সংবাদ শিরোনাম
সিলেট মহানগর কৃষক দলের আহ্বায়ক পুতুলের মৃত্যু:শোক প্রকাশ  » «   সিলেটে আরও ২৬ জনের করোনা শনাক্ত  » «   চুনারুঘাটে বড় ভাইয়ের দায়ের আঘাতে ছোট ভাই নিহত:আটক ২  » «   বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবি: ময়ূর-২ এর মালিক গ্রেপ্তার  » «   সিলেটে অনলাইনে পশুর হাট: বর্ণনা দেখে ক্রেতারা উৎসাহী হলে খামারে কিংবা বাড়িতে গিয়েই কিনতে পারবেন  » «   যাত্রীর মধ্যে করোনা ভাইরাস পাওয়ায়:বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ইতালির ‘ক্র্যাক ডাউন’  » «   সিলেটের হাসপাতালে আইসিইউ সুবিধা না পেয়ে অনেক রোগী মারা যাচ্ছে  » «   বৃটেনে বর্ষসেরা বাংলাদেশি ফারজানা  » «   যুক্তরাষ্ট্র একদিনেই দেশটিতে ৬০ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত  » «   বালাগঞ্জ-ওসমানীনগর স্বাস্থ্য বিভাগের সেবাদানে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসকরা  » «   সিলেট সুনামগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় কেড়ে নিয়েছে চারজনের প্রাণ  » «   করোনায় আরো ৪৬ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩৪৮৯  » «   স্বামীর জন্মদিনে তরতাজা সেলফি পোস্ট করে গুঞ্জনে আবারও জল ঢেলে দিলেন সিলেটি বধু মাহি  » «   নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠানের টার্নওভার কর সনদপত্র নিজ ব্যবসায়িক কার্যালয়ে টানিয়ে রাখতে  » «   বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতাল বন্ধের নির্দেশ  » «  

প্রেম মেনে না নেয়ায় একমাত্র মেয়ের হাতে মা খুন!

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::প্রেমের সম্পর্ক মেনে না নেয়ায় একমাত্র মেয়ে ও তার প্রেমিকের হাতে খুন হলেন রজিতা নামের এক মা। ভারতের হায়দ্রাবাদের হায়াতনগরে এই ঘটনা ঘটেছে। পাষন্ড সেই মেয়ের নাম কীর্তি রেড্ডি বলে জানা গেছে। সে স্থানীয় একটি কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। মাকে খুন করে তার দেহ বাড়িতেই লুকিয়ে রাখে কীর্তি। এ অবস্থাতে তিনদিন পর্যন্ত নিজের প্রেমিকের সঙ্গে ওই বাড়িতেই বাস করে সে। খবর এনডিটিভির।

পুলিশসূত্র জানায়, গত ২৫ অক্টোবর একটি পচাগলা মৃতদেহ পাওয়া যায় রামান্নাপেট রেলওয়ে ট্র্যাকে। এর এক সপ্তাহ আগে রজিতা নামক এক মহিলার নিখোঁজ হওয়ার খবর আসে তাদের কাছে। ফরেনসিক টেস্ট ও ময়না তদন্তের পরে পুলিশ নিশ্চিত হয় ওই দেহটি নিখোঁজ রজিতারই।

সূত্রমতে, তরুণীর বাবা পেশায় চালক। তিনি বাইরে গিয়েছিলেন। নিখোঁজ স্ত্রীর সন্ধানে তিনি বাড়ি আসেন। সেই সময় বিশাখাপত্তনমে থাকা তার মেয়ের বয়ানে অসঙ্গতি মে‌লায় তিনি তাকে নিয়েই থানায় অভিযোগ জানাতে যান। তদন্ত শুরু হওয়ার পর দেখা যায়, কীর্তি রেড্ডির হায়দরাবাদে না থাকার দাবি সত্যি নয়।

পুলিশ জানায়, কীর্তি ও তার প্রেমিক শশীর সম্পর্ক নিয়ে হুঁশিয়ারি দেওয়ায় কীর্তি রেড্ডি তার মাকে খুন করেন প্রেমিক শশীর সাহায্য নিয়ে। খুন করার পর তিন দিন মায়ের মৃতদেহ বাড়িতেই রেখে দেন তিনি। পরে দুর্গন্ধ যখন আর সহ্য করা যাচ্ছিল না, তখন সেই দেহ রেললাইনে ফেলে আসা হয়।

কীর্তি রেড্ডি প্রাথমিক ভাবে জানিয়েছিলেন, তার মা আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন। কারণ হিসেবে বাবার মদ্যপ অবস্থায় রজিতাকে মারধরের কথাও জানান তিনি। কিন্তু তার বয়ানে অসঙ্গতি থাকায় পুলিশের সন্দেহ তার দিকেই ঘনীভূত হয়। অবশেষে পুলিশের উপর্যুপরি জেরায় কীর্তি স্বীকার করেন, তিনিই মাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছেন। সেই সময় শশী রজিতার হাত চেপে ধরে ছিলেন।

একমাত্র মেয়ের হাতে মায়ের খুনের ঘটনা জেনে হতভম্ব হয়ে আছেন কীর্তির প্রতিবেশী ও আত্মীয়স্বজনরা।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.