সংবাদ শিরোনাম
সিলেটে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে ধাক্কাধা‌ক্কি:পু‌লিশের মিস ফায়ারে গুলিবিদ্ধ ১  » «   বাহুবলে ৩০০ বস্তা সরকারি চাল জব্দ-আটক ১  » «   মা ও নিজের নিরাপত্তা চেয়ে এরিক এরশাদের জিডি  » «   লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলিতে বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে বিমান হামলা, ৫ বাংলাদেশি নিহত  » «   চীনের উইঘুর মুসলিম নির্যাতনের তথ্য ফাঁস  » «   এবার সিলেটে পেঁয়াজ,চালের পর বাজারে ঝড় উঠেছে লবনের দাম  » «   দেশে মেগা প্রজেক্টের নামে মেগা দুর্নীতি চলছে: ফখরুল  » «   ওসমানীনগরে সড়ক পারাপারের সময় গাড়ির চাপায় এক শিশু নিহত  » «   পপুলার ইনস্যুরেন্সের এক বিমা কর্মীকে পালাক্রমে ধর্ষণ-থানায় মামলা  » «   সিলেট নগরীর তিনটি স্থানে ৪৫ টাকায় পেঁয়াজ বিক্রি শুরু  » «   ফেসবুকে স্ট্যাটাসে জ্বলে পুড়ে ছাই আন্তর্জাতিক মানব পাচারকারী উজ্জল  » «   ওসমানীনগরে পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে শিক্ষার্থীদের সামনে প্রকাশ্যে ধূমপান  » «   প্রধানমন্ত্রীকে মির্জা ফখরুলের চিঠি  » «   স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল, সাধারণ সম্পাদক বাবু  » «   নিখোঁজ ক্রিকেটার গৌতম গাম্ভীর!  » «  

ওসমানীনগরে আপেলের চেয়ে পিয়াজের দর বেশি

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::সিলেটের ওসমানীনগরে প্রশাসনের নজরদারি না থাকায় বেড়েই চলেছে পিয়াজের দাম। বাজারে প্রতি কেজি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১২০-১৫০ টাকা। অন্যদিকে প্রতি কেজি আপেল বিক্রি হচ্ছে ১শ’ থেকে ১১০ টাকা দরে। আপেলের চেয়ে ২০-৩০ টাকা বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে পিয়াজ। যেখানে একজন গরিব মানুষ বছরে এক কেজি আপেল ক্রয় করে খাওয়ার সাধ্য নেই সেখানে পিয়াজ খাবে কি করে? তাইতো গরিবের রান্নাঘরে পিয়াজ এখন সোনার চেয়েও দামি। জানা যায়, ভারতীয় পিয়াজ আমদানি বন্ধ হওয়ার সাথে সাথে ওসমানীনগরে পিয়াজের মূল্য একরাতে ১২০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। বিষয়টি একাধিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ পেলে অভিযানে নামে প্রশাসন। কিন্তু অভিযানে অসাধু ব্যবসায়ীদের ব্যাপারে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় ব্যবসায়ীরা পিয়াজের মূল্য বাড়িয়েই চলেছেন।

তাই সাধারণ মানুষ এ অভিযানকে ‘লোক দেখানো’ অভিযান বলে অভিহিত করেছেন।
বাজার ঘুরে দেখা যায়, শনিবার ৯০-১০০ টাকা মূল্যে পেয়াজ বিক্রি হয়েছে কিন্তু গতকাল এক সাথে কেজিতে ৩০-৫০ টাকা দর বৃদ্ধি পেয়েছে। পেয়াজের দর বৃদ্ধির পরপর শহরে টিসিবির মাধ্যমে ৪৫ টাকা দরে পেয়াজ বিক্রি করলেও মফস্বল এলাকার মানুষ এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন। পেয়াজের ঊর্ধ্ব মূল্যের কারণে গরিব অসহায় জনসাধারণ চরম বিপাকে পড়েছেন। সাধারণ ক্রেতাদের অভিযোগ উপজেলার প্রতিটি বাজারে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে পেয়াজের উচ্চ মূল্য ধরে রেখেছেন পাইকারি ব্যবসায়ীরা। তাই পেয়াজের খুচরা বাজার অস্থিতিশীল।
গোয়ালাবাজারের পাইকারি পেয়াজ ব্যবসায়ী রায় ট্রেডার্সের সুমন রায় বলেন, বর্তমানে পাইকারী বাজারে ১১৫-১২০ টাকা কেজি দরে পেয়াজ বিক্রি করছি আমরা। সবখানে পেয়াজের মূল্য বাড়তি থাকায় আমাদের উচ্চ মূল্য দিয়েই কিনে আনতে হচ্ছে।
ওসমানীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. তাহমিনা আক্তার বলেন, পেয়াজের বাজারে সর্বত্র অস্তিরতা বিরাজ করছে। তারপরও আমরা বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখছি। কোন ব্যবসায়ীকে অধিক মুনাফা লাভের সুযোগ দেয়া হবে না।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.