সংবাদ শিরোনাম
দেয়ারাবাজারে রাতে ঘর থেকে মুখ চাপা দিয়ে এক সংখ্যালঘু স্কুল ছাত্রীকে অপরহণ   » «   শাওন হত্যার প্রতিবাদে সিলেটে যুবদলের বিক্ষোভ  » «   পার্কিং ট্রাকের পিছনে প্রাইভেট কারের ধাক্কা সুনামগঞ্জ -সিলেট মহাসড়কে নিহত ১ আহত ২  » «   জামালগঞ্জে নৌ দুর্ঘটনায় নিখোঁজের ২২ ঘন্টা পর ২ জনের মরদেহ উদ্বার  » «   জালিম সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত ঘরে ফিরে যাব না : কাইয়ুম চৌধুরী  » «   মুন্সীগঞ্জে শান্তিপূর্ণ সমাবেশে হামলায় সিলেটে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল  » «   দোয়ারাবাজারে হাওর থেকে বৃদ্ধের মৃতদেহ উদ্ধার  » «   ৪ মেয়ে জন্ম দেওয়ায় স্বামীর নির্যাতনে গৃহবধূর আত্মহত্যার ঘটনায় স্বামী কারাগারে  » «   আওয়ামীলীগ সরকার গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না : কাইয়ুম চৌধুরী  » «   নবীগঞ্জে নিখোঁজের ২দিন পর বিবিয়ানা নদী থেকে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার  » «   শাল্লায় মেম্বার ও চেয়ারম্যান কর্তৃক শালিশের নামে কিশোরীকে ধর্ষণ  » «   গ্রাহকের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে উল্টো মামলায় গ্রেফতার করে হয়রানির প্রতিবাদে মানববন্ধন  » «   জৈন্তাপুরে বালু ভর্তি ট্রাক আটক:১ মাসের ব্যাবধানে ২ ট্রাক ভারতীয় কসমেটিকস জব্দ-আটক-১  » «   নবীগঞ্জে কবরস্থান ও সরকারি রাস্তা জোর পূর্বক দখল: হত্যার হুমকি, অভিযোগ দায়ের  » «   দোয়ারাবাজারে ১১ বছরের শিশু ধর্ষণ মামলার আসামি গ্রেফতার  » «  

থমকে আছে সিলেটের ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভাঙার কাজ

সিলেটপোস্ট ডেস্ক ::বেশ ঢাক-ঢোল পিটিয়ে তিন বছর আগে সিলেট নগরের ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভাঙার কাজ শুরু হলেও দুটি ভবন ভাঙার পর তা অজানা কারণে থেমে যায়। স্থানীয় বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভবনগুলো দ্রুত ভাঙা না হলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সিটি কর্পোরেশনের দাবি, বুয়েটের বিশেষজ্ঞরা ভাঙার কাজে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছেন।
সিলেট নগরের ৩৪টি ভবনকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে সিটি কর্পোরেশন। এর মধ্যে ২৩টি অতি ঝুঁকিপূর্ণ। ২০১৬ সালে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভাঙার কাজ শুরু করে কর্পোরেশন। তাঁতিপাড়া ও বন্দরবাজারের দুটি ভবনও ভাঙা হয়। এরপর এই কার্যক্রম আর সামনে এগোয়নি।
সিসিক এর প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী নুর আজিজুর রহমান বলেন, এই মুহূর্তে রাস্তা প্রশস্ত করার কাজে আমাদের লোকজন নিয়োজিত থাকায় এই কার্যক্রম চলছে না।
বেশ কয়েকবছর আগে জেলা প্রশাসনের একটি মালখানা ভবন পরিত্যক্ত ঘোষণা করে গণপূর্ত বিভাগ। তারপরও ভবনটিতে দাপ্তরিক কার্যক্রম চলছে। এছাড়াও ঝুঁকিপূর্ণ ওই ভবনটিতে জেলার সকল মামলার আলামত রয়েছে।
সিটি কর্পোরেশনের গা ঘেঁষা ভবন সিটি সুপার মার্কেটও অতি ঝুঁকিপূর্ণ। এটার মালিক সিসিক। ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিতকরণের সঙ্গে জড়িত এক বিশেষজ্ঞ বলেন, সরকারি ভবন আগে ভাঙলে এখান থেকে সাধারণ মানুষ উদ্বুদ্ধ হবে। তবে ভবন ঝুঁকিপূর্ণ মানতে নারাজ সিটি সুপার মার্কেটের ব্যবসায়ীরা।
শাবিপ্রবির পুর ও পরিবেশ কৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. জহির বিন আলম বলেন, যত দ্রুত সম্ভব এই বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত।
মেয়র বলছেন, ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করা ভবনের মালিকরা ঢাকা থেকে বুয়েটের ইঞ্জিনিয়ার এনে বলেন সেটা ঝুঁকিহীন।
সিসিক এর মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, নোটিশ দেয়ার পরও যারা ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভাঙেননি তাদের ভবন ভাঙার জন্য সরকারি সহায়তা নিয়ে হলেও তা ভাঙা হবে।
২৩টি অতি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের মধ্যে সরকারি ভবন ৫টি। বাকিগুলো মার্কেট ও বাসাবাড়ি।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.