সংবাদ শিরোনাম
‘ধর্ষিতা কন্যাকে চুপ থাকতে বলেন’ অস্ট্রেলিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী  » «   নিউ জিল্যান্ডে অগ্ন্যুৎপাত ॥ নিহত ১,কয়েকজন নিখোঁজ  » «   বঙ্গবন্ধু বিপিএলে একমাত্র দেশী কোচ সালাউদ্দিন  » «   নারীরা এখন সর্বত্র কাজ করছে ॥ প্রধানমন্ত্রী  » «   ২২ ডিআইজি-অতিরিক্ত ডিআইজি বদলি  » «   এখন থেকে প্রতিদিন তিনবার ফুটপাতে অভিযান চলবে-মেয়র আরিফ  » «   মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে সিলেট জেলা বিএনপির শোভাযাত্রা মঙ্গলবার  » «   নগরীর কাষ্টঘর এলাকা থেকে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি গ্রেপ্তার  » «   সিলেটে আজ থেকে কার্যকর হলো নতুন সড়ক পরিবহন আইন  » «   কমলগঞ্জে ৫ মাস পর কবর থেকে তরুণীর লাশ উত্তোলন  » «   প্রত্যেক নারীকে অসাম্প্রদায়িক চিন্তা চেতনার হতে হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   দিরাইয়ে দুইদিন থেকে নিখোঁজ কিশোরের মরদেহ উদ্ধার  » «   ছাতকে পিকআপ ভর্তি ভারতীয় কসমেটিকসহ আটক ৩  » «   সিলেটে চালু হচ্ছে আরও একটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়  » «   রাজধানীতে বিএনপির বিক্ষোভ, আটক ১২  » «  

টেস্টে শুধু মাঠে নয়, মনেও যে হারছে বাংলাদেশ!

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে বাংলাদেশ দল থেকে সবচেয়ে বেশি একটা শব্দই শোনা গিয়েছিল-চ্যালেঞ্জ।

ইন্দোরে ইনিংস ও ১৩০ রানের বড় টেস্ট হার। তিন দিনে শেষ হওয়া ম্যাচের ইতিবৃত্ত। পুরোটা সময় জুড়ে নেতিয়ে পড়া দলের প্রতিচ্ছবি। ব্যাটিংয়ের সঙ্গে বোলিংয়েও ব্যর্থতা। স্কিলের সার্বিক ঘাটতি। এসব কিছুকে এক পাল্লায় রাখলে সিরিজ শুরুর আগে বারংবার শোনা চ্যালেঞ্জ শব্দটা যা ছড়াচ্ছে তা আর কিছু নয়-ঠাট্টা!

টেস্ট সিরিজে যে ভারতের মাটিতে বাংলাদেশের জন্য কঠিন সময় অপেক্ষা করছে সেটা অনুমিতই ছিল। এই সিরিজের ফলও কি হতে যাচ্ছে- তা নিয়েও কারো মধ্যে তেমন বেশি দ্বিমত ছিল না। কিন্তু তাই বলে বাংলাদেশ লড়াইটুকুও করতে পারবে না-এতো খারাপ ভাবনা কারোর মধ্যে ছিল না। বিশেষ করে টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচ জয় এবং তৃতীয় ম্যাচে জয়ের উজ্জ্বল সম্ভাবনা এই দুটো বিষয় টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে বাংলাদেশ দলকে ঘিরে একটা ইতিবাচক বৃত্ত তৈরি করেছিল।

কিন্তু তিন দিনেই ইন্দোর টেস্টে প্রায় ন্যুব্জ ভঙ্গিতে হারের পর চারপাশ থেকে সমর্থন সরিয়ে নেওয়ার যে কুৎসিত প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে সেটা এই দলকে নিশ্চয়ই কলকাতা টেস্টের আগে আমিষ না, বরং বিষের বড়িই গেলাচ্ছে!

হয়তো বলবেন-ভালো না খেললে প্রতিক্রিয়া তো হবেই। তা তো নিশ্চয়ই হবে। কিন্তু প্রতিক্রিয়া আর অতি প্রতিক্রিয়াশীলতার মধ্যেও যে একটা সীমারেখা আছে- সেটুকুও যদি মেনে না চলেন তাহলে তো নিজের প্রতিক্ষণের নিঃশ্বাসেও অবিশ্বাস খুঁজে বেড়ানো একজন আপনি!

সিরিজের প্রথম টেস্টে বাংলাদেশ খারাপ খেলেছে। অনেক খারাপ খেলেছে। অনেক! কিন্তু এখনই শাস্তি হিসেবে সবাইকে ক্লাসরুমের বাইরে বের করে দেওয়ার কিছু তো নেই। এখনো তো সিরিজের আরেকটি টেস্ট ম্যাচ বাকি আছে। আর এই প্রথম কি দেশের বাইরে বাংলাদেশ কোনো টেস্ট ম্যাচে ইনিংস ও এত বড় রানের ব্যবধানে হারল?

ইন্দোর টেস্টে ব্যবচ্ছেদ করতে বসে, এ চলে না! ওর যোগ্যতা ওটুকুই! পুরো দলে একটা ওভারহোলিং বদল দরকার-সিরিজের মাঝপথে এমন সব রূঢ়তা এই মুহূর্তে দলের উপকার করার চেয়ে যে সঙ্কটের গর্তটা আরও গভীর করছে।

কলকাতা টেস্টে নিশ্চয়ই পুরো এগারওজনকে বদলে খেলতে নামবে না বাংলাদেশ? বাস্তবতা হলো দল যখন হারে তখন তাৎক্ষণিক দায়টা শুধুমাত্র একাদশ এবং অধিনায়কের ঘাড়েই বর্তায় বেশি। টেস্ট অধিনায়কত্বের অভিষেক বলেই হয়তো মুমিনুল সেই কোপ থেকে আপাত মুক্ত। কিন্তু ইন্দোরের হারে একাদশের সংখ্যাগরিষ্ঠকে সমালোচনার শূলে চড়িয়ে তৃপ্তি খোঁজা আর তেলচর্বি সর্বস্ব বিরিয়ানি গেলার সুখের মধ্যে বড় কোনো পার্থক্য নেই!

দুটোই আঙ্গুল চেটে খাওয়ার তাৎক্ষণিক সুখ হয়তো দেবে- কিন্তু সঙ্গে অনেক বড় অসুখও যে বাঁধিয়ে দেবে!

ইন্দোরে ‘অন্দরমহল’ হারানো বাংলাদেশ দল কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে গোলাপি বলে টেস্ট খেলতে যাওয়ার আগেই এখন চোখ বন্ধ করলেই সামনে লাল-নীল-হলুদ রংয়ের সর্ষেফুলের বিন্দুর উড়াউড়ি দেখছে।

প্রথমবারের মতো গোলাপি বলে ফ্লাডলাইটের আলোয় টেস্ট ম্যাচ যে রোমান্টিকতা অথবা রোমাঞ্চের উষ্ণতা ছড়াচ্ছিল, সেটা এখন বাংলাদেশ দলের জন্য হর’র সিনেমা আর কি!

আনন্দকে এক লহমায় আতঙ্কে বদলে দেওয়ার উপায় সম্ভবত আমরাই সবচেয়ে ভালো জানি!

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.