সংবাদ শিরোনাম
জগন্নাথপুরে হাওর থেকে এক অঞ্জাতনামা ব্যক্তির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার  » «   জগন্নাথপুরে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত ১ ব্যক্তি: মোট ১০, সুস্থ ৬, আইসোলেশনে ৪  » «   দোয়ারাবাজারে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ১০  » «   সিলেটে দক্ষিণ সুরমায় দু’দল বাস শ্রমিকের মধ্যে দেড় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ  » «   করোন:এক দিনে ৯৩ জন আক্রান্ত সিলেট বিভাগে:মোট ১০৪০ জন  » «   ভূমধ্যসাগরে ট্রলার ডুবিতে নিহত ৩৬: এ মামলার প্রধান আসামি রফিকুল গ্রেফতার  » «   সিলেট থেকে বাস চলাচল শুরু  » «   ছাতকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক ঔষধ ব্যবসায়ীর মৃত্যু  » «   সুনামগঞ্জে চেয়ারম্যানের অপসারনের দাবীতে অভিযোগ দায়ের  » «   সুনামগঞ্জে র‍্যাব ক্যাম্পের ১৬ জন সদস্যসহ মোট ২১ জন করোনায় আক্রান্ত  » «   জগন্নাথপুরে মানসিক রোগী দীর্ঘ এক বছর পর থানা পুলিশের সহযোগিতায় ফিরে পেল পরিবার  » «   রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের ১৯-২০ বছরের উন্মুক্ত বাজেট পেশ  » «   জগন্নাথপুরে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে আরেক জন  » «   জগন্নাথপুরে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা জরিমানা আদায়  » «   গোয়াইনঘাটে এসএসসিতে পাশের হার ৭৯.২৭ জিপিএ ৪৫ জন  » «  

করোনা: আতঙ্কের জনপদ নিউ ইয়র্ক আরো চার বাংলাদেশির মৃত্যু

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::আতঙ্কের জনপদে পরিণত হয়েছে নিউ ইয়র্ক। গত চারদিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও নিহতের সংখ্যা যেভাবে লাফিয়ে বেড়েছে দুনিয়ার রাজধানীখ্যাত এই নগরীতে তাতে আতঙ্কিত না হয়ে উপায় কী? ইতিমধ্যেই হোয়াইট হাউসের করোনা টাস্কফোর্সের ব্রিফিংয়ে স্বয়ং ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বলেছেন, নিউ ইয়র্ক এখন করোনা সংক্রমণের হটস্পট। সেখানে প্রতি ১ হাজার মানুষের মধ্যে একজন করোনায় আক্রান্ত। এটা সত্যিই ভয়াবহ। ওই ব্রিফিংয়ে আরও বলা হয়, নিউ ইয়র্ক থেকে কোনো ব্যক্তি অন্য যে কোনো অঙ্গরাজ্যে গেলে তার ১৫ দিনের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

এদিকে গত মঙ্গলবার নিউ ইয়র্কে আরো ৪ বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে। এর আগে মারা গিয়েছিলেন আরো চারজন। সবমিলিয়ে প্রাণঘাতী এই রোগ নিউ ইয়র্কে কেড়ে নিলো ৮ বাংলাদেশির প্রাণ। মঙ্গলবার মধ্যরাত পর্যন্ত নিউ ইয়র্ক রাজ্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ছিল ২৭১ জন এবং আক্রান্তের সংখ্যা ২৬ হাজার ৩৪৮। সমগ্র যুক্তরাষ্ট্রে মঙ্গলবার মধ্যরাত অবধি মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছিল প্রায় ৫৫ হাজার এবং মৃত্যু ৮শ’ ছুঁই ছুঁই।

নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার নিউ ইয়র্কে যে চার জনের মৃত্যু হয়েছে তাদের মধ্যে কুইন্স কাউন্টির এলমহার্স্ট হসপিটালে নূরজাহান বেগম (৭০), আবদুল বাতেন (৬০) এবং ৪২ বছর বয়সী অপর এক নারী, যার নাম জানা যায়নি। তবে তিনি কুইন্সের এস্টোরিয়ায় বসবাস করতেন এবং তাঁর দেশের বাড়ি মৌলভীবাজার বলে জানা গেছে। এছাড়া নর্থওয়েলের প্লেইনভিউ হসপিটালে মারা গেছেন এটিএম সালাম (৫৯) নামের এক ব্যক্তি, যিনি নিউ ইয়র্কের লং আইল্যান্ডে ওয়েস্ট বে তে বসবাস করতেন। মৃত নূরজাহানের দেশের বাড়ি ঢাকার মোহাম্মদপুরে। নিউ ইয়র্কে তিনি বসবাস করতেন এলমহার্স্ট হসপিটালের অদূরেই। মৃত আবদুল বাতেনের বাড়ি নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলায়। নিউ ইয়র্কে তিনি বাস করতেন ব্রুকলিনে। এর আগের দিন সোমবার নিউ ইয়র্কে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছিলেন বাংলাদেশি তরুণী আমিনা ইন্দ্রালিব তৃষা। তিনি তিন সন্তানের জননী ছিলেন। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত শনিবার নিউ ইয়র্কে প্রথম যে দু’জন বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেন তারা হলেন- মোতাহের হোসেন ও মোহাম্মদ আলী। মাত্র চারদিনের মধ্যেই ৮ বাংলাদেশির মৃত্যুতে নিউ ইয়র্কের বাংলাদেশি কমিউনিটিতে যেমন শোকের ছায়া নেমে এসেছে তেমনি গোটা কমিউনিটি জুড়ে বিরাজ করছে আতঙ্ক।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.