সংবাদ শিরোনাম
দোয়ারাবাজারে কেন্দ্র ফি’র নামে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়  » «   তাহিরপুরে বিদ্যালয়ের আয়-ব্যয়ের হিসাব দিতে প্রধান শিক্ষকের টালবাহানা   » «   দোয়ারাবাজারে সরকারি ভাতা দেওয়ার নামে প্রতারণা, প্রতারককে জরিমানা  » «   মৌলভীবাজারের জুড়িতে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামিসহ দুইজন গ্রেফতার  » «   দোয়ারাবাজারে বিদেশী মদের চালানসহ মাদক কারবারি আটক  » «   সুনামগঞ্জের তিন উপজেলার ১৫টি স্পটে চলছে সহশ্রাধিক অবৈধ ক্রাশার মেশিনের তান্ডব  » «   সুনামগঞ্জে পিতা ও কন্যার উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের  » «   সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে স্কুল ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার  » «   সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে অজ্ঞাত বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার  » «   নবীগঞ্জে যুদ্বাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা ফিরোজ মিয়া আমাদের মধ্যে আর নেই! রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাপন  » «   জুড়ীতে ফেনসিডিল ও ইয়াবাসহ আটক ১  » «   ছাতকে আবুল হোসেনকে পরিকল্পিত হত্যা নাকি অন্য কারণ?প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করার অপচেষ্টা   » «   দোয়ারাবাজারে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বরখাস্ত   » «   তাহিরপুরে রাতের আঁধারে কৃষকের জমির ধান কেটে নিল প্রতিপক্ষের লাঠিয়াল বাহিনী   » «   ঢাকা- সিলেট মহাসড়কে অ্যাম্বুলেন্স ও সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষ আহত ৭, আশংখাজনক ভাবে ৫জনকে সিলেট প্রেরন  » «  

১১ বছরের বালক মারা গেলেন, বাঁচিয়ে গেলেন অনেককে

15সিলেট পোস্ট রিপোর্ট : তাঁর জীবনের শেষ ইচ্ছা দেহের সব অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান করে দিয়ে যাবে। ১১ বছরের বালক লিয়াঙ ইয়োই ব্রেন টিউমারে ভুগছিলেন। সে ডাক্তারদেরকে অনুরোধ করেছিল জীবনের শেষ মুহূর্তে তার এই স্বপ্ন পূরণ করা হয়। গত বছর ৬ জুন মারা যায় লিয়াঙ। ছবিতে দেখা যায় ডাক্তাররা মাথানত করে শ্রদ্ধা জানাচ্ছে লিয়াঙকে। মরদেহের ঠিক পিছনে তাঁর মা কান্নায় ভেঙে পড়েছেন। আর এই ছবি এখনও স্যোশাল মিডিয়ায় জনপ্রিয় হয়ে রয়েছে।

নয় বছর বয়সে লিয়াঙ ইয়োইর ব্রেন টিউমর ধরা পড়ে। চীনের শেনজহেন শহরে প্রাইমারি স্কুলে পড়ত লিয়াঙ। হঠাতই একদিন মাথা যন্ত্রণা শুরু হয়। হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। যেদিন সে জানতে পারে আর বাঁচবে না। লিয়াঙ সিদ্ধান্ত নেন, তাঁর শরীরের সব অঙ্গপ্রতঙ্গ বন্ধুদের দান করে যাবে। সিসিটিভি নিউজ সূত্রে জানা যায়, লিয়াঙ চেয়েছিল, “এইভাবে আমি সবার শরীরে বেঁচে থাকব।”

তবে লিয়াঙের এমন সিদ্ধান্তে অবাক হয়েছিল তাঁর পরিবার ও স্কুলে মাস্টারমশাইরা। লিয়াঙের এক মাস্টারমশাই জানান, সে স্কুলের পড়ার বইয়ে শরীর দান করার অনেক গল্প পড়েছিল। সেখান থেকেই অনুপ্রাণিত হয়েছে লিয়াঙ। লিয়াঙের মা তাঁর সিদ্ধান্তকে সম্মান জানিয়ে ডাক্তারকে অনুমুতি দেয়। তার কথা মত কিডনি, যকৃত সংরক্ষণ করে রাখা হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.