সংবাদ শিরোনাম
যুক্তরাজ্যে তিন দিনে ৩ বাংলাদেশি খুন  » «   লন্ডনে বিয়ানীবাজারের এক যুবক ও জগন্নাথপুর দাওরাই গ্রামের সাবিনা নিহত  » «   সুনামগঞ্জের ছাতকের ব্যবসায়ী আখলাদ হত্যাকান্ডের ঘটনায় ২ জন গ্রেপ্তার  » «   ওসমানীনগরে ব্যাংকের বুথ ভেঙে টাকা লুট: ৪ ডাকাতের ৫ দিনের রিমান্ড  » «   মাধবপুরে পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু  » «   নগরীর মজুমদারী এলাকায় বাসার ছাদের পিলারে দুই বোনের ঝুলন্ত লাশ  » «   সিলেটে সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলো রবিবার থেকে চার ঘন্টা করে বন্ধ  » «   দোয়ারাবাজারে কাজ করতে গিয়ে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে  » «   সিলেট-জকিগঞ্জ সড়কে ভয়াবহ দুর্ঘটনা, দাদা-নাতি নিহত, আহত ৪  » «   জগন্নাথপুরে ত্রান সামগ্রী বিতরন করল অনুসন্ধান কল্যান সোসাইটি সিলেট  » «   সিলেট সিটির ৮৩৯ কোটি ২০ লাখ ৭৬ হাজার টাকার বাজেট ঘোষণা মেয়র আরিফের  » «   সোবহানীঘাট মা ও শিশু হাসপতালে ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু  » «   জগন্নাথপুরে পৃথক দু’টি লাশ উদ্ধার  » «   সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আসপিয়া আর নেই,বিভিন্নজনের শোক প্রকাশ  » «   ১১বছর পর জানাগেল অপহরণ নয়; আত্মগোপনে ছিলেন ওই নারী  » «  

সিলেট সিটির আয়তন আরো ৩৩ বর্গকিলোমিটার বাড়ল

সিলেটপোস্ট ডেস্ক::সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক)-এর বর্ধিতকরণ প্রস্তাব প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির (নিকার) বৈঠকে অনুমোদিত হয়েছে। গতকাল সোমবার কমিটির আহবায়ক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রস্তাবটি অনুমোদিত হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে এই সভায় সভাপতিত্ব করেন। ফলে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের আয়তন বৃদ্ধির দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান হচ্ছে। এখন নতুন অন্তর্ভুক্ত এলাকাসমূহকে ওয়ার্ডে বিন্যাস করে গেজেট প্রকাশ হলেই কার্যকর হবে নিকারের এই সিদ্ধান্ত। অন্যদিকে, গেজেট প্রকাশ হলেই বিলুপ্ত হতে চলছে সিলেট সদর ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি ইউনিয়ন।
সিলেট পৌরসভা ২০০২ সালে সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত হয়। প্রাথমিকভাবে ২৬.৫ বর্গকিলোমিটার জায়গা নিয়ে যাত্রা শুরু করে সিসিক। বাংলাদেশের ক্ষুদ্রতম আয়তনের সিটি কর্পোরেশন হচ্ছে সিলেট। অবশ্য সিটি কর্পোরেশনের পরিধি বৃদ্ধির দাবি উঠেছিলো বিভিন্ন মহল থেকে। দীর্ঘ প্রক্রিয়া শেষে ২০২০ সালের ১০ আগস্ট সিলেট সদর ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলার কয়েকটি এলাকা সিসিকের আওতাভুক্ত করে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। ওই বছরের ৮ সেপ্টেম্বর প্রস্তাবিত এলাকাগুলোর বাসিন্দাদের মতামত নিতে গণশুনানী অনুষ্ঠিত হয়। গণবিজ্ঞপ্তিতে প্রকাশিত এলাকাগুলো গেজেট হলে সিটি কর্পোরেশনের নতুন আয়তন গিয়ে দাঁড়াবে প্রায় ৫৯ বর্গকিলোমিটারে।

গণবিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, সিলেট সদর উপজেলার চারটি ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের বেশ কিছু মৌজা আওতাভুক্ত হয়। এলাকাগুলো হচ্ছে-সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নের কুমারগাঁও, মইয়ার চর (দাগ নম্বর ৭৭, ৮২, ৮৩, ৮৯, ৯০, ৯১ ছাড়া), খুরুমখলা শাহপুর, আখালিয়া, খাদিমনগর ইউনিয়নের কুমারগাঁও, খাদিমপাড়া ইউনিয়নের সাদিপুর প্রথম খন্ড, টিলাগড়, দেবপুর, কসবা কুইটুক, সুলতানপুর চক, পেশনেওয়াজ, টুলটিকর ইউনিয়নের সাদিপুর প্রথম খন্ড, টিলাগড় ও দেবপুর। দক্ষিণ সুরমার এলাকাগুলো হলো-কুচাই ইউনিয়নের হবিনন্দি, মণিপুর, আলমপুর, গোটাটিকর, বরইকান্দি ইউনিয়নের পিরিজপুর, ধরাধরপুর, বরইকান্দি, গোধরাইল এবং তেতলী ইউনিয়নের ধরাধরপুর, বরইকান্দি (অবশিষ্টাংশ), বলদী (দাগ নম্বর ২১৯৯-২৩৪৯, ৩৫০৯-৩৫১১, ৩৫১৩, ৩৫৩৫)।
তবে, আগে এসব মৌজার যেসব অংশ সিসিকের অন্তর্ভুক্ত রয়েছে-সেগুলো বাদ দিয়ে বাকি অংশ এখন অন্তর্ভুক্ত করা হবে।অপরদিকে, গণশুনানীতে স্বত:স্ফূর্তভাবে অংশ নেন বিভিন্ন এলাকার লোকজন। কেউ কেউ নিজ এলাকা নতুন আওতাভুক্ত থেকে বাদ, আবার কেউ কেউ অন্তর্ভুক্তির দাবি নিয়ে উপস্থিত হয়েছিলেন। গণশুনানী শেষে সিসিক সম্প্রসারণের প্রস্তাবনা নিকারে পাঠায় সংশ্লিষ্ট দপ্তর। এরপর গতকাল সোমবার তা নিকারের সভায় অনুমোদিত হয়।

মূলত সিসিকের আয়তন বাড়ানোর প্রক্রিয়া ২০১৪ সালে শুরু করেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। ২০১৪ সালের ২২ জুলাই স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন(এলজিআরডি) মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব বরাবরে এ আবেদন করেন মেয়র আরিফ। একই বছরের আগস্ট সিনিয়র সহকারী সচিব সরুজ কুমার নাথ সীমানা পরিবর্তন, সম্প্রসারণ এবং সংকোচন বিধি অনুযায়ী তথ্যাদি উল্লেখসহ পুনঃপ্রস্তাব প্রেরণের অনুরোধ করেন। এরপর ২০১৫ সালের ২৩ জুন নগরীর বর্তমান আকারের প্রায় ছয়গুণ আয়তন বৃদ্ধির একটি প্রস্তাব জমা দেয়া হয় এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ে। তবুও, সিটি কর্পোরেশনের আয়তন বৃদ্ধির প্রক্রিয়া যেন গতি পাচ্ছিলো না। তবে, সিলেট-১ আসন থেকে ড. এ কে আবদুল মোমেন নির্বাচিত হয়ে বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণের পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের দিকে এগুতে থাকে আয়তন বৃদ্ধির প্রক্রিয়া। সর্বশেষ গত বছরের ১৯ নভেম্বর সিলেট জেলা প্রশাসনের সাথে সিটি কর্পোরেশনের আয়তন বৃদ্ধি সংক্রান্ত সভা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। এর আগে প্রস্তাবিত এলাকাগুলোর সিটি কর্পোরেশনের অন্তর্ভুক্তির সম্ভাব্যতা যাচাই করে জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার শাখা। এরপর চলমান প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে গতকাল সোমবার নিকারে ওঠে প্রস্তাবটি।
এ ব্যাপারে সিসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী বলেন, নিকার বৈঠকে সিসিকের বর্ধিতকরণ প্রস্তাব অনুমোদন হয়েছে। এখন সিসিকে অন্তর্ভুক্ত এলাকাসমূহকে ওয়ার্ডে বিন্যাস করা হবে। এরপর পর্যায়ক্রমে অন্যান্য কাজ শেষে গেজেট প্রকাশ হবে। এরপরই মূলত এটি কার্যকর হবে।
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান, বর্তমানে সিলেট সিটির আয়তন ২৬.৫ বর্গকিলোমিটার। নতুন এলাকা যুক্ত হওয়ার পর কর্পোরেশনের আয়তন প্রায় দ্বিগুণ হবে। তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশনের আয়তন যত বাড়বে, সেবার পরিধিও তত বাড়বে। এতে অধিকসংখ্যক মানুষও সেবার আওতায় আসবে।
এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন গণমাধ্যমকে বলেন, গত সোমবার নিকার সভায় সিলেট সিটির আয়তন আরো ৩৩ বর্গকিলোমিটার বাড়ানোর প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এটা সিলেটবাসীর জন্য অত্যন্ত খুশীর খবর। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের আয়তন বৃদ্ধির ফলে সেবা ও চাকুরির সুযোগ বাড়বে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
এদিকে, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়কে (শাবিপ্রবি) সিটি করপোরেশনের আওতায় আনার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।
উপাচার্য এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.এ কে আব্দুল মোমেন, মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট জেলা প্রশাসন, শাবি’র অ্যালামনাই আজিজুল ইসলাম শামীমসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ এ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আরো বলেন, এর মাধ্যমে শাবি পরিবারের দীর্ঘদিনের একটি প্রত্যাশা পূরণ হলো। এখন থেকে শাবিপ্রবি সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সকল সুবিধা ভোগ করবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.