সংবাদ শিরোনাম
দোয়ারাবাজারে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে সংঘর্ষ, আহত ৬  » «   সিলেটের ওসমানীনগরে চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধার, আটক ১  » «   দেশে আধুনিক ক্রীড়ার রূপকার ছিলেন শহীদ শেখ কামাল: প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   দক্ষিণ সুরমায় মেয়েকে ফিরে পেতে এক পিতার আকুতি  » «   বানারীপাড়ায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক দূর্দান্ত প্রতারক রঞ্জন গ্রেফতার  » «   দক্ষিন সুরমার সুলতানপুর-গহরপুর সড়কে দুর্ঘটনায় নিহত ৩  » «   সাংবাদিক অজয় পালের প্রতিকৃতিতে সিলেটের সর্বস্থরের নাগরিকদের শ্রদ্ধা নিবেদন  » «   ঐতিহ্যবাহী ‘মাছের মেলা’ শেরপুরে হাজারো মানুষের ঢল  » «   দক্ষিণ সুমরার বাইপাস এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত  » «   আমাদের দেশের শিক্ষার্থীরা আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন হয়ে গড়ে উঠছে: মন্ত্রী ইমরান  » «   আওয়ামীলীগের বিদায় নিশ্চিত করে দেশে জনগণের সরকার প্রতিষ্টা করতে হবে :কাইয়ুম চৌধুরী  » «   অবকাঠামো উন্নয়ন এর মাধ্যমে দেশ গড়ার কাজ করতে হবে-প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ  » «   ছাতকে অধ্যক্ষ অপসারণের দাবীতে সড়ক অবরোধ করেছে ছাত্রলীগ  » «   দোয়ারাবাজারে বিজিবি’র অভিযানে চৌদ্দ লক্ষ টাকা উদ্ধার  » «   দোয়ারাবাজারে চিলাই নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন! ২টিড্রেজার মেশিনসহ বালু জব্দ  » «  

সাক্ষ্যগ্রহণ জটিলতায় দীর্ঘসূত্রিতার ফাঁদে কিবরিয়া হত্যা মামলা

99সিলেটপোস্ট রিপোর্ট :সাক্ষ্যগ্রহণ জটিলতায় সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলার বিচার কাজে দীর্ঘসূত্রিতা দেখা দিয়েছে। আদালতে সাক্ষী হাজির হলে অনুপস্থিত থাকছেন কারান্তরিণ আসামী। পর্যাপ্ত পরিমাণ আসামী আদালতে হাজির না হলে বিধি অনুযায়ী সাক্ষ্যগ্রহণ থেকে বিরত থাকছেন বিচারক। ফলে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করেও মামলার বিচারকার্যে গতি আসছে না। বুধবারও নির্ধারিত তারিখে মামলাটির সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি। সাক্ষী হাজির না থাকায় এবং আদালতে পর্যাপ্ত আসামি অনুপস্থিত থাকায় আদালতের বিচারক সাক্ষ্যগ্রহণ করেননি।মামলায় মোট ১৭১ জনের সাক্ষ্যগ্রহণের কথা থাকলেও গত প্রায় দুই মাসে মাত্র ১০ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ সম্ভব হয়েছে। এই ১০ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করতে ৯ বার তারিখ পেছাতে হয়েছে।২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জের বৈদ্যের বাজারে আওয়ামী লীগের জনসভায় গ্রেণেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া নিহত হন। ওই হামলায় আরও নিহত হন তার কিবরিয়ার ভাতিজা শাহ মনজুরুল হুদা, আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রহিম, আবুল হোসেন ও সিদ্দিক আলী। এ ঘটনায় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আবদুল মজিদ খান বাদী হয়ে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা দায়ের করেন।হত্যাকান্ডের প্রায় ৯ বছর পর তিনদফা তদন্তকরে সিআইডির সিলেট অঞ্চলের সহকারী পুলিশ সুপার মেহেরুন নেছা পারুল ২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র জি কে গউছ এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীসহ ১১ জনের নাম যোগ করে মোট ৩২ জনের বিরুদ্ধে সম্পূরক অভিযোগপত্র দেন। হবিগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ মো. আতাবুল্লাহ মামলাটি বিচারের জন্য গত ১১ জুন সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠিয়ে দেন। কয়েক দফা পেছানোর পর গত ১৩ সেপ্টেম্বর সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে মামলার বিচারকার্য শুরু হয়। গত ৩০ সেপ্টেম্বর মামলার বাদি হবিগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য ও হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ খানের সাক্ষ্যগ্রহণের মধ্য দিয়ে এ মামলার স্বাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত ওই মামলায় বাদিসহ মোট ১০ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। সাক্ষ্যগ্রহণের বিভিন্ন ধার্য্য তারিখে কখনো কারান্তরিণ ১৪ আসামির বেশিরভাগ অনুপস্থিত, আবার কখনো সাক্ষীরা অনুপস্থিত থাকায় আজ বুধবারসহ মোট ৯ বার সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ পেছানো হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.