সংবাদ শিরোনাম
মাস খানেক পরই বিদ্যুৎ ঘাটতিসহ সবকিছুই ঠিক হয়ে যাবে-পরিকল্পনা মন্ত্রী মান্নান  » «   ওসমানীনগরে পরিমাপে পেট্রোল কম দেয়ায় সুপ্রীম ও আবীর ফিলিং স্টেশনকে জরিমানা  » «   জগন্নাথপুরে এক কৃষক হত্যা মামলায় ১ জনের আমৃত্যু ও ৫ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড  » «   সিলেটের ওসমানীনগরে মা-মেয়েকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগ  » «   জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির অযৌক্তিক সিদ্বান্ত-বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল  » «   দেশের সংকট নিরসনের জন্য আওয়ামীলীগকে বিতাড়িত করার বিকল্প নেই :খন্দকার মুক্তাদির  » «   চুনারুঘাটে ছেলের হাতে মা খুন,ছেলে আটক  » «   জৈন্তাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২  » «   দোয়ারাবাজারে ভারতীয় মালামালসহ আটক ২   » «   ওসমানীনগর থানার ওসি অথর্ব ও দুর্নীতিবাজ-মোকাব্বির খান এমপি  » «   ভোলায় পুলিশী ন্যাক্কারজনক ঘটনায় সিলেটে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল  » «   সিলেটে ঘুষ ছাড়া সহজে কারো পাসপোর্ট হয়না: ব্যবস্থা নিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি  » «   সুনামগঞ্জে জেলা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশের বাধা  » «   জামালগঞ্জে জামায়াতের আমীর দেশীয় আগ্নেয়াস্ত্র জিহাদি বইসহ ২জন আটক-মামলা  » «   সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুরে পুকুরে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু  » «  

ওসমানীনগরে প্রশাসনের তালিকায় অবশেষে বাড়লো বন্যাক্রান্তের সংখ্যা

ওসমানীনগর প্রতিনিধি::সিলেটের ওসমানীনগরে গতকাল বৃহস্পতিবার সকলে বন্যার পানি ধীর গতিতে কমলেও বিকালে বেড়েছে। গত এক সপ্তাহ পানিবন্দি থাকার পর বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ধীর গতিতে পানি কমায় আশ্রয়কেন্দ্র থাকা ও বানবাসী লোকজন ¯^স্থির নিঃশ্বাস ফেললেও বিকাল ৪টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিরামহীন বৃষ্টিপাতে ২-৩ ইঞ্চি পানি বৃদ্ধি পয়েছে বলে জানা গেছে।বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমার ৩১ সেঃমি নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী সাদিপুর এলাকায় ২ থেকে ৩ ইঞ্চি বন্যার পানি কমেছিলো। বিকালে পানিবৃদ্ধির পর আবারো বন্যা আক্রান্তদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলা প্রশাসেনর পক্ষ থেকে বাড়ানো হয়েছে আশ্রয় কেন্দ্রের সংখ্যাও।
জানা গেছে, অতি বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল এবং কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলার প্রায় দেড় শতাধিক গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত রয়েছে। এতে উপজেলার আড়াই লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে ডাইকের উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের সবকটি এলাকা প্লাবিত হয়েছে।বন্যার পানি অব্যাহত বৃদ্ধি পাওয়ায় আশ্রয় কেন্দ্র্রে উঠছেন পানিবন্দি মানুষ। তবে বেশির ভাগ আশ্রয়কেন্দ্রগুলো রয়েছে পানিবন্দি। তলিয়ে গেছে আশ্রয়কেন্দ্রের টিউবওয়েল।দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকট। বন্যার পানিতে টিউবওয়েল তলিয়ে যাওয়ায় বিশুদ্ধ পানির সংকট কাটিয়ে উঠতে ইতিমধ্যে বন্যা আক্রান্তদের মধ্যে উপজেলা ¯^াস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে পানি বিশুদ্ধকরণ ১০ হাজার ট্যাবলেট বিতরণ করা হয়েছে। বন্যার পানিতে ২ হাজার ৯৫ হেক্টর ফসলি জমি পানিতে তলিয়ে রয়েছে। ফলে গবাদি পশু নিয়েও বিপাকে রয়েছেন অনেকেই।
এদিকে,গত মঙ্গলবার পর্যন্ত এক হাজার ৩১ পরিবারের ৮৪ হাজার ৯শ ৮০ জন মানুষ বন্যাক্রান্তদের তালিকা করে উপজেলা প্রশাসন। আশ্রয় কেন্দ্রের তালিকা ছিল ৪১টি। সরকারি বরাদ্দ ২৪ মেট্রিক চাল ও নগদ সাড়ে তিন লক্ষ টাকা। ওই দিন উপজেলায় আড়াই লাখ মানুষ পানিবন্দি বলে স্থানীয় সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন উপজেলা ৮টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং প্যানেল চেয়ারম্যানরা। এ বিষয়ে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর বৃহস্পতিবার উপজেলা প্রশাসনের তালিকায় বৃদ্ধি পেয়েছে আশ্রয়কেন্দ্রেসহ বন্যা আক্রান্তদের সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে। পাশাপাশি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্যা কন্টলরুম চালু করা হয়েছে।
উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ১৫শ৯৯টি পরিবারের ১লক্ষ ২০ হাজার মানুষ বন্যাক্রান্ত রয়েছে।৬৪টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে।এ পর্যন্ত ৮৬ মেঃটন চাল ও নগদ ১০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা সরকারি বরাদ্ধ পাওয়া গেছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিলন কান্তি রায় বলেন,পানিবৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় বন্যাক্রান্তদের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে যোগাযোগসহ বিভিন্ন মাধ্যমে আমরা বন্যাক্রান্তদের সঠিত তথ্য তুলে আনার চেষ্টা করছি। সর্বমোট ৯৮ মেট্রিকটন চাল আমরা পেয়েছি। প্রাপ্ত বরাদ্ধগুলো জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে ৮টি ইউনিয়নে বিতরণ করা হচ্ছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.