সংবাদ শিরোনাম
জগন্নাথপুরে হাওর থেকে এক অঞ্জাতনামা ব্যক্তির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার  » «   জগন্নাথপুরে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত ১ ব্যক্তি: মোট ১০, সুস্থ ৬, আইসোলেশনে ৪  » «   দোয়ারাবাজারে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ১০  » «   সিলেটে দক্ষিণ সুরমায় দু’দল বাস শ্রমিকের মধ্যে দেড় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ  » «   করোন:এক দিনে ৯৩ জন আক্রান্ত সিলেট বিভাগে:মোট ১০৪০ জন  » «   ভূমধ্যসাগরে ট্রলার ডুবিতে নিহত ৩৬: এ মামলার প্রধান আসামি রফিকুল গ্রেফতার  » «   সিলেট থেকে বাস চলাচল শুরু  » «   ছাতকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক ঔষধ ব্যবসায়ীর মৃত্যু  » «   সুনামগঞ্জে চেয়ারম্যানের অপসারনের দাবীতে অভিযোগ দায়ের  » «   সুনামগঞ্জে র‍্যাব ক্যাম্পের ১৬ জন সদস্যসহ মোট ২১ জন করোনায় আক্রান্ত  » «   জগন্নাথপুরে মানসিক রোগী দীর্ঘ এক বছর পর থানা পুলিশের সহযোগিতায় ফিরে পেল পরিবার  » «   রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের ১৯-২০ বছরের উন্মুক্ত বাজেট পেশ  » «   জগন্নাথপুরে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে আরেক জন  » «   জগন্নাথপুরে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা জরিমানা আদায়  » «   গোয়াইনঘাটে এসএসসিতে পাশের হার ৭৯.২৭ জিপিএ ৪৫ জন  » «  

সাতক্ষীরার মাদ্রাসা শিক্ষকের কাণ্ড

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::সাতক্ষীরার আশাশুনিতে অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ ওঠেছে মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে ও মেয়েটির পরিবার সূত্রে জানা গেছে, অষ্টম শ্রেণির ওই ছাত্রী বড়দল দারুসসুন্নাহ আলিম মাদ্রাসার শিক্ষক আনারুল ইসলামের কাছে প্রাইভেট পড়তো। প্রতিদিন রাত ৯ টার সময় পড়া শেষ হলে ছাত্রীর মা তাকে বাড়িতে নিয়ে যেতো।

কিন্তু গত রোববার রাত ৮টার দিকে পড়ানো শেষ করে দেন প্রাইভেট শিক্ষক। পরে মেয়েটিকে বাড়িতে পৌঁছে দেয়ার কথা বলে সঙ্গে করে ছাত্রীর বাড়ির দিকে রওয়ানা দেন। পথিমধ্যে কিছুদূর যেতে না যেতেই শিক্ষক তাকে জাপটে ধরে। তার ‘স্পর্শকাতর’ স্থানগুলোতে স্পর্শ করে।

এলোপাতাড়ি চুমু দিতে দিতে সেলোয়ার খুলে ফেলার একপর্যায়ে মেয়েটি ডাক চিৎকার দিতে দিতে অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

এদিকে ডাক-চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে। পরে জ্ঞান ফিরলে মেয়েটি কাঁদতে কাঁদতে শিক্ষকের জঘন্য কর্মকাণ্ডের কথা বিস্তারিত জানায়।

একাধিক প্রতিবেশী মাদ্রসা শিক্ষক আনারুল ইসলাম সম্পর্কে জানান, পূর্বে একাধিক ছাত্রীকে যৌন হয়রানি বা ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত শিক্ষক আনারুল ইসলামের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দিলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়।

পরবর্তীতে দারুসসুন্নাহ আলিম মাদ্রাসায়  খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে তিনি ছুটিতে আছেন। এ ব্যাপরে আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবদুস সালাম জানান, ওই ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের ভিত্তিতে এসআই হাসানুজ্জামানকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.