সংবাদ শিরোনাম
টাকার অভাবে মেডিকেলে ভর্তি অনিশ্চিত রিকশাচালকের মেয়ে পান্নার  » «   বাবরি মসজিদের উপর রাম মন্দির নির্মাণের ঘোষণা!  » «   কবর থেকে বেরিয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে কন্যাশিশু!  » «   মদিনাতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৫  » «   প্রধানমন্ত্রী যুবলীগের বিষয়ে নির্দেশনা দিবেন রবিবার  » «   কুবির বঙ্গবন্ধু হল থেকে গাঁজা সেবনকালে ছাত্রলীগের ২ নেতাসহ আটক ৩  » «   বিশ্ব এ্যানেসথেশিয়া ও মেরুদণ্ড দিবস পালন  » «   রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   আওয়ামীলীগ মাঠ থেকে পালিয়ে যাবার দল নয় : মোহাম্মদ নাসিম  » «   নগরীর সোবহানীঘাট এলাকা থেকে গাড়ী ভর্তি ভারতীয় সুপারীসহ আটক ১  » «   লন্ডনে সাংবাদিক শফিকুলকে ফার্মল্যান্ড ফুড এন্ড এগ্রো ইন্ড্রাস্ট্রিজ লিমিটেডের সংবর্ধনা  » «   দক্ষিণ সুরমা থেকে ইয়াবাসহ ব্যবসায়ী আটক  » «   নগরীর ঘাসিটুলা সবুজ সেনা থেকে ৪ জুয়াড়ি গ্রেফতার  » «   মোগলাবাজারে বৈদ্যুতিক পোল চুরিকালে সাত জন আটক  » «   পপি আত্মহত্যা: প্ররোচরনা আইনে মামলায় দুলাভাই গ্রেপ্তার  » «  

জাবি’র ভর্তি পরীক্ষা শুরু, ২০ কোটি টাকার ফরম বিক্রি

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::আজ থেকে শুরু হচ্ছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের (স্নাতক) ভর্তি পরীক্ষা। বিতর্কিত শিফট পদ্ধতি, ভর্তি ফরমের মূল্যবৃদ্ধি ও অনুষদভিত্তিক না হয়ে বিভাগভিত্তিক আলাদা ভর্তি পরীক্ষার ফি আদায়সহ নানা বিতর্ক তৈরী হয়েছে এই পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে।

২০১৮-১৯ সেশনে ১৮৮৯ জন আসনের বিপরীতে ভর্তিচ্ছু ছিল ৩ লাখ ৬ হাজার ২৭৪ জন। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টস সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ সেশনে ভর্তির ফরম বিক্রি বাবদ বিশ্ববিদ্যালয় আয় করে ১৫ কোটি ২৯ লাখ টাকা। ভর্তির যাবতীয় খরচ বাদ দিয়েও এ খাতে অবশিষ্ট ছিল ৯ কোটি টাকা। অবশিষ্ট টাকা ভর্তি পরিচালনা কমিটি ও শিক্ষকদের পারিশ্রমিক বা সম্মানি হিসেবে প্রদান করা হয়েছে।

কিন্তু, ২০১৯-২০২০ সেশনে একই আসনের জন্য লড়াই করবে ৩ লাখ ৫৯ হাজার ৯৬২ জন। জানা যায়, ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে ফরম বিক্রি বাবদ ‘এ’ ইউনিটে আবেদনকারী ৬৮ হাজার ৮৯৫ জন শিক্ষার্থী থেকে ৪ কোটি ৩৩ লাখ ৩৭ হাজার, ‘বি’ ইউনিটের ৪৯ হাজার ৮৩৩ জন শিক্ষার্থী থেকে প্রায় ২ কোটি ৯০ লাখ, ‘সি’ ইউনিটের ৬০ হাজার ৬১৫ জন ভর্তিচ্ছু থেকে প্রায় ৩ কোটি ৬৪ লাখ, ‘সি’ ১ ইউনিট ৯ হাজার ২৬৮ জন ভর্তিচ্ছু থেকে আয় হয়েছে ৩৭ লাখ টাকা।

অন্যদিকে ‘ডি’ ইউনিটের ৭৬ হাজার ৫৪০ জন থেকে ৪ কোটি ৬০ লাখ টাকা, ‘ই’ ইউনিটের ২০ হাজার ৮৫৬ জন থেকে ১ কোটি ২৫ লাখ টাকা, ‘এফ’ ইউনিট  থেকে ১ কোটি ৪০ লাখ টাকা, ‘জি’ ইউনিট থেকে ৩৬ লাখ টাকা, ‘এইচ’ ইউনিট থেকে ৭৯ লাখ টাকা এবং ‘আই’ ইউনিট থেকে  আয় হয়েছে ৩৮ লাখ টাকা। ফলে এবার ফরম বাবদ আয় হচ্ছে ১৯ কোটি ৯১ লাখ ৩২ হাজার টাকা।

একাউন্টস সূত্র বলছে, ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত খরচ বাদ দিয়ে এবার ১২ কোটি টাকা অবশিষ্ট থাকতে পারে।

ভর্তিচ্ছুর সংখ্যা বৃদ্ধি ও ফরমের মূল্য বৃদ্ধির কারণে এবারের বিপুল পরিমাণ এই টাকা জমা হতে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় একাউন্টসে। অন্যদিকে মাত্র ১০ দিনের জন্য একটা সম্মানি নেয়া নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.