সংবাদ শিরোনাম
দুই ছাত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির টাকা দিলেন হবিগঞ্জের এসপি  » «   মহানগর মৎস্যজীবী দলের আহবায়ক কমিটির অনুমোদন  » «   সিলেটের ৭ উপজেলা আ.লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন  » «   জৈন্তাপুরের লালাখাল তুমইর এলাকা থেকে ১৬টি মহিষ আটক  » «   জৈন্তাপুরে ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেফতার  » «   কানাইঘাটে ২ লক্ষ ভারতীয় রুপিসহ এক চোরাকারবারী আটক  » «   ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নিপু এখন র‌্যাবের খাঁচায় বন্দি  » «   ভারতকে হারিয়ে সেমিফাইনালে পাকিস্তান  » «   সিলেটে ২৭৯টি মোবাইল ফোনসহ ৪ চোরাকারবারি আটক  » «   পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে সরকার ব্যর্থ-জিএম কাদের  » «   চোখের পলকে এটিএম বুথ থেকে ১০ লাখ টাকা গায়েব  » «   চাল ও লবণ নিয়ে পরিকল্পিতভাবে গুজব ছড়ানো হচ্ছে: কাদের  » «   ‘সরকার দেশ চালাতে ব্যর্থ’  » «   সিলেটে ১৯ প্রতিষ্ঠানকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা  » «   সিলেটে ৬ দিনে কর আদায় সাড়ে ৩১ কোটি টাকা  » «  

কবর থেকে বেরিয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে কন্যাশিশু!

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::ভারতের উত্তর প্রদেশের বরেলি জেলায় কবর থেকে জীবিত উদ্ধার হয়েছে একটি কন্যাশিশু। এখনও সে বেঁচে আছে। তবে শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসারত​ ডাক্তার।

শিশু বিশেষজ্ঞ রবি খান্না জানিয়েছেন, শিশুটিকে নিবির পরিচর্যা কেন্দ্রে রাখা হয়েছে। সে সেপটিসেমিয়া রোগে আক্রান্ত। তাছাড়া রক্তে প্ল্যাটলেটের সংখ্যা ১০ হাজারের নিচে নেমে গেছে যেখানে এর স্বাভবিক সংখ্যা দেড় লাখ থেকে সাড়ে চার লাখ। তার বাঁচার সম্ভাবনা আছে, তবে আরও পাঁচ থেকে সাত দিন নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখার পর এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

এভাবে কবর দেওয়ার কারণ সম্পর্কে পুলিশ এখনও নিশ্চিত নয়। তবে বরেলি জেলা পুলিশ কর্মকর্তা অভিনন্দন সিং বিবিসিকে বলেন, কবর দেওয়ার পেছনে নবজাতকটির বাবা-মা জড়িত থাকতে পারে। কারণ ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর এখন পর্যন্ত কেউ শিশুটির পিতৃত্ব দাবি করে নি। পুলিশ এ ঘটনায় অজ্ঞাত কয়েকজন ব্যাক্তিকে আসামী করে মামলা করেছে এবং শিশুর বাবা-মাকে খুঁজছে বলেও জানান তিনি।

গত বৃহস্পতিবার হিতেশ কুমার শিহারী নামের ব্যক্তি নিজের সদ্যোজ্যাত মৃত কন্যার কবর খুঁড়তে গিয়ে মাটির নিচ থেকে মেয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান। ঘটনাটি ইতিমধ্যে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে তোলপাড় সৃষ্টি করেছে।

উল্লেখ্য, ভারতে এখনও অনেক এলাকায় লিঙ্গ বৈষম্য বিদ্যমান। দরিদ্রতার কারণে এখনও অনেক পরিবার কন্যা সন্তানকে পরিবারের বোঝা মনে করে। ফলে ভ্রুণ হত্যা, জন্মের পর হত্যা কিংবা মাটিতে পুঁতে ফেলার মত ঘটনা এখনও দেখা যায়।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.