সংবাদ শিরোনাম
সিলেটে রাহাত খুনের ব্যবহৃত চাকুটি উদ্ধার করেছে সিআইডি  » «   চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ সুমন মিয়া’র মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত  » «   দক্ষিণ সুরমা কলেজছাত্র রাহাত হত্যা মামলার প্রধান আসামি সাদি কুষ্টিয়া থেকে গ্রেফতার  » «   হবিগঞ্জের মাধবপুরে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুজন নিহত  » «   খালেদা জিয়া আইসিইউতে  » «   আজ খুলে দেওয়া হয়েছে সিলেটের “শাবিপ্রবির” সকল আবাসিক হল  » «   সিলেটে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ:নিহত ১  » «   সিলেটে নির্মাণাধীন সেপটিক ট্যাংকে পরে নিহত ১ আহত আরেকজন  » «   সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট এবং দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে আওয়ামীলীগ সরকারকে পদত্যাগ জরুরী-মির্জা ফখরুল  » «   আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়-সিলেটে ফখরুল  » «   সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের ছয় লেন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   জগন্নাথপুরে বিষপানে মহিলার মৃত্যু  » «   ফেসবুকে ঈসলাম ও নবী মোহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য :দোয়ারাবাজারে হিন্দু যুবক আটক  » «   ঘোড়ায় চড়ে বর ও পালকিতে করে বউ ব্যতিক্রমী বিয়ের আয়োজন কুলাউড়ায়  » «   ভারতের কৈলাশহর কারাগারে মৌলভীবাজারের ২ সহোদর ফিরিয়ে আনতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা  » «  

এমসি কলেজে বিশুদ্ধ পানি সংকট

6সিলেটপোস্ট রিপোর্ট:সুপ্রাচিন বিদ্যাপীঠ, সুনামধন্য প্রতিষ্টান, উচু-নিচু পাহাড় আর নান্দনিক পরিবেশে বিশাল ক্যাম্পাস, অভিজ্ঞ শিক্ষকদের পাঠদান, মেধাবীদের পদচারনায় মুখরিত এমসি কলেজে প্রাঙ্গনে জীবনের গুরুত্বপূর্ণ  উপাদান বিশুদ্ধ পানির চরম সংকট রয়েছে।কলেজের বিভিন্ন বিভাগ ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ বিভাগগুলোতে শিক্ষক থেকে শুরু করে শিক্ষার্থীরা পান করছেন বাজারজাতকৃত কথিত  নীল জারের ফিল্টারের পানি। বাজারজাতকৃত নীল জারের কথিত বিশুদ্ধ পানি কতটা নিরাপদ তা নিয়ে রয়েছে অনেক প্রশ্ন। কলেজের মধ্যে দুটি টিউবওয়েল থাকলেও উভয়টি এখন অচল অবস্থা পড়ে রয়েছে। যার ফলে বিভাগীয় প্রধানরা ছাত্রদের বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের জন্য নীল জারের ফিল্টারের পানির আশ্র্রয় গ্রহন করেছেন।কলেজের পুকুর পাড়ের ছড়ার পশ্চিমাংশে অবস্থিত কোন বিভাগে নেই ডিপ টিউবওয়েল ব্যাবস্থা। ছড়ার পূর্বাংশে প্রাণি ও উদ্ভিদ বিজ্ঞান এবং রসায়ন ও পদার্থ বিজ্ঞানের যৌথ উদ্যোগে দুটি ডিপ টিউবওয়েল স্থাপনের মাধ্যমে চারটি বিভাগের শিক্ষক/ শিক্ষিকাবৃন্দ, শিক্ষাথী, কর্মচারীরা  বিশুদ্ধ পানি গ্রহনের সুবিধা ভোগ করছেন ।এদিকে ইংরেজী, অর্থনীতি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, সমাজবিজ্ঞান, পরিসংখ্যান, মনোবিজ্ঞান, দর্শন বিভাগে বাজারজাতকৃত নীল জারের ফিল্টারের পানি থাকলেও  ইসলামী স্টাডিজ, ইসলামি স্টাডিজ ও সংস্কৃতি বিভাগে সাপ্লাই পানিকে ব্যাবহার করতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের যার ফলে বিশুদ্ধ পানি পান থেকে বঞ্চিত হচ্ছে আগামীর ভবিষ্যতরা।

প্রাণি ও উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ভবনের পিছনে নতুন একাডেমী কাম পরিক্ষা ভবন নির্মিত হওয়ার পাশাপাশি ডিপ টিউবওয়েল স্থাপন করা হয় । কিন্তু সেই ডিপ টিউবওয়েল থেকে উঠে আসে আয়রন সমৃদ্ধ পানি যা অনেক সময় ব্যাবহারে অনুপযুক্ত হয়ে পড়ে। তবুও বিশুদ্ধ ও স্বচ্ছ পানির অভাব মিটানোর জন্য বাজারে উৎপাদিত পরিশোধন ফিল্টারকে ব্যবহার করছেন বাংলা বিভাগ,ইসলামের ইতিহাস ও সাংস্কৃতি, ইতিহাস সহ উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার্থীরা।
সমাজ বিজ্ঞান ও মনোবিজ্ঞানের দুই কর্মচারী জানান, ওয়াশরুমের জন্য মোটর পাম্প  দিয়ে পুকুর থেকে পানি আনা হয়। কিন্তু বিশুদ্ধ পানির জন্য  নীল জারের ফিল্টারের উপর নির্ভর করতে হয়।

কলেজের তথ্যকেন্দ্র , অফিস, শিক্ষক মিলনায়তন, অধ্যক্ষের বাস ভবনেও রয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকট। কলেজর অফিস ও শিক্ষক মিলনায়তনে দেখা যায় ক্রয়কৃত বিভিন্ন মিনারেল পানির বোতল।

শিক্ষার্থীদের সাথে আলাপকালে জানা যায়, কলেজের দুটি সাধারন টিউবওয়েল কিছুদিন পর পর নষ্ট হয়ে যায় যার ফলে কর্তৃপক্ষের নজরে তা আসেনা। আবার অনেকে শীতকালে পানির স্থর নেমে যাওয়াকে সাধারত টিউবওয়েলগুলো অচল হওয়ার কারন দেখছেন।

দীর্ঘদীন কলেজের ক্যান্টিনে পরিচালকের দায়িত্বে থাকা লাল মিয়া জানান, ক্যান্টিনের পাশে থাকা টিউবওয়েলকে  অনেকবার মেরামত করিয়েছেন তিনি। কিন্তু বার বার নষ্ট হওয়ায় তিনি টিলাগড় থেকে খাবার পানি ক্যান্টিনে নিয়ে আসতেন।

গনিত বিভাগের এক শিক্ষার্থী জানান, কলেজে বিশুদ্ধ পানি সংকট থাকায় বাসা থেকে বোতল ভর্তি পানি নিয়ে আসি।

শিক্ষার্থী বুরহান উদ্দিন বলেন, এমসি কলেজে বিশুদ্ধ পানি তীব্র সংকট রয়েছে। বাজারজাতকৃত নীল জারের কথিত ফিল্টারের পানি দিয়ে বিশুদ্ধ পানি সংকট পূরন করলেও  স্থায়ীভাবে  বিশুদ্ধ পানি সংকট নিরসনে জরুরী পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।

বিভাগের খরচে অস্থায়ীভাবে ক্রয়কৃত ফিল্টারের পানি এভাবে কতদিন সরবরাহ করা হবে জানতে চাইলে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে বিভাগীয় প্রধান শামিমা আক্তার জানান, শিক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের উদ্যোগে বিশুদ্ধ পানির ব্যাবস্থা করেছি । কোন রোগ বা অপ্রিতীকর কোন অভিযোগ পাইনি।  শিক্ষার্থীদের জন্য বিশুদ্ধ পানির কোন স্থায়ি ব্যাবস্থা করলে ভাল হত।

এ ব্যাপারে কলেজের অধ্যক্ষ নিতাই চন্দ্র চন্দ জানান, সিলেট সিটি কর্পোরেশন থেকে পানি আনার জন্য আলোচনা হয়েছে। সেই পানির লাইনের মধ্যে পরিশোধন মেশিন বসিয়ে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করার পরিকল্পনা রয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.