সংবাদ শিরোনাম
নগরীর কাস্টঘর এলাকা থেকে দুই চুর আটক  » «   হয়নি গোলাপগঞ্জ আওয়ামীলীগের কমিটি:হয়েছে বিয়ানী বাজারে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন  » «   নগরীর ছড়ারপার ফ্যানের সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে এক যুবকের আত্মহত্যা  » «   ছাতকে সড়ক দুর্ঘটনায় মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ২  » «   শায়েস্তাগঞ্জে দু’দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, নারীসহ আহত ১০  » «   ইসলামবিদ্বেষের বিরুদ্ধে ফ্রান্সে সম্প্রীতি সমাবেশ  » «   আইএসের অধীনে ভয়াবহতার কথা জানালেন ইয়াজিদি নারী  » «   লিবিয়া থেকে শিগগিরই ফেরত পাঠানো হচ্ছে ১৭১ বাংলাদেশিকে  » «   মালয়েশিয়া পাচারকালে ১২২ রোহিঙ্গা উদ্ধার  » «   ২২০ ছাড়িয়েও নটআউট পিয়াজ  » «   চাকরির আশায় বাবাকে খুন  » «   পদত্যাগ করলেন কুয়েতের প্রধানমন্ত্রী  » «   ভারতে কারাভোগের পর ৭ বাংলাদেশিকে ফেরত  » «   খালেদাকে মুক্তি দিতে প্রধানমন্ত্রীকে এমপি হারুনের অনুরোধ  » «   কিছুদিনের মধ্যে তুরস্ক-মিশর থেকে পেঁয়াজ আসছে  » «  

ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::নওগাঁর পত্নীতলায় নজিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সাদেক উদ্দিনের বিরুদ্ধে এক কলেজছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে শারীরিক সম্পর্কের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। অনুসন্ধানে জানা যায়, অভিযোগ ঠেকাতে চৌকিদার পাহারায় অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে ভুক্তভোগীর পরিবারকে। এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে জেলা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেও কোনো প্রতিকার পাননি বলে জানান ওই কলেজছাত্রী। তিনি উপজেলার দিবর ইউনিয়নের বাকরইল গুচ্ছগ্রামের মৃত অনিল চন্দ্রের মেয়ে ও সাপাহার সরকারি কলেজের অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্রী। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। ভুক্তভোগীর অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নজিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দীর্ঘ ৫ বছর ধরে বিয়ের কথা বলে দৈহিক সম্পর্ক চালিয়ে আসছিল। এক পর্যায়ে ওই ছাত্রী গর্ভবতী হয়ে পড়লে বাচ্চা নষ্ট করার জন্য চেয়ারম্যান চাপ সৃষ্টি করেন।

গর্ভের বাচ্চা নষ্ট করতে না চাইলে ছোট মেয়ের বিয়ের পর তারা আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে করবে বলে বাচ্চা নষ্ট করতে বাধ্য করেন। সম্প্রতি, তাকে বিয়ের করার কথা বললে ভুক্তভোগীর কাছে ৪০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন চেয়ারম্যান সাদেক। অভিযোগ ঠেকাতে গত সোমবার থেকে চৌকিদার পাহারায় অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে ভুক্তভোগীর পরিবারকে। এতে সহযোগিতা করছেন দিবর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হামিদ সরকার ও দিবর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হারুন-অর রশীদ। ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা অভিযোগে জানান, স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল ওই চেয়ারম্যানের সঙ্গে আঁতাত করে ঘটনা ধামা-চাপা দেয়ার চেষ্টা করছে। সেই সঙ্গে ৪০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করছে। আমরা নিজেরাই আশ্রয়ণ প্রকল্পের গুচ্ছগ্রামে বসবাস করছি। মানুষের বাড়িতে দিন মজুরের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করি। বর্তমানে মেয়েকে নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। অভিযুক্ত নজিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যন ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সাদেক উদ্দিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। পত্নীতলা থানার ওসি পরিমল কুমার চক্রবর্তী বলেন, গ্রাম পুলিশকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে আমরা উভয়পক্ষকে  একটি সমাধান করার জন্য ডেকেছি। ধর্ষণের মামলা না করে উল্টো ভিকটিমের বিরুদ্ধে সালিশের সমাধান করার এখতিয়ার পুলিশ আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসপি স্যারের নির্দেশেই ডাকা হয়েছে। নওগাঁ জেলা পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়ার সঙ্গে যোগযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি ওই ছাত্রীকে উদ্ধারের জন্য থানা পুলিশকে বলেছি। বিষয়টি তদন্ত করে সত্যতা যাচাই পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.