সংবাদ শিরোনাম
জগন্নাথপুরে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা জরিমানা আদায়  » «   গোয়াইনঘাটে এসএসসিতে পাশের হার ৭৯.২৭ জিপিএ ৪৫ জন  » «   দিরাইয়ে ৩শ মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিনদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ প্রণোদনা প্রদান  » «   আজ থেকে সিলেটে বাসসহ গণপরিবহন চলাচল শুরু  » «   সিলেটে এবার ঘরে উল্লাস কৃতী শিক্ষার্থীদের:পাসের হার ৭৮.৭৯ জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪২৬৩ জন  » «   স্বাস্থ্যবিধি মেনে সিলেটে শুরু হয়েছে ট্রেন চলাচল  » «   গোয়াইনঘাটে আরও এক করোনা রোগী শনাক্ত:মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪  » «   বাঁচা মরা তো আল্লাহর হাতে:আমার স্ত্রীর অবস্থা খুবই খারাপ-মানবতার ফেরিওয়ালা মাকসুদুল  » «   এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল আজ  » «   কোমা থেকে জাগলেন করোনায় আক্রান্ত ব্রিটিশ পাইলট  » «   করোনা প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধিদের আরও সম্পৃক্তির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর  » «   লিবিয়ায় নিহতদের মরদেহ বাংলাদেশে আনা যাবে না  » «   জগন্নাথপুরে জিয়াউর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল  » «   সুনামগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের হামলা আহত ২-থানায় অভিযোগ  » «   জগন্নাথপুরে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এক নারী চিকিৎসক  » «  

মুশফিকের আবেগ নিয়ে কেন নোংরামি

সিলেটপোস্ট ডেস্ক::করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে দেশের মানুষ। নিম্নবিত্তদের জীবন হয়ে তো উঠেছে দুর্বিষহ। তাদের কল্যাণেই একটি মহৎ উদ্যোগ নিয়েছেন তারকা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম। ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো ব্যাট নিলামে বিক্রি করে করোনা দুর্গতদের সহযোগিতা করতে চেয়েছেন তিনি। কিন্তু মুশফিকের আবেগ নিয়ে তামাশা ও নোংরামিতে মেতেছে কিছু মানুষ। তাদের কারণে নিলাম কাজ বার বার ব্যহত হয়েছে। অকশন বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত ৬ লাখ টাকার ভিত্তিমূল্যের ব্যাটের বিড হয় ৫৩ বার। যার বেশিরভাগই ভুয়া।
মুশফিকের ব্যাটের নিলামের দায়িত্বে আছে ‘পিকাবো’ নামে একটি অনলাইনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান।

তাদের তত্ত্বাবধানেই শনিবার রাতে শুরু হয় নিলাম প্রক্রিয়া। প্রথম রাতে দাম ওঠে ৩২ লাখ। পরে জানা যায় সেটি ভুয়া। ১২ই মে এক লাফে ৩২ থেকে ৪০ লাখ উঠে যায় দাম। সংবাদমাধ্যমে সেই খবরও প্রচার করা হয়। কিন্তু দেখা গেছে সেটিও ভুয়া। দাম বলা ব্যক্তি উধাও!
আর মুশফিকের অনলাইন বিডিংয়ে কারা অংশ নিচ্ছেন? নীল ছবির তারকাদের নামে খোলা বিভিন্ন আইডি থেকে বিড হচ্ছে। বুঝতে বাকি থাকে না, আইডিগুলো ফেইক। তাদের নোংরামি আয়োজক ও মুশফিক উভয়কেই ফেলেছে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে। সমস্যা সমাধানে কিছু নিয়মকানুনে পরিবর্তন আনা হয়। কিন্তু ফের একই কারণে নিলাম বন্ধ হয়ে যায়। ফের চালু হয়েছে সেটি। ঘোষণা অনুযায়ী আজ রাতে নিলাম শেষ হওয়ার কথা। কিন্তু মানুষজন যেভাবে মুশফিকের আবেগ নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে, তাতে যথাসময়ে নিলামটা শেষ করা যাবে কিনা সন্দেহ। শেষ হলেও মুশফিক ন্যায্য দাম পাবেন কিনা সেই নিশ্চয়তাও দেয়া যাচ্ছে না। কারণ ভুয়া বিডিংয়ে প্রকৃত ক্রেতারা নিরুৎসাহিত হতে পারেন।
জানা গেছে, নিলামের প্রথম দিন থেকেই মুশফিকের ব্যাটের অস্বাভাবিক দর হাঁকানো হচ্ছে। সেই ফলস কলের ধরন এবং অস্বাভাবিকতার প্রমাণ দিয়েছেন মুশফিকের ম্যানেজার বর্ষণ কবির। মঙ্গলবার রাতে ক্রীড়া সাংবাদিক নোমান মোহাম্মদের সঙ্গে ইউটিউব লাইভে এসে বর্ষণ জানিয়েছেন এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। তৃতীয় দিনে এসে ৪১ লাখ টাকা মূল্য ওঠাই শেষ কথা নয়, প্রথম দিনই ২২ লাখ টাকা দর হাঁকানো হয়েছিল। তখনই তাদের কাছে মনে হয় এর ভেতরে কোথাও না কোথাও বড় ধরনের ঘাপলা আছে।  সেই ২২ লাখ টাকা উঠতে ২৪ ঘন্টা কেন, এক ঘন্টাও লাগেনি। নিলাম প্রক্রিয়া শুরুর ৪০ মিনিট না যেতেই দর উঠে যায় ২২ লাখ টাকা। বিষয়টি নিয়ে বর্ষণ কবির বলেন, ‘তখনই সন্দেহ হয় আমাদের মনে। তখনই আমাদের চিন্তায় ঢুকল, হচ্ছেটা কী?’ তিনি আক্ষেপ নিয়ে বলেন, ‘অমাদের আসল ও একমাত্র লক্ষ্য ছিল, নিলামে মুশফিকের ব্যাটের মূল্য যাতে বেশি ওঠে। যেহেতু এর একটি টাকাও অন্যত্র কাজে লাগানো হবে না, পুরোটাই যাবে করোনায় নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষদের সাহায্যে। তাই আমরা শুরু থেকেই চেয়েছিলাম একটি সাজানো গোছানো ও বড়সড় প্রক্রিয়ায় ডিজিটাল নিলাম করার।’
মুশফিকের এই ব্যাটে বাংলাদেশের ক্রিকেটের একটা ইতিহাস জড়িত। ২০১৩ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গল টেস্টে এই ব্যাট দিয়েই মুশফিক হাঁকিয়েছিলেন ডাবল সেঞ্চুরি। দেশের টেস্ট ইতিহাসের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি সেটি। যারা এই ব্যাটের নিলামের কাজ ব্যহত করছেন, তারা কি বাংলাদেশের ক্রিকেট ঐতিহ্যকে কলুষিত করার চেষ্টা করছেন না? প্রশ্নটা উঠতেই পারে। নিলামের আয়োজক পিকাবোর প্রধান মরিন তালুকদার মনে করেন, বাংলাদেশে এরকম বিডিং নতুন হওয়ায় অনেকে এটাকে স্রেফ মজা হিসেবে নিয়েছেন। এজন্যই দাম বাড়াচ্ছেন। কিন্তু এই মজা বন্ধ হওয়ায় উচিৎ। মুশফিকের আবেগ নিয়ে আর নোংরা খেলা নয়। ক্রিকেটভক্তদের উচিৎ মুশফিককে দেশের সেবা করার সুযোগ দেয়া।
সাকিব আল হাসান ইতিমধ্যেই বিশ^কাপে রং ছড়ানো ব্যাট ২০ লাখ টাকায় বিক্রি করেছেন। অর্থের পুরোটাই করোনা আক্রান্তদের জন্য ব্যয় হবে। মুশফিকের ব্যাটের নিলাম ভালোভাবে সম্পন্ন হলে মোহাম্মদ আশরাফুলও তার স্মৃতি জড়ানো একটি ব্যাট অকশনে তুলবেন। অন্যথায় তিনিও নিরুৎসাহিত হতে পারেন। যা অকল্যাণই বয়ে আনবে।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.