সংবাদ শিরোনাম
নগরীর ঘাষিটুলা কলাপাড়া এলাকায় মা-ছেলের মৃত্যু  » «   দিরাইয়ের উদির হাওর বিলে বাধঁ দেয়া নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত,৪০ জন আহত  » «   রাষ্ট্র ধর্ম নিয়ে তথ্য প্রতিমন্ত্রীর মন্তব্যের কড়া জবাব দিলেন সাঈদ খোকন  » «   শান্তিগঞ্জে জয়কলস গ্রামে প্রতিপক্ষের রামদার কোপে একজন নিহত,একজন আহত  » «   পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের এই বছরের প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বাতিল  » «   সিলেটে দুই কেন্দ্রে গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে ৮ হাজার শিক্ষার্থী  » «   সিলেটে আজ মনোনয়নপত্র দাখিল করছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা  » «   জননেত্রী শেখ হাসিনা একজন স্ট্রং ক্লাইমেট ফাইটার- পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি  » «   অনুসন্ধান কল্যান সোসাইটি সিলেট এর সভা অনুষ্টিত  » «   কুমিল্লার ঘটনায় জকিগঞ্জে পুলিশ ও বিক্ষুব্ধ জনতার সংঘর্ষ:পুলিশসহ অন্তত অর্ধশত আহত  » «   তৃতীয় ধাপে ইউপি ও পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা  » «   সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জে যাত্রীবাহি বাসের ধাক্কায় তিন মোটর সাইকেল আরোহী নিহত  » «   নগরীর বনকলাপাড়া এলাকায় ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগিয়ে এক তরুনের আত্মহত্যা  » «   শারদীয় দুর্গাপূজায় সিলেট বিভাগীয় অনলাইন প্রেসক্লাবের শুভেচ্ছা  » «   সিলেট নগরীতে ছাত্রলীগের কমিটি প্রত্যাখান করে বিক্ষোভ মিছিল  » «  

দোয়ারায় বাবার লাশ ঘরে রেখে চিকিৎসা নিতে গিয়ে লাঞ্চিত হলেন ডাক্তারের কাছে রোগী ও স্বজন’রা

ছবি ডা.সিফাত আরা সামরিন

দোয়ারাবাজার সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::বাবার লাশ ঘরে রেখে চিকিৎসা নিতে গিয়ে ডাক্তারের কাছে লাঞ্চিত হবার খবর পাওয়া গেছে।

সুনামগঞ্জের য়ারাবাজারে ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা সেবা চাওয়ায় রোগীর এক স্বজনকে লাঞ্চিত করার অভিযোগ ওঠেছে দোয়ারাবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমওর দায়িত্বে থাকা ডাঃ সিফাত আরা সামরিনের বিরুদ্ধে।

ঘটনাসূত্রে জানা যায়, (২ অক্টোবর) শনিবার ভোর ৫ টায় দোয়ারাবাজার উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের টেংরাটিলা (আজবপুর) গ্রামের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদ বীরপ্রতীক মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুর খবর পেয়ে শোকে ভেঙ্গে পড়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন তাঁর বড় ছেলে মেজবাউল গণি সুমন। অজ্ঞান অবস্থায় সুমনকে চিকিৎসা দিতে তাৎক্ষণিক ভাবে সকাল সাড়ে নয়টার দিকে দোয়ারাবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন তার স্বজনরা। এসময় হাসপাতালের জরুরী বিভাগে কোনো ডাক্তার না পেয়ে রোগীকে হাসপাতালের আরএমওর দায়িত্বে থাকা ডাঃ সিফাত আরা সামরিনের কোয়ার্টারে নিচে নিয়ে যাওয়া হয়। এসময় ডাক্তার সিফাত আরার কাছে চিকিৎসা সেবা চাইলে সেবার বদলে উল্টো রোগী ও রোগীর স্বজনদেরকে তিরষ্কার করে বের করে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। পরে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার হাসান মাহমুদের কাছ থেকে সেবা নিয়ে বাড়িতে ফেরেন বীরপ্রতীকের ছেলে মেজবাউল গনি সুমন।

রোগীর সাথে থাকা স্বজন সদ্য প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদ বীর প্রতীকের ভাগ্নী শাহানা আক্তার কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে বলেন, ‘ সামরিন মেডামের বাসায় গেছি, উনি বেডরুমে আছে, আমি উনাকে সালাম দিয়ে যখন বললাম হাসপাতাল কোনো ডাক্তার নাই, আমি বীরপ্রতীক আব্দুল মজিদের বড় ছেলেকে নিয়ে আসছি, বীরপ্রতীক মহোদয় মারা গেছেন, উনার ছেলের অবস্থা খুব খারাপ, এই মুহুর্তে একটু ট্রিটমেন্টের দরকার।’ একথা বলার পরপরি ডাক্তার সিফাত আরা সামরিন আমাকে বলেন, ‘বেরিয়ে যা, বেরিয়ে যা, এখানে কেন আসছিস। আমি বীরপ্রতীককে চিনিনা’

এসময় রুমে থাকা এক মহিলাকে বলছে, ‘ওরে ঘাড় ধইরা বের কইরা দরজা বন্ধ করে দে, অফিস টাইম এখন না, বেরিয়ে যা, বেরিয়ে যা আমার বাসাথেকে।’

শাহানা আক্তার বলেন, ‘এই ডাক্তারের খারাপ আচরণের সুষ্ঠু বিচার চাই আমি। এখানে ডাক্তাররা যেভাবে অবহেলা করে তা বলার মতো না।’

বীরপ্রতীকে ছেলে রোগী মেজবাউল গণি বলেন, ‘আমার আব্বা মারা যাওয়ার পরে আমি অসুস্থ হয়ে যাই। আমার আত্মীয় স্বজনেরা আমাকে অসুস্থ অবস্থায় হসপাতালে নিয়াযায়। হাসপাতালে পৌচার পরদেখি জরুরী ভিবাগে কোন চিকিৎসক নেই এর পর আমার স্বজনেরা ডা.সিফাত আরা সারমিনের বাসায় নিয়া যান। উনার বাসায় থাকা একজন মহিলাকে বলেন, আমাদেরকে বের করে দেয়ারজন্য। ডাক্তার আমার ফুফাতো বোনের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে আমার অনুরোধ, রোগীরা যাতে কোনো ডাক্তারের কাছ থেকে এরকম কোনো ব্যবহার না পায়।

এবিষয়ে জানতে চাইলে দোয়ারাবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও ডাঃ সিফাত আর সামরিন প্রতিবেদককে বলেন, ‘আমি ৭ দিন ধরে ছুটিতে আছি। আমার বাসার হাউজ কিপারকে নির্দেশ দেওয়া আছে বাসায় যাতে কাউকে ডুকতে না দেওয়া হয়। সকালে আমার বেডরুমে একজন ডুকে পরলে আমি আমার হাউজ কিপারকে একটু বকাঝকা করছি। রোগীর সাথে খারাপ ব্যবহার করিনি।’

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সফর আলী বলেন, ‘চিকিৎসা সেবা চাইতে গিয়ে যদি ডাক্তার কর্তৃক মুক্তিযোদ্ধা সন্তান লাঞ্চিত হবার খবর শুনতেহয় তাহলে আমরা কোথায় যাব। এধরণের আচরণের খবর শুনে মর্মাহত হয়েছি। আমরা বঙ্গবন্ধু ডাকে সাড়া দিয়ে জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করলাম। এই দেশে আমাদের সন্তান অযথা লাঞ্চিত হবে তা হতে দেবনা। প্রয়োজনে মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে আবার মাঠে নামব।’

যোগাযোগ করা হলে সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ শামস উদ্দিন বলেন, ‘বিষয়টি ইতোমধ্যে জানতে পেরেছি।  এব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.