সংবাদ শিরোনাম
৭ মার্চের ভাষণ ছিল সমগ্র বাঙালি জাতির অনুপ্রেরণাঃ জেলা পরিষদ সদস্য মান্না  » «   মৈত্রী সেতু-১ উদ্বোধন করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি  » «   চিত্রনায়ক শাহীন আলমের চিরবিদায়  » «   যুক্তরাজ্য প্রবাসী জিল্লুরের একাধিক গোপন বিয়ে: অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণার অভিযোগ  » «   গোয়াইনঘাটে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন  » «   লাগসই প্রযুক্তি উদ্ভাবনে গবেষণার বিকল্প নেই: সিকৃবি ভিসি ড.মতিয়ার  » «   দলের স্বার্থে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহব্বান এড.আনোয়ারের  » «   ওসমানীনগরে প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম মনগড়া পরিচালনা কমিটি  » «   সুনামগঞ্জ পুলিশের উদ্যোগে মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ  » «   জগন্নাথপুরে নলজুর নদী খনন না কি খাল খনন!  » «   জগন্নাথপুরে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ জাতীয় দিবস উদযাপন  » «   শিশুদের মক্তবমুখী করতে ‘BUWF’র সুন্নাহ সামগ্রী বিতরন    » «   সুনামগঞ্জে সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন অনুষ্ঠিত  » «   সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পণ  » «   কাউন্সিলর সেলিমের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার ও উপশহরে খেলার মাঠে মেলা বন্ধে মানববন্ধন  » «  

ইতালিতে বৈধতার আবেদনে জালিয়াতি করলে ৬-৯ বছরের জেল

  • 17
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    17
    Shares

সিলেটপোস্ট ডেস্ক::করোনাকালে মানবতা দেখানো ইতালির সরকার অভিবাসী কর্মীদের বৈধতার প্রশ্নে কিছু বিষয়ে খুবই কঠোর থাকবে বলে আগাম জানিয়ে দিয়েছে। বলা হয়েছেÑ সাজানো নিয়োগকর্তা, মিথ্যা ঘোষণা বা ভুয়া কাগজপত্র তৈরি কিংবা সত্যায়ন করলে আবেদনকারীকে অবশ্যই দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। জালিয়াতির ধরণ ও মাত্রা বিবেচনায় সেই শান্তি বেসরকারী পর্যায়ে ন্যূনতম ১ বছর থেকে সর্বোচ্চ ৬ বছর পর্যন্ত কারাদ- হতে পারে। আর কোনো ইতালিয়ান সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারির এমন অপরাধে জড়িত থাকা প্রমাণ পাওয়া গেলে তার শাস্তি উপরোল্লিখিত দ-ের এক তৃতীয়াংশ বাড়বে, অর্থাৎ ৯ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে!

এমতাবস্থায়, বৈধতার আশায় থাকা ডকুমেন্টবিহীন বাংলাদেশী নাগরিকদের কোনো রকম গুজবে কান না দিয়ে, কোনো দালাল বা স্বার্থান্বেষী কারও মিথ্যা প্রলোভনে সাড়া না দিয়ে, ভালোভাবে জেনে-বুঝে, প্রয়োজনে ইমিগ্রেশন আইনজীবী কিংবা মিশনের সঙ্গে যোগাযোগের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। মিলানস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট ওই সতর্কতামূলক বিজ্ঞপ্তি প্রচার করেছে। বিজ্ঞপ্ততিতে বলা হয়- সম্প্রতি ইতালি সরকার দেশটিতে অবস্থানকারী ডকুমেন্টবিহীন বিদেশী নাগরিকদের নিয়মিতকরণের ঘোষণা প্রদান করেছে এটা সত্য কিন্তু এখনো অফিসিয়াল গেজেট নোটিফিকেশন হয়নি। তথাপি উক্ত ঘোষণার খসড়ার ভিত্তিতে উল্লেখযোগ্য বিষয়সমূহ প্রবাসী বাংলাদেশীদের অবহিতকরণের প্রয়োজনীয়তা উপলব্দিতে মিশন কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তুলে ধরা জরুরি মনে করেছে। অফিসিয়্যাল গেজেট প্রকাশ হওয়ার পর উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তন বা পার্থক্য পরিলক্ষিত হলে সংশোধিত বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে তা সকলকে অবহিত করা হবে বলেও জানানো হয়।

আবেদনের সময় ও শর্ত
বিজ্ঞপ্তি মতে, প্রথমত: যে সব অভিবাসী ৮ই র্মাচ ২০২০ তারিখের পূর্বে ইতালিতে ফিঙ্গার প্রিন্ট দিয়েছেন বা উক্ত তারিখের আগে থেকে দেশটিতে অবস্থান করছেন এবং ৮ই র্মাচ ২০২০ এর পর (স্বল্প সময়ের জন্য হলেও) ইতালি ছেড়ে অন্যত্র যাননি এবং যাদের কোনো বৈধ ডকুমেন্ট নাই বা ছিল না, তাদের পক্ষে নিয়োগর্কতারা আবেদন করতে পারবেন। ব্যক্তিগতভাবে কর্মীর আবেদনের সুযোগ নাই। একজন নিয়োগকর্তা তার আয় অনুযায়ী তার অধীনে র্কমরত প্রয়োজনীয় সংখ্যক ডকুমেন্টবিহীন বিদেশীর জন্য আবেদন করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে অবশ্যই তাকে প্রমাণ করতে হবে যে, ওই ব্যক্তি তার অধীনেই বর্ণিত কোনো সেক্টরে র্কমরত ছিলেন। প্রতিজন কর্মচারী বা কর্মীর জন্য নিয়োগকর্তাকে ৪০০ ইউরো ফি পরিশোধ করতে হবে। দ্বিতীয়ত: বর্ণিত কৃষি ও গৃহস্থালী খাতে আগে থেকে কর্মরত ছিলেন বা আছেন এরূপ যে সকল বিদেশী নাগরিকগণের রেসিডেন্স পারমিট, সোর্জন, ডকুমেন্ট-এর মেয়াদ ৩১শে অক্টোবর ২০১৯ এর পূর্বে উত্তীর্ণ হয়েছে এবং তা আর নবায়ন করা হয়নি বা নবায়নের আবেদন বাতিল বা প্রত্যাখ্যাত হয়েছে তারা ব্যক্তিগতভাবে সংশ্লিষ্ট ইমিগ্রেশন অফিস বা কস্তুরায় আবেদন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে তাদেরকে ১৬০ ইউরো ফি পরিশোধ করতে হবে। ১ লা জুন থেকে আবেদন গ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু হবে, চলবে ১৫ই জুলাই ২০২০ পর্যন্ত। অবশ্যই ওই সময়ের মধ্যে আবেদন দাখিল করতে হবে।

যারা আবেদনের অযোগ্য: তবে ইতালিতে কোনো অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত বিদেশী নাগরিক বা যাকে (দেশটির আদালত বা প্রশাসিক সিদ্ধান্তে) বহিষ্কারের আদেশ প্রদান করা হয়েছে এমন ব্যক্তিরা আবেদনের অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। তাছাড়া যে সকল নিয়োগকর্তা গত পাঁচ বছরের মধ্যে অবৈধ অভিবাসন প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত থাকার অপরাধে বা পতিতা বৃত্তিতে সহায়তার অপরাধে বা অবৈধ কাজ-কর্মে শিশুদের নিয়োজত করার অপরাধে বা বেআইনি দালালীর সঙ্গে জড়িত থাকার অপরাধ বা এতদসংশ্লিষ্ট অন্য কোনো অপরাধে জড়িত থাকার কারণে সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন তারা তাদের অধীন নিয়োজিত কোনো ব্যক্তির জন্য আবেদন জমা করতে পারবেন না।


  • 17
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    17
    Shares

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.