সংবাদ শিরোনাম
শাবিপ্রবি-তে গভীর রাতে ড.জাফর ইকবাল :অনশন ভাঙলেও আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা  » «   আমরণ অনশন ভাঙতে রাজী হন নি শাবিপ্রবির শিক্ষার্থী-আন্দোলন অব্যাহত  » «   বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্নের পর এবার শাবিপ্রবির ভিসির বাসভবনে খাবার ও ঔষধ পাঠাতে দিচ্ছে না আন্দোলনকারীরা  » «   হবিগঞ্জ আদালতের ২৮ জন বিচারকের মধ্যে ১০জনই করোনা আক্রান্ত!  » «   একদফা দাবিতে অনড় শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা-ভিসি’র বাসভবনের বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ  » «   শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মৃত্যুর পথে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী”রা  » «   ছাতকে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত-২, গ্রেফতার-১  » «    যারা সন্ত্রাসকে পছন্দ করে তারাই র‌্যাবের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করে.সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   ১৫০ পরিবারের মধ্যে চাউল বিতরণ করল অনুসন্ধান কল্যাণ সোসাইটি  » «   অবৈধ বালু উত্তোলনের দায়ে দোয়ারাবাজারে,৭ শ্রমিককে কারাদণ্ড  » «   সিলেটের পথ শিশুরা ড্যান্ডিতে আশক্ত  » «   আমরণ অনশনে শাবি শিক্ষার্থীরা:সরকারি সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় ভিসি  » «   ভিসি’র পদত্যাগ না হলে আন্দোলন চলবে:শাবিপ্রবির আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা  » «   ওসমানীনগরে সংঘর্ষে আহত ১২,পাল্টাপাল্টি মামলা  » «   আখালিয়ায় ফার্মেসীতে সন্ত্রাসী হামলায় আহত ১, লুট  » «  

সিলেটে আসছে শীত বদলে যাচ্ছে তাপমাত্রা-কাপড়ের দোকানে ক্রেতাদের ভিড়

শেখ মোঃ লুৎফুর রহমান::প্রকৃতিতে এখন পুরোপুরি জেঁকে বসেছে শীত। সারা দিন রোদের রাজত্ব শেষে সন্ধ্যা নামতেই বদলে যাচ্ছে তাপমাত্রা। সন্ধ্যা ও ভোরের দিকে চাদর বিছিয়ে দিচ্ছে কুয়াশা।

এমন বাস্তবতায় সিলেট নগরীরতে পুরাতন কাপড়ের দোকানে ক্রেতাদের ভিড়। এখানে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে কেনা-বেচা। এসব দোকানে নিজেদের সাধ্যের ভেতর পণ্য পেয়ে খুশি ক্রেতারা। অন্যদিকে স্বল্প পুঁজিতে অধিক লাভে হাসি ফুটছে বিক্রেতাদের মুখেও।

সরেজমিনে দেখা যায়, শীত উপলক্ষে সিলেট নগরীর  বন্দর বাজার,আম্বরখানা, নিউ হকার্স মার্কেটসহ নগরের  বিভিন্ন বাজারগুলোতে বসেছে পুরোনো কাপড়ের ভ্রাম্যমাণ দোকান। এসব দোকানে ভিড় করছেন নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষ।

বন্দর বাজার মধুবন মার্কেট এর পাশে এক গলিতে ও নিউ হকার্স মার্কেটের প্রায় সব দোকানেই কম-বেশি উঠেছে শীতের  কাপড় । ক্রেতাদের পছন্দের ওপর ভিত্তি করে বিক্রেতারা সাজিয়েছেন পসরা। উলের তৈরি সোয়েটার, ব্লেজার, জ্যাকেট, চাদর, মাফলার, টুপি কিংবা হাতমোজা সবই মিলছে এখানে। শীতের প্রকোপ থেকে বাঁচতে গরম কাপড়ের কেনাকাটার ধুম ফুটপাতের দোকান গুলোতে।

হকার্স মার্কেটে ছেলেদের সোয়েটার ৫০ থেকে ৪শ টাকা, ছেলেদের জ্যাকেট ১৫০ থেকে ৫শ টাকা,মেয়েদের সোয়েটারের দাম মানভেদে ১শ থেকে ৪৫০ টাকা, বাচ্চাদের সোয়েটার ৩০ থেকে ৩৫০ টাকা, হাতের মোজা ১০ থেকে ৪০ টাকা। এ ছাড়া এখানে মানভেদে সাধারণ টুপি ২০ থেকে ৫০ টাকা ও মাফলার ৩০ থেকে ৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। শীতের কাপড়ের পাশাপাশি বিক্রি বেড়েছে কম্বলের। কম্বলের দাম ১২০টাকা থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছে।

বন্দর বাজারের এক ব্যবসায়ী জানান, শীত আসার আগে এই দোকানে পুরাতন শার্ট-প্যান্ট ও টি-শার্ট বিক্রি হতো। কিন্তু শীতের সময় আমরা শীতের গরম কাপড় বিক্রি শুরু করি। দামে সস্তা হওয়ায় নিম্নবিত্ত মধ্যবিত্ত ক্রেতাদের সংখ্যা বেশি।

নিউ হকার্স মার্কেট এর আরও এক কাপড় এর ব্যবসায়ী জানান, গত বছরের তুলনায় এবার গরম কাপড়ের দাম পিস প্রতি ২০-৫০ টাকা বেড়েছে বলে বিক্রেতারা জানান। কারণ হিসেবে জানিয়েছেন, বছরজুড়ে করোনাভাইরাসের প্রভাব থাকায় কিছুটা দাম বেড়েছে।

নিউ হকার্স মার্কেট ও ভ্রাম্যমাণ কাপড়ের দোকানে আসা কয়েকজন ক্রেতার কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, পুরাতন এসব শীতের দোকানগুলোতে সাধ্যের ভিতর অনেক ভালো মানের জ্যাকেট, চাদর, সুইটার, কম্বলসহ পোশাক পাওয়া যাচ্ছে। যাতে আমাদের খরচ কম হয়। তাই সাধ্যের মধ্যে এখান থেকেই ভালো কিছু কেনার চেষ্টা করছি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.