সংবাদ শিরোনাম
সিলেটে রাহাত খুনের ব্যবহৃত চাকুটি উদ্ধার করেছে সিআইডি  » «   চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ সুমন মিয়া’র মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত  » «   দক্ষিণ সুরমা কলেজছাত্র রাহাত হত্যা মামলার প্রধান আসামি সাদি কুষ্টিয়া থেকে গ্রেফতার  » «   হবিগঞ্জের মাধবপুরে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুজন নিহত  » «   খালেদা জিয়া আইসিইউতে  » «   আজ খুলে দেওয়া হয়েছে সিলেটের “শাবিপ্রবির” সকল আবাসিক হল  » «   সিলেটে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ:নিহত ১  » «   সিলেটে নির্মাণাধীন সেপটিক ট্যাংকে পরে নিহত ১ আহত আরেকজন  » «   সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট এবং দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে আওয়ামীলীগ সরকারকে পদত্যাগ জরুরী-মির্জা ফখরুল  » «   আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়-সিলেটে ফখরুল  » «   সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের ছয় লেন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   জগন্নাথপুরে বিষপানে মহিলার মৃত্যু  » «   ফেসবুকে ঈসলাম ও নবী মোহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য :দোয়ারাবাজারে হিন্দু যুবক আটক  » «   ঘোড়ায় চড়ে বর ও পালকিতে করে বউ ব্যতিক্রমী বিয়ের আয়োজন কুলাউড়ায়  » «   ভারতের কৈলাশহর কারাগারে মৌলভীবাজারের ২ সহোদর ফিরিয়ে আনতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা  » «  

বাহুবলে শিশু সুলতানাকে পালাক্রমে গণধর্ষণ !অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মৃত্যু-ঘাতক বাবলুর স্বীকারোক্তি

5সিলেটপোস্ট রিপোর্ট:বাহুবলে উপজেলায় আলোচিত চার শিশু হত্যাকান্ডের রেশ কাটতে না কাটতেই ফের নিখোঁজের তিন দিন পর শিশু সুলতানার ধান ক্ষেত থেকে লাশ উদ্ধার নিয়ে চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি হয়েছিল। পুলিশ শিশু সুলতানার লাশ উদ্ধারের পর ঘটনার সাথে জড়িত চার ঘাতককে আটক করে ডিবি পুলিশ। আটককৃত ঘাতক বাবলু গতকাল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাওসার আলমের আদালতে হত্যাকান্ডের এক লোমহর্ষক বর্ণনা দেয়। যা নিয়ে বাহুবলসহ জেলা জুড়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়। সর্বত্র চলছে আলোচনা ও সমালোচনার ঝড়। ঘাতক বাবলু উপজেলার হামিদনগর গ্রামের আছকির মিয়ার পুত্র। গতকাল রবিবার বিকেলে ডিবি পুলিশের এসআই সুদ্বিপ রায় ও আব্দুল করিমসহ একদল পুলিশ কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে তাকে হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ কাওছার আহমেদের আদালতে হাজির করলে এ স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করে। জানা যায়, গত ১৭ আগস্ট দুপুরে দোকানে যাওয়ার কথা বলে উত্তরসুর গ্রামের আফজল মিয়ার কন্যা স্থানীয় প্রাইমারী স্কুলের ৩য় শ্রেণীর ছাত্রী সুলতানা আক্তার (৯) বাড়ি থেকে বের হয়। এ সময় বাবুল, অলি মিয়া, মুগকান্দির সিজিল মিয়া, হামিদনগরের সিজিল, মুখলেছ, শামীম তাকে গামছা দিয়ে মুখ বেধেঁ তুলে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে ওইদিন রাতে বাবুলের বাড়িতে সকলে মিলে শিশু সুলতানাকে পালাক্রমে গণধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হলে সুলতানা মারা যায়। দুইদিন বাবুলের বাড়িতেই লাশটি লুকিয়ে রাখা হয়। পরে লাশ পচেঁ গন্ধ ছড়ালে ১৯ আগস্ট ধানক্ষেতে ফেলে দেয়ার সময় বাবুলের ভাবি দেখে ফেলে। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। সুলতানার স্বজনরা থানায় গিয়ে লাশটি সনাক্ত করেন। ঘাতক বাবুল তার স্বীকারোক্তিতে আরো জানায়, গত ইউপি নির্বাচনে বাবুলের ভাই এলাছ মিয়া ও সুলতানার চাচা মেম্বার পদে নির্বাচন করে। এতে দুইজনই পরাজিত হয়। আর এলাছ মিয়ার পরাজয়ের পেছনে সুলতানার চাচা ও পিতার হাত রয়েছে এমন ধারণায় সে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং ওই ঘটনা ঘটায়। এদিকে, নারকীয় এ হত্যাকান্ডের ঘটনা নিয়ে রবিবার রাতে হবিগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিং করা হয়। প্রেস ব্রিফিংয়ে উপরোক্ত কথা গুলো ঘাতক বাবলু আদালতে স্বীকার বলে বলে জানান এডিশনাল এসপি সামছুল আলম ভুইয়া। প্রেস ব্রিফিংয়ে এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, সহকারী পুলিশ সুপার সাজিদুর রহমান, সহকারী পুলিশ সুপার রাসেলুর রহমান রাসেল, সহকারী পুলিশ সুপার হেডকোয়ার্টার (মিডিয়া) সুদীপ্ত রায় প্রমুখ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.