সংবাদ শিরোনাম
শাওন হত্যার প্রতিবাদে সিলেটে যুবদলের বিক্ষোভ  » «   পার্কিং ট্রাকের পিছনে প্রাইভেট কারের ধাক্কা সুনামগঞ্জ -সিলেট মহাসড়কে নিহত ১ আহত ২  » «   জামালগঞ্জে নৌ দুর্ঘটনায় নিখোঁজের ২২ ঘন্টা পর ২ জনের মরদেহ উদ্বার  » «   জালিম সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত ঘরে ফিরে যাব না : কাইয়ুম চৌধুরী  » «   মুন্সীগঞ্জে শান্তিপূর্ণ সমাবেশে হামলায় সিলেটে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল  » «   দোয়ারাবাজারে হাওর থেকে বৃদ্ধের মৃতদেহ উদ্ধার  » «   ৪ মেয়ে জন্ম দেওয়ায় স্বামীর নির্যাতনে গৃহবধূর আত্মহত্যার ঘটনায় স্বামী কারাগারে  » «   আওয়ামীলীগ সরকার গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না : কাইয়ুম চৌধুরী  » «   নবীগঞ্জে নিখোঁজের ২দিন পর বিবিয়ানা নদী থেকে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার  » «   শাল্লায় মেম্বার ও চেয়ারম্যান কর্তৃক শালিশের নামে কিশোরীকে ধর্ষণ  » «   গ্রাহকের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে উল্টো মামলায় গ্রেফতার করে হয়রানির প্রতিবাদে মানববন্ধন  » «   জৈন্তাপুরে বালু ভর্তি ট্রাক আটক:১ মাসের ব্যাবধানে ২ ট্রাক ভারতীয় কসমেটিকস জব্দ-আটক-১  » «   নবীগঞ্জে কবরস্থান ও সরকারি রাস্তা জোর পূর্বক দখল: হত্যার হুমকি, অভিযোগ দায়ের  » «   দোয়ারাবাজারে ১১ বছরের শিশু ধর্ষণ মামলার আসামি গ্রেফতার  » «   নবীগঞ্জ সরকারী হাসপাতালের গাছ বিক্রি’র নিলামে অনিয়ম! ১৫ লাখ টাকার গাছ ২ লাখ টাকায় বিক্রি!  » «  

কাজের অস্তিত্ব নেই, ভুয়া রশিদে ১৮ লাখ টাকা আত্মসাত

17সিলেটপোস্ট রিপোর্ট :বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) ছেলেদের একটি আবাসিক হলে কাজ না করেই ভুয়া রশিদ দেখিয়ে প্রায় ১৮ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

সম্প্রতি ওই হলের বর্তমান প্রভোষ্ট তদন্তে গেলে এর সত্যতার প্রমাণ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে একটি অভিযোগ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বরাবর দাখিল করেন তিনি।

সংশ্লিষ্টসূত্রে জানা গেছে, ময়মনসিংহ শহরের মিতালী কনসালটিং ফার্মের মালিক শামসুল আলমকে ছেলেদের আবাসিক ঈশা খাঁ হলের সিভিল, স্যানিটারী ও বৈদ্যুতিক কাজ বাবদ ৫৭ লক্ষ ৭৩ হাজার ৯শ ১৭ টাকার কার্যাদেশ দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তন্মধ্যে বাস্তবে প্রায় আঠার লক্ষ টাকার কাজের কোন অস্তিত্বই নেই। তবে লিখিত রশিদ আছে। আবার বেশ কিছু ক্ষেত্রে সিডিউলে উল্লেখিত কাজের শতকরা ৫ ভাগেরও কম কাজ বাস্তবে সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া যে কাজগুলো সম্পন্ন করা হয়েছে সেখানেও অনেক নিম্নমানের জিনিষ দেয়া হয়েছে।

বৈদ্যুতিক শাখায় ইন্ডাস্ট্রিয়াল টাইপ ফ্লুরেসসেন্ট টিউব লাইট, কাট আউট, মেইন সুইচ দেয়ার কথা থাকলেও বাস্তবে এসব জিনিসের কোন অস্তিত্ব নেই বলে জানান ওই হলের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এছাড়া বিআরবি ব্র্যান্ড এর বৈদ্যুতিক পাখা সংযোজনের কথা থাকলেও লাগানো হয় খুবই নিন্মমানের পাখা। কিন্তু রশিদ করা হয় বিআরবি ব্র্যান্ড এর দাম অনুসারে। এমনকি বৈদ্যুতিক পাখা যতটা সংযোজন করার কথা ছিল তার থেকে মাত্র অর্ধেক বৈদ্যুতিক পাখা সংযোজন করা হয়। দরজার পাল্লা, চৌকাঠ মেরামতের কাজে ৮ লক্ষ ৫১ হাজার ৫২০ টাকার মাইল্ড স্টীল ব্যবহার করার কথা রশিদে উল্লেখ থাকলেও সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে হলের কোথাও এর কোন অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। হলের ভিতরে ও বাহিরে তিনস্তর বিশিষ্ট রং করার কথা থাকলেও মাত্র এক স্তর বিশিষ্ট রং করতে দেখেছেন হলের কর্মচারীরা। অথচ রং করার জন্য বরাদ্দ ছিল প্রায় ১০ লক্ষ টাকা। ২২০০ টাকা মূল্য মানের ৩০ টি বাথরুমের শাওয়ার হেড লাগানোর কথা থাকলেও তা লাগানো হয়নি। স্যানিটেশনের জন্য ৪ হাজার টাকা মূল্য মানের ৭টি পর্যবেক্ষন পিট এবং ৫০ হাজার টাকা মূল্যের একটি সেফটিক ট্যাংক স্থাপনের কথা থাকলেও খুজে পাওয়া যায় শুধু পুরাতন পিটগুলো। এছাড়া দেড় হাজার লিটার ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন ৮টি পানির ট্যাংক সংযোজনের কথা রশিদে উল্লেখ থাকলেও বাস্তবে আছে মাত্র ৩টি।

এদিকে আশ্চর্যের বিষয় হল, ওই হলের সাবেক প্রভোষ্ট অধ্যাপক ড. মো. রফিকুল আলমসহ সংশ্লিষ্ট কাজ তদারকি কমিটিতে থাকা প্রধান প্রকৌশলী মো.শাহীন ইসলাম খান, ফার্ম স্ট্রাকচার বিভাগের অধ্যাপক ড.মো. জয়নাল আবেদীন, নির্বাহী প্রকৌশলী (পূর্তক) মো. এনামুল হক, নির্বাহী প্রকৌশলী মো. তৌহিদুল ইসলাম, পানি সরবরাহ বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. মুনিরুজ্জামান হলের বিবিধ মেরামতি কাজ সিডিউল মোতাবেক সম্পন্ন হয়েছে বলে প্রত্যয়ণ পত্র দেয়। যোগাযোগ করা হলে ওই হলের সাবেক প্রভোষ্ট অধ্যাপক ড. মো. রফিকুল আলম সব দায়ভার তৎকালীন কমিটির উপর চাপান। যদিও তিনি উক্ত কাজের পর্যবেক্ষণ কমিটির প্রধান ছিলেন।

এছাড়াও তিনি দাবি করেন অধিকাংশ কাজে তার আগের হল প্রভোষ্ট অধ্যাপক ড. মো. নূরুল আবছার খানের সময়ে সম্পন্ন হয়েছে। তিনি আরো জানান, খোঁজ নিলে সব হলের অবস্থা প্রায় একই রকম পাওয়া যাবে। তবে অধ্যাপক ড. মো. নূরুল আবছার খান বলেন, আমার সময়ে কাজ অর্ধেক সম্পন্ন হয়েছিল। কিন্তু সব কাজ বুঝে নিয়েছিল অধ্যাপক ড. মো. রফিকুল আলম।

প্রধান প্রকৌশলী মো. শাহীন ইসলাম খান বলেন, কাজ সুষ্ঠুভাবে শেষ হয়েছিল বিধায় আমি প্রত্যয়ন পত্রে স্বাক্ষর করেছিলাম। যদি কাজে গড়মিল পাওয়া যেত তাহলে অভিযুক্তদের শাস্তি পেতে হতো। এমনকি ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে ‘ব্ল্যাক লিস্টেড’ করা হতো।

এ বিষয়ে মিতালী কনসালটিং ফার্মের মালিক শামসুল আলম বলেন, শিডিউল অনুযায়ি সব কাজ সম্পন্ন হয়েছিল বলেই তো আমাকে প্রত্যয়ন পত্র দেয়া হয়। বরং ৫ লক্ষ টাকা অতিরিক্ত কাজ করেছি। কিন্তু বাকি টাকা এখনো পাইনি।

একই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর জানান, বিষয়টি সম্পর্কে আমি ওয়াকিবহাল। তদন্ত করে ব্যবস্থা করা হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.