সংবাদ শিরোনাম
কানাডায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে বড়লেখার মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু  » «   করোনা: ইতালির চেয়ে ভয়ঙ্কর অবস্থা হবে বাংলাদেশে-বিশেষজ্ঞরা  » «   পাল্টে যাচ্ছে কোম্পানীগঞ্জ: করোনায় ঘরবন্দী মানুষের বাড়িতে থানা পুকুরের মাছ  » «   নিরাপদে সবাইকে ঘরে ফিরিয়ে নিজে অসুস্থ  » «   জগন্নাথপুরে লন্ডনের প্রলোভনে বিয়ে, আন্ত:জেলা প্রতারক চক্রের ৩ নারী আশারকান্দি থেকে গ্রেফতার  » «   ওসমানীনগরে চেয়ারম্যান লটইয়ের বিরুদ্ধে কিশোরী ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে: মামালা  » «   সিলেটে এই প্রথম করোনা ভাইরাস পজিটিভ রোগী সনাক্ত:বাসা লকডাউন  » «   নগরীর কাজী ইলিয়াস গলিতে প্রবাসী স্বামীকে ভিডিওকলে রেখেই লুবনার আত্মহত্যা  » «   নগরীর বিভিন্ন স্থানে টহল সেনাবাহিনীর:সিলেটে হোম কোয়ারেন্টাইনে কেউ নেই  » «   পবিত্র শবে বরাতে নিজ বাড়িতে নামাজ দোয়া ও ইবাদত করার অনুরোধ  » «   জগন্নাথপুরে সমাজ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে ত্রান বিতরণ  » «   জগন্নাথপুরে সরকারী চাল বিক্রির অভিযোগে এক ডিলার গ্রেফতার  » «   ওসমানীনগরে হিন্দুদের ত্রাণ দিতে বিএনপি নেতার বাধা! ভিডিও ভাইরাল  » «   করোনা:সিলেটে নতুন কেউ হোম কোয়ারেন্টাইনে নেই! পিসিআর চালু সোমবার  » «   করোনা মোকাবিলায় ১৬০ বিলিয়ন ডলার দেবে বিশ্বব্যাংক  » «  

কাজের জন্য সব করতে পারি’

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::নিজেকে কোন দিনই তারকার মতো মনে হয়নি। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে এই মন্তব্যই করেছেন বলিউড অভিনেত্রী সারা আলি খান। নিজের শৈশবের অন্যরকম অভিজ্ঞতার কথাও শেয়ার করেন তিনি। তারকাখচিত পরিবারের মেয়ে সারা। ছোট বেলা থেকেই মা ও বাবাকে অভিনয়ের সঙ্গে জড়িয়ে থাকতে দেখেছেন। কিন্তু কোনদিনই গ্ল্যামার ওয়ার্ল্ডের স্টারডাম কী তা বুঝে উঠতে পারেননি তিনি। এক সাক্ষাৎকারে সম্প্রতি তিনি বলেন, আমার বাবা-মা দু’জনেই অভিনয়শিল্পী। কিন্তু আমার মনে হয় না যে আমি তারকাদের পরিবারে বড় হয়েছি।

আমার বাবা যেমন সব সময়ে পড়াশোনার বিষয় খুব গুরুত্ব দিয়েছেন। আর মা সব সময়ে বলেছেন, মাথা সব সময়ে নীচু রাখবে, কথা বলবে তোমার কাজ। এই জন্যই কোনদিনই বলিউডের তারকার সন্তান বলে নিজেকে মনে করতে পারেননি তিনি। সাইফ আলি খান ও অমৃতা সিং-এর মেয়ে সারা আরো বলছেন, আমি বলিউডের কাছাকাছি ছিলাম না। আমার মনেই হয় না যে আমি তারকা পরিবারের মানুষ। আমি নিজেকেও তারকা হিসেবে দেখি না।  আমি ছোটবেলায় খুব দুষ্টু ছাত্রী ছিলাম। সবার সঙ্গে নানা ধরনের প্র্যাঙ্ক করতাম। একবার মনে আছে স্কুলে  ফ্যানের ব্লেডে আঁঠা ফেলে দিয়েছিলাম। তার পরে ফ্যান চালানোর সঙ্গে সঙ্গেই সেই আঁঠা সবার গায়ে পড়েছিল। আমাকে প্রায় সাসপেন্ড করে দেয়া হচ্ছিল এই কা- ঘটানোর জন্য। আমার প্রিন্সিপাল জিজ্ঞাসা করেছিলেন আমি কেন এটা করেছি। কিন্তু আমার কাছে কোনো উত্তর ছিল না।  সারা আরো বলেন, আমার শৈশব স্বাভাবিকভাবেই কেটেছে। একটি বিষয় আমি পরিবার থেকে শিখেছি। সেটা হচ্ছে কাজকে গুরুত্ব দেয়া। তাই কাজের জন্য সব করতে পারি আমি। কারণ আমি নিজেকে পেশাগত অভিনেত্রী মনে করি। তার জন্য যা যা করার সব করবো সামনে।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.