সংবাদ শিরোনাম
দোয়ারাবাজারে একে একে ডুবছে ঘরবাড়ি ও রাস্তাঘাট,পুকুর  » «   সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মানবাধিকার ও অনুসন্ধান কল্যাণ সোসাইটি’র সভাপতি শেখ লুৎফুর  » «   ওসমানীনগরে বন্যা আশ্রয়কেন্দ্রে ২শতাধিক বাসিন্দা উপজেলা প্রশাসনের তালিকায় মাত্র ৪৩জন  » «   ওসমানীনগরে কুশিয়ারা নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলন ঝুঁকিতে ড্রাইক ও গ্রাম  » «   সিলেটের বিভিন্ন স্থান থেকে চোরাই মোবাইল সিন্ডিকেটের ৬ জন সদস্য র‌্যাব-৯ এর হাতে গ্রেফতার  » «   করিম উল্লাহ মার্কেট থেকে বিপুল পরিমাণ মোবাইলসহ ৬ জন গ্রেফতার  » «   ঈদকে সামনে রেখে নবীগঞ্জে জমে উঠেছে জমজমাট পশুর হাট!  » «   শিশুদের সুপ্ত মেধা বিকাশে প্রতিযোগিতা আয়োজনের বিকল্প নেই: শেখ রাসেল হাসান  » «   মেজরটিলায় টিলা ধসে হতাহতের ঘটনায় সিলেট মহানগর বিএনপির শোক  » «   দেশের স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে শহীদ জিয়া দূরদর্শী অবদান রেখেছিলেন-অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ  » «   ডামি সরকারের ডামি বাজেট জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে-বিএনপি  » «   গোয়ালাবাজার থেকে খাদিম পুর রোডের রাস্তার দুই পাশে গাছ হেলে পড়ায় দুর্ঘটনার আশঙ্কা  » «   আলোকিত দেশ গড়তে শিক্ষার্থীদেরকে আদর্শবান হতে হবে: প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী  » «   মরহুম প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীতে সিলেট মহানগর বিএনপির খাদ্য বিতরণ  » «   ইতিহাস বিকৃত করে মানুষের হৃদয় থেকে শহীদ জিয়ার নাম মুছে ফেলা যাবে না  » «  

জগন্নাথপুরে পৈত্রিক সম্পত্তি হারাতে বসেছে শতাধিক পরিবার

05নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেটের জোনাল সেটেলম্যান্ট অফিসার সুব্রত পাল চৌধুরীর অবহেলা ও খামখেয়ালীর কারণে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর পৌর এলাকার ৫ গ্রামের শতাধিক পরিবার মৌরসী সম্পত্তি হারাতে বসেছে।  ভূমিখেকো চক্রের সাথে আতাত করে জগন্নাথপুরের ইকড়ছই মৌজার ইকড়ছই, সিলিমপুর, ভবানীপুর, হবিবপুর, বলবল গ্রামের ১০ একর ভূমির দখল থাকা স্বত্তেও অন্যের নামে রেকর্ডভূক্ত করে দিয়েছেন।
রোববার বেলা ৩টায় সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে মৌরসী সম্পত্তি হারাতে বসা শতাধিক পরিবারের পক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে হাজী শফিকুর রহমান লিলু বলেন, জগন্নাথপুর পৌর এলাকার ইকড়ছই মৌজার ইকড়ছই, সিলিমপুর, ভবানীপুর, হবিবপুর, বলবল গ্রামের শতাধিক পরিবার বংশপরম্পরায় বসবাস করে আসছেন। ১৯৫২ সালের সেটেলমেন্ট জরিপে প্রায় উপজেলার ইকড়ছই মৌজার ২০ একর ভূমি আমাদের পূর্ব পুরুষের নামে রেকর্ডভুক্ত ছিল। পরবর্তীতে ২০০০ সালের মাঠ জরিপে এ ভূমির প্রায় ১০ একর  আমাদের নামে পুণরায় রেকর্ডভূক্ত হয়। এ ভূমিতে ইতিমধ্যে বাড়িঘর, দোকানপাঠ, মসজিদ, মক্তবসহ নানান স্থাপনা রয়েছে। যার মধ্যে পাঁকা, আধা পাঁকা, সেমি পাঁকা ও কাঁচা ঘর-দরজা রয়েছে। এছাড়া শতাধিক পরিবার বৈধ দখলকারক হিসাবে রেকর্ডীয় কাগজপত্র রয়েছে। তাছাড়া, এ সকল পরিবারের নামে সকল প্রকার খাজনা, বিদ্যুৎ বিল, পৌর ট্যাক্স পরিশোধ করা হচ্ছে।
কিন্তু এ মৌজার পাশ দিয়ে একটি আঞ্চলিক সড়ক হওয়ায় সুনামগঞ্জের কুখ্যাত রাজাকার আলবদর নেতা আছাব আলী ও তার লোকজন শতাধিক পরিবারের ভূমি আত্মসাতে মরিয়া হয়ে উঠে। তারা প্রথমে জগন্নাথপুরের সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারের কার্যালয়ে অভিযোগ করে। কিন্তু শুনানীকালে কোনো দালিলিক প্রমান দিতে না পারায় বিষয়টি সিলেটের জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসারের কার্যালয়ে গড়ায়। এরই মধ্যে ভূমিখেকো চক্র বিষয়টি কৌশলে ঢাকায় ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরে স্থানান্তর করায়। শুনানী শেষে অধিদপ্তরের উপ পরিচালক গ্রামবাসীর পক্ষে রায় দেন।
কিন্তু এ রায়কে প্রত্যাখান করে ভূমিখেকোর সিলেটের জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার সুব্রত পাল চৌধুরীর সাথে আতাত করে গত ২৯ এপ্রিল শুনানী শেষে গ্রামবাসীর বক্তব্য কিংবা কাগজপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার সুব্রত পাল চৌধুরী ১২৭/১, ১২৭/২, ১২৭/৩, ১২৭/৪, ১২৭/৫, ১২৭/৬, ১২৭/৭, ১২৭/৮ মামলা  একতরফা রায় দেন গ্রামবাসীর বিপক্ষে।
এর প্রতিবাদে গত ৩০ এপ্রিল গ্রামবাসী ভূমিমন্ত্রীর কাছে এক স্মারকলিপিতে সিলেটের জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার সুব্রত পাল চৌধুরীর অপসারণ দাবিসহ সরেজমিনে ঘটনাস্থল তদন্তের জন্য ভূমিমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানান।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন দেলোয়ার হোসেন, ছিলিমপুর গ্রামের হাজী আবদুল জব্বার, আবুল লেইছ, জামিল মিয়া, ফয়জুল ইসলাম, জুনেদ আহমদ, নুরুল আমিন, সাহেদ মিয়া, ভবানীপুর গ্রামের আবদুল লতিফ, আফাজ উদ্দিন, ইকড়ছই গ্রামের ময়না মিয়া, তকদ্দুস আলী, হাসির মিয়া, বলবল গ্রামের তোয়াজুল মিয়া, দিলদার হোসেন প্রমুখ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.