সংবাদ শিরোনাম
প্রথমে ভুয়া সেনাবাহিনীর লোক পরিচয়ে জেল:এবার ইনাতগঞ্জে সিআইডি পরিচয়ে আটক  » «   গোলাপগঞ্জে ঘরের মধ্যে একটি বিষধর সাপের কামড়ে শিশুর মৃত্যু  » «   সৎ ও সুন্দর ভাবে ব্যবসা করলে জীবনে প্রতিষ্ঠাপাওয়া সম্ভব-মেয়র আরিফ   » «   জঙ্গিদের টার্গেট ছিল হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার  » «   সিলেটে জঙ্গিদের ট্রেনিং সেন্টার সহ দুটি বাসায় অভিযান, বোমা তৈরীর সরঞ্জাম উদ্ধার  » «   নগরীর মদিনা মার্কেট এলাকা থেকে ৪ অপহরণ ও চাঁদাবাজকারী আটক  » «   সুনামগঞ্জের প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আলাদা একটা দৃষ্টি আছে -পানি মন্ত্রনালয়ের সচিব   » «   জগন্নাথপুরে পুলিশ সদস্য সহ আরোও তিনজন করোনায় আক্রান্ত: মোট আক্রান্ত ১১৯  » «   জগন্নাথপুরে দুর্ধর্ষ চুরি নগদ ৬লক্ষ টাকা সহ ৪ভরি সোনা নিয়ে গেছে চোরেরা  » «   জগন্নাথপুরে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে কাপড়ের দোকানে ঢুকে পড়ল ট্রলি  » «   গোলাপগঞ্জে গাঁজাসহ এক তরুণীকে আটক  » «   নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিন আজ শেষ দিন:আগামী কাল থেকে বন্ধ  » «   এক অপরাধীর পরিবর্তে টাকার বিনিময়ে কারাগারে আরেক আসামী  » «   জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত আসামীসহ গ্রেফতার-৬  » «   ওসমানীনগরের বেগমপুর-জগন্নাথপুর সড়ক মরণ ফাঁদ:জনদুর্ভোগ চরমে  » «  

কানাইঘাটে নিখোজের ১৪ দিন পর জামাল উদ্ধার

কানাইঘাট প্রতিনিধি::সিলেটের কানাইঘাটে নিখোজের ১৪ দিন পর শাহ জামাল নামের এক ব্যাক্তিকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে উপজেলার সাতবাঁক ইউপি’র পশ্চিম জুলাই পিরনগর গ্রামের ফয়জুর রহমানের পুত্র। গতকাল বৃহস্পতিবার তাকে সীমান্তবতর্ী লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপি’র বড়খেওড় গ্রামে তার বোনের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়। জানা যায় গত ১৮ জুন সে স্থানীয় বাংলা বাজার থেকে নিখোজ হয়। নিখোজের পর তার ছোট ভাই রফিক আহমদ বাদী হয়ে কানাইঘাট থানায় সাধারন ডায়রী করেন। ডায়রী নং ১০৩৫। ঐদিন নিখোজ জামালের পরিবারের দাবী ছিল তাকে অপহরন করা হতে পারে। এমনকি এ সময় তারা গ্রামের কয়েকজন লোককে ইঙ্গিত করে বলেন ওদের সাথে তাদের পূর্ব শত্রুতা রয়েছে। জামালের পরিবারের এমন আচরণে গ্রামের ইঙ্গিত করা ঐসব লোকজন হতবাক হন। এবং তারা যে, এ কাজে জড়িত নয় এমন প্রমাণের জন্য চারীদিকে জামালের খোজ রাখতে শুরু করেন। একপর্যায়ে তারা জানতে পারেন জামাল তাদেরকে ফাঁসানোর জন্য আত্মগোপন করে তার বোনের বাড়িতে রয়েছে। পরে তারা বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করেন। এতে থানার এসআই পান্না লাল দেব একদল পুলিশ নিয়ে বৃহস্পতিবার তার বোনের বাড়ি সীমান্তবতর্ী লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপি’র বড়খেওড় গ্রাম থেকে শাহ জামালকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। সেখানে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে সে তার নিখোজের কোন সৎ উত্তর দিতে পারেনি। পরে তার ছোট ভাই রফিক আহমদ মুসলেকা দিয়ে পূর্বের জিডি প্রত্যাহার করে নেয়। এবং এ ধরনের ঘটনার পূর্ণরাবৃত্তি না হওয়ার জন্য আরেকটি সাধারন ডায়রী করে জামালকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় সম্প্রতি গ্রামের কয়েকজন মানুষের সাথে জমি সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জামালের নানা ঝামেলা রয়েছে। বিধায় তাদের ফাসাঁনো জন্য সে নিজে আত্মগোপন করে হয়তো অপরহণের নাটক সাজাতে চেয়েছিল। এ সময় কয়েকজন প্রতিবেশী জানান জামাল উদ্দিন নামের ঐ ব্যাক্তি ছোট বেলা থেকে বখাটেপনা ছিল। পাড়ার মানুষের সাথে সব সময় তার কারনে অ-কারনে ঝামেলা লেগেই থাকে। এমনকি তার নানা কু-কর্মের কারনে গ্রামের মানুষ তাকে বয়কটও করেন। এর কারন খুজতে গিয়ে জানা যায় জামাল ইতিমধ্যে ৭টি বিয়ে করেছে। সর্ব শেষ ১ সন্তানের জননীকে পরকীয়ার মাধ্যমে পালিয়ে নিয়ে বিয়ে করায় তাকে প্রায় অঘোষিত ভাবে সমাজচুক্ত করা হয়। এ ছাড়াও জামাল উদ্দিন থানা ও আদালত মিলিয়ে প্রায় ১০টি মামলার বাদী ও আসামী। এর মধ্যে তিনি বর্তমানে সুরুজ আলী হত্যার মামলার আসামী হিসাবে জামিনে রয়েছেন। এ ব্যাপারে শাহ জামালের সাথে কথা হলে তিনি কোন সৎ উত্তর দিতে পারেননি।

 

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.