সংবাদ শিরোনাম
নারী সব পারে:মাত্র দু’দিনে নাতনিকে কোলে নিয়ে নানী,হাতে কলম নিয়ে পরিক্ষায় সেই মা  » «   নগরীর ঘাসিটুলা মোকামবাড়ী এলাকা থেকে গাঁজার চালানসহ মাদক ব্যবসায়ি আটক  » «   জগন্নাথপুরে চোলাইমদ সহ আটক ১  » «   জগন্নাথপুর উপজেলা ও পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মীসভা অনুষ্টিত  » «   জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল এর সাথে এ কেমন শুত্রুতা: আগুনে পুড়িয়ে দিল দুবৃত্তরা !!  » «   ওসমানীনগরে শিশুর ঝুলন্ত লাশ নিয়ে রহস্য  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১০ কোটি ছাড়িয়েছে  » «   যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম মুসলিম অ্যাটর্নি হচ্ছেন সায়মা  » «   ৭ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে টিকাদান কর্মসূচি শুরু: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  » «   শায়েস্তাগঞ্জে ঘরে ঢুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ  » «   ‘এক সময় পোশাক কেনার টাকা ছিল না’  » «   এসএসসির সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ  » «   না ফেরার দেশে চলে গেলেন জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান বিজ্ঞানী প্রফেসর ড.শাহজাহান   » «   নগরীরতে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে যে সব এলাকায়  » «   ওসমানীনগরে তিন চোরকে ধরে পুলিশে দিল ব্যবসায়ীরা  » «  

শেরপুরের ঐতিহ্যবাহী মাছের মেলায় করোনার হানা: হচ্ছে না আয়োজন

  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

শিপন আহমদ,ওসমানীনগর::করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সিলেট বিভাগের মিলনস্থ শেরপুরে এবছর জমে উঠছেনা ২শ বছরের ঐতিহ্যবাহী মাছের মেলা। বাঙালির সংস্কৃতিতে বারো মাসে তেরো পার্বনের একটি পার্বন পৌষ সংক্রান্তিকে ঘিরে প্রতিবছর সিলেট,হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলার মিলনস্থল ওসমানীনগরের সীমান্তবতর্ী মৌলভী বাজার সদর উপজেলার শেরপুরে কুশিয়ারা নদীর তীর ঘেষে প্রতি বছর তিনদিন ব্যাপী মাছের মেলার আয়োজন করা হলেও করোনা প্ররিস্থিতির মোকাবেলায় এব ভচর কোনো মেলার আয়োজন না করার জন্য মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।প্রতিবছর জেলা প্রশাসন কতর্ৃক দরপত্রের মাধ্যমে মেলার ইজারা প্রদান করা হলেও এ বছর জেলা প্রশাসন কাউকে ইজারাও প্রদান করেনি বলে জানা গেছে।

জানা যায়,সিলেট বিভাগের বৃহত্তর এ মাছের মেলাটি প্রায় দুই’শত বছর যাবৎ চলে আসছে। ‘মাঘের শীতে বাঘে কঁাপে’, সেই হাড় কঁাপানো শীতকে উপেক্ষা করে মেলাকে ঘিরে প্রতি বছর লক্ষাধিক ক্রেতা-বিক্রেতার সমাগমে উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করত শেরপুরে। মেলায় মৎস্য ব্যবসায়ীরা ঢালায় ঢালায় সাজিয়ে রাখতেন বিশাল আকারের মাছ। এর মধ্যে বাঘাই, বোয়াল, রুই, কাতলাসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ উল্লেখযোগ্য। মেলায় মাছ ক্রয় করতে সবাই না আসলেও অনেকেই আসছেন মাছ দেখতে। কালের বিবর্তনে বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া অনেক প্রজাতির মাছও এই মেলায় পাওয়া যেত। মেলাটি সনাতন ধর্মাবলম্বীর পৌষ সংক্রান্তি উপলক্ষে হলেও রুপ নিয়েছিল সার্বজনীন উৎসবে। এই মেলায় ছোট মাছ থেকে শুরু করে আড়াই’শ কেজি ওজনের মাছেরও দেখা মিলত। মাছগুলো মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার বিভিন্ন নদ-নদী,খাল, বিল এবং হাওড়ের থেকে শিকার করে এনে মেলায় বিক্রি করা হতো বলে জানান সংশ্লিষ্ট অনেকে। মেলাকে ঘিরে মৎস্য ব্যবসায়ীরা ১৫ দিন আগে থেকে মাছ মজুদ রেখে মেলায় আসার প্রস্তুতি নিতেন। পৌষ সংক্রান্তিকে সামনে রেখে হিন্দু ধর্মের সবাইকে মাছ কিনতে হবে এমন নিয়ম থাকলেও সেতু বন্ধনে আবদ্ধ থাকায় ভিন্ন ধর্মীরাও বড় বড় মাছ কিনতে পিছিয়ে থাকতো না। মেলাকে কেন্দ্র করে সবাই বড় মাছ কিনে আত্মীয়ের বাড়িতে উপহার পাঠাতেন। ফলে লোকদৃশ্যের বন্ধনে পরিণত হয়েছিন শেরপুরের ঐতিহ্যবাহী মাছের মেলা। মেলায় মাছ ছাড়াও গৃহস্থালী সামগ্রী, হস্ত শিল্প, গ্রামীণ ঐতিহ্যবাহী পণ্য, খেলনা সামগ্রী, নানা জাতের দেশীয় খাবারের দোকান, কাঠের তৈরী ফার্নিচার এবং সব ধরণের পণ্য পাওয়া যেত। মেলায় সস্তা দরে জিনিষপত্র ক্রয় করতে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ক্রেতা-বিক্রেতারা ছুটে আসতেন এখানে।সব মিলিয়ে মেলাকে ঘিরে এলাকায় মাসব্যাপী সাজ সাজ রব শুরু হতো। এবার করোনার কারনে এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের ঐতিহ্যে বঁাধা পড়ছে। ফলে ব্যবসায়ীদের মধ্যেও নেই কোনো প্রতিযোগিতা। নিরব রয়েছেন স্থানীয়রা।

মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান বলেন,করোনাকালীন সময়ে বাড়তি সর্তকতার কারণে এ বছর ঐতিহ্যবাহী  মাছের মেলাটি হচ্ছে না। তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তা সংশ্লিষ্টদের সাথে আলোচনা করে পরবর্তী কোনো এক সময় যদি সম্ভব হয় তাহলে হয়তো মেলার করা যেতে পারে। ঐতিহ্যের কারণে এমনটি বিবেচনায় রাখছেন বলে জানান তিনি।


  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.