সংবাদ শিরোনাম
ছাতকে রাস্তার ঢালাই কাজে নিম্নমানের কংক্রিট ও বালু ব্যবহারে অনিয়মের অভিযোগ  » «   সুদখোর ও জুয়াড়ী গুলজার বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ নবীগঞ্জের তিমিরপুর গ্রামবাসী  » «   লিবিয়ার থেকে মাফিয়া দালারের খপ্পরে পড়ে লাশ হয়ে ফিরতে হলো জগন্নাথপুরের এখওয়ান  » «   দোয়ারাবাজারে অনলাইনে  কোটি টাকা প্রতারণা আটক স্কুল শিক্ষক  » «   সুনামগঞ্জ কোটি টাকা আত্মসাৎ চেয়ারম্যান শেরিনকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি  » «   নবীগঞ্জে মসজিদের জুতার বক্সের ভিতরে থেকে ৩ মাসে একটি শিশু ছেলেকে পুলিশ উদ্ধার করেছে  » «   রেমিট্যান্স কেনার ডলার রেট কমল, কার্যকর ১ অক্টোবর  » «   দেয়ারাবাজারে রাতে ঘর থেকে মুখ চাপা দিয়ে এক সংখ্যালঘু স্কুল ছাত্রীকে অপরহণ   » «   শাওন হত্যার প্রতিবাদে সিলেটে যুবদলের বিক্ষোভ  » «   পার্কিং ট্রাকের পিছনে প্রাইভেট কারের ধাক্কা সুনামগঞ্জ -সিলেট মহাসড়কে নিহত ১ আহত ২  » «   জামালগঞ্জে নৌ দুর্ঘটনায় নিখোঁজের ২২ ঘন্টা পর ২ জনের মরদেহ উদ্বার  » «   জালিম সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত ঘরে ফিরে যাব না : কাইয়ুম চৌধুরী  » «   মুন্সীগঞ্জে শান্তিপূর্ণ সমাবেশে হামলায় সিলেটে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল  » «   দোয়ারাবাজারে হাওর থেকে বৃদ্ধের মৃতদেহ উদ্ধার  » «   ৪ মেয়ে জন্ম দেওয়ায় স্বামীর নির্যাতনে গৃহবধূর আত্মহত্যার ঘটনায় স্বামী কারাগারে  » «  

বিমানের পাইলটরা ক্ষুব্ধ, শিডিউল বিপর্যয়ের আশঙ্কা

সিলেটপোস্ট ডেস্ক::করোনা পরিস্থিতির উন্নতির পরও বেতন কাটা অব্যাহত রাখায় বাড়তি সময় ফ্লাইট পরিচালনা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের পাইলটরা। এতে শিডিউল বিপর্যয়ের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স পাইলট অ্যাসোসিয়েশন (বাপা) সভাপতি মাহবুবুর রহমান জানান, মহামাররিকালে বিমানে সবার বেতন কাটার সিদ্ধান্ত হয়েছিল; দুই মাসেও কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় পাইলটরা এখন সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাদের সঙ্গে বিমানের যে চুক্তি, সেটার বাইরে তারা কোনো কাজ করবে না।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বহরে বর্তমানে উড়োজাহাজ আছে ২১টি। এর মধ্যে ১৬টি নিজস্ব, পাঁচটি লিজ। বিমানে বর্তমানে ১৫৭ জন পাইলট কাজ করছেন। করোনা মহামারি শুরুর পর যাত্রীবাহী ফ্লাইট বন্ধ হওয়ায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ কর্মীদের বেতন কমিয়ে আনে। ২০২০ সালের মে মাস থেকে পাইলটদের বেতন ২৫ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত কাটা হচ্ছে।

তিন মাস আগে পাইলটরা ধর্মঘটের হুমকি দিলেও বিমান কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে আন্দোলনে যাননি। পরে ১৪ জুলাই বিমান কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে ধর্মঘট প্রত্যাহার করেছিলেন পাইলটরা। ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে বিমানের অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীর মতো বেতন সমন্বয় করতে অনুরোধ করেন তারা। বেতন সমন্বয় না করলে পাইলটরা বিমান ও বাপার মধ্যে সম্পাদিত দ্বিপক্ষীয় চুক্তি অনুসারে ফ্লাইট পরিচালনা করবেন বলেও ঘোষণা দেয় বিমানের পাইলটদের সংগঠন বাংলাদেশ এয়ারলাইনস পাইলট অ্যাসোসিয়েশন (বাপা)।

বাপা সভাপতি মাহবুবুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা একাধিকবার বেতন কাটার বিষয়ে বিমান ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে আলোচনা করেছি। আমাদের আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল, বোর্ড মিটিংয়ে এ বিষয়টির সমাধান হবে। কয়েক মাসেও বিষয়টি সমাধান হয়নি। এখনো বেতন কাটায় পাইলটরা ক্ষুব্ধ। তাঁরা যদি এখন বিমান ও বাপার মধ্যে সম্পাদিত দ্বিপক্ষীয় চুক্তির বাইরে ফ্লাইটে না যায়, তাতে তো বাধা দেওয়ার সুযোগ নেই।

পাইলটরা জানান, বিমান ও বাপার মধ্যে সম্পাদিত দ্বিপক্ষীয় চুক্তি অনুযায়ী পাইলটদের মাসে ৭৫ ঘণ্টা ফ্লাই করার কথা এবং মাসে আট দিন ছুটি পাওয়ার কথা।

এদিকে পাইলটদের কর্মবিরতিতে ফ্লাইট চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। দোহাগামী ফ্লাইটটি নির্ধারিত সময়ে ছাড়া সম্ভব হয়নি, তবে রাত সাড়ে ৯টার সময় পুনর্নির্ধারিত হয়েছে। দুবাইগামী ফ্লাইটটি রাত সোয়া ৮টায় ছেড়ে গেছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.