত হবে।’
বিমল গুরুং বলেন, ‘আমরা অনেক দিন ধরে পৃথক গোর্খাল্যান্ড রাজ্যের দাবি নিয়ে আন্দোলনে আছি। এই দাবি আদায়ে আমরা আন্দোলনে থাকব।’
বিমল গুরুং-এর সঙ্গে দাবির সঙ্গে সুর মিলিয়েছেন পাহাড়ের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। বিমল গুরুংয়ের বিরোধী পক্ষ বিনয় তামাংও কেন্দ্রশাসিত গোর্খাল্যান্ডের দাবির একাত্বতা প্রকাশ করেছেন।
ফলে মমতার রাজ্যে এখন চাইলেই মোদি সরকার হস্তক্ষেপ করতে পারে তা পরিস্কার হয়ে উঠেছে। পশ্চিমবঙ্গকে ভেঙে সরাসরি কেন্দ্রের অধীনে নেয়া হবে কিনা সেটিই এখন দেখার বিষয়।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.