সংবাদ শিরোনাম
এম. এ. হক যে কোন দুর্যোগ মুহুর্তে জাতির সেবায় নিয়োজিত ছিলেন: এড. আব্দুর রকিব  » «   এম এ হকের প্রথম জানাযা সম্পন্ন  » «   এম. এ. হকের মৃত্যুতে সিলেট মহানগর যুবলীগের শোক  » «   এম. এ. হকের মৃত্যুতে সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলের শোক  » «   এম. এ. হকের মৃত্যুতে সিলেট মহানগর বিএনপির শোক  » «   এম এ হকের মৃত্যুতে মিজান চৌধুরীর শোক  » «   মারা গেলেন সিলেট মহানগর বিএনপি’র সাবেক সভাপতি এম এ হক  » «   সমালোচনার মুখে ফেয়ার এন্ড লাভলীর নাম পরিবর্তন করা হলো  » «   ফিরলো কফি হাউসের সেই আড্ডা  » «   করোনা:বাসা ভাড়া না দেওয়াতে ১৩৮ শিক্ষার্থীর সার্টিফিকেট, ল্যাপটপ, ট্রাঙ্ক ডাস্টবিনে  » «   বুড়িগঙ্গায় লঞ্চ ডুবির ১৩ ঘণ্টাপর জীবিত উদ্ধার হওয়া সুমনের ঘটনা সাজানো নাটক:দাবী ভ্রাম্যমাণ হকারদের  » «   বাজেট প্রত্যাখ্যান বিএনপি’র  » «   তিন দিন ধরে ঘুরছেন ক্যানসার আক্রান্ত রোগী  » «   বাংলাদেশে করোনায় তেমন ক্ষতি করতে পারেনি-পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   বিছনাকান্দি সীমান্তে ভারতীয় খাশিয়ার গুলিতে নিহত ১  » «  

তামাবিল স্থলবন্দর দিয়ে দেশে গেলেন  ৫ ভারতীয়, ফিরলেন ৪ বাংলাদেশি

শাহ আলম,গোয়াইনঘাট::বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) প্রাদুর্ভাবের কারণে চলমান লকডাউনে বাংলাদেশে আটকে পড়া ভারতের পাঁচজন নাগরিক তাদের দেশে গিয়েছেন। একই দিন ভারতের বিভিন্ন এলাকায় আটকে পড়া চারজন বাংলাদেশি সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার তামাবিল স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন দিয়ে দেশে ফিরেছেন।

বৃহস্পতিবারে ভারতীয় পাঁচজন তামাবিল ইমিগ্রেশন দিয়ে তাদের দেশে যান এবং সন্ধ্যায় চার বাংলাদেশি তামাবিল ইমিগ্রেশন হয়ে দেশে ফিরেন।    দেশে যাওয়া ভারতীয়রা হলেন, চিন্তা হরণ চৌধুরী, প্রীতি চৌধুরী, নেহা খংলা, ব্রায়ান মাইকেল খংওয়ার নংসিয়েট ও সাকানি ধনি কিন্ডিয়াহ এদের মধ্যে দুইজন ভ্রমণ ভিসায় এবং তিনজন স্টুডেন্ট ভিসায় বাংলাদেশে এসেছিলেন।অপরদিকে দেশে ফিরে আসা ৪ বাংলাদেশি হলেন, মোনা বিআইএ চৌধুরী, আব্দুস সালাম, মো. আব্দুল খালেক এবং মো. নূর আলম। এদের মধ্যে একজন স্টুডেন্ট ভিসায় এবং তিনজন ভ্রমণ ভিসায় ভারতে গিয়েছিলেন।

তামাবিল ইমিগ্রেশন সূত্রে জানা গেছে, করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ইমিগ্রেশন সুবিধা বন্ধ থাকায় পড়ালেখা ও ভ্রমণ ভিসায় ভারতে গিয়ে বাংলাদেশের চারজন এবং বাংলাদেশে এসে ভারতের পাঁচজন নাগরিক উভয় দেশের বিভিন্ন এলাকায় আটকে পড়েছিলেন। দুই দেশের সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের যোগাযোগের মাধ্যমে আবেদন করা এই নাগরিকদের বিশেষ ব্যবস্থায় নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়। এর আগে এসব নাগরিক নিজ দেশের দূতাবাসের মাধ্যমে দেশে ফিরে আসার জন্য আবেদন করেছিলেন।

এ সময় বিজিবি, ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস এর দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

তামাবিল স্থলবন্দরে নিয়োজিত মেডিকেল টিমের দায়িত্বে থাকা গোয়াইনঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. রাশেদুল ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার ভারত থেকে দেশে ফেরা ৪ বাংলাদেশি নাগরিক তামাবিল ইমিগ্রেশন হয়ে দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশের পর প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষায় করে  তাদের মধ্যে করোনাভাইরাসের কোনো উপসর্গের উপস্থিতি মেলেনি। তারা সকলেই শারীরিকভাবে সুস্থ রয়েছেন। তারপরও সবাইকে হোম কোয়ারেন্টিনে অবস্থান করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে তামাবিল স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশের ইনচার্জ (এসআই) মওদুদ আহমেদ রুমি বলেন, স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন কার্যক্রম প্রায় দুই মাস ধরে বন্ধ রয়েছে। তবে গত ২ মে ১ নারীসহ ১১ বাংলাদেশি দেশে ফিরেন। এর প্রায় মাসখানেক পর ভারতে আটকে পড়া বাংলাদেশিদের দেশে ফিরিয়ে আনা এবং বাংলাদেশে থাকা ভারতের নাগরিকদের ফেরত পাঠানো হয়েছে। দুই দেশের উচ্চ পর্যায়ের যোগাযোগের মাধ্যমে এ কাজ সম্পাদন করা হয়েছে। দেশে ফেরত আসা বাংলাদেশিদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে  বাড়ি যাওয়ার সুযোগ করে দেয়া হয়।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.