সংবাদ শিরোনাম
দোয়ারাবাজারে কেন্দ্র ফি’র নামে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়  » «   তাহিরপুরে বিদ্যালয়ের আয়-ব্যয়ের হিসাব দিতে প্রধান শিক্ষকের টালবাহানা   » «   দোয়ারাবাজারে সরকারি ভাতা দেওয়ার নামে প্রতারণা, প্রতারককে জরিমানা  » «   মৌলভীবাজারের জুড়িতে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামিসহ দুইজন গ্রেফতার  » «   দোয়ারাবাজারে বিদেশী মদের চালানসহ মাদক কারবারি আটক  » «   সুনামগঞ্জের তিন উপজেলার ১৫টি স্পটে চলছে সহশ্রাধিক অবৈধ ক্রাশার মেশিনের তান্ডব  » «   সুনামগঞ্জে পিতা ও কন্যার উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের  » «   সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে স্কুল ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার  » «   সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে অজ্ঞাত বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার  » «   নবীগঞ্জে যুদ্বাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা ফিরোজ মিয়া আমাদের মধ্যে আর নেই! রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাপন  » «   জুড়ীতে ফেনসিডিল ও ইয়াবাসহ আটক ১  » «   ছাতকে আবুল হোসেনকে পরিকল্পিত হত্যা নাকি অন্য কারণ?প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করার অপচেষ্টা   » «   দোয়ারাবাজারে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বরখাস্ত   » «   তাহিরপুরে রাতের আঁধারে কৃষকের জমির ধান কেটে নিল প্রতিপক্ষের লাঠিয়াল বাহিনী   » «   ঢাকা- সিলেট মহাসড়কে অ্যাম্বুলেন্স ও সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষ আহত ৭, আশংখাজনক ভাবে ৫জনকে সিলেট প্রেরন  » «  

অর্থমন্ত্রীর নির্দেশ : ব্যাটারী চালিত যানবাহন জব্দ করা হোক

1394997100সিলেট পোষ্ট রিপোর্ট : সিলেট নগরীতে ব্যাটারী চালিত অনুমোদনহীন অবৈধ যানবাহনের ব্যাপারে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কঠোর নির্দেশে নড়েচড়ে বসেছে পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। অবৈধ এই যানবাহন প্রতিরোধে এবার সাঁড়াশি অভিযানে নামছে পুলিশ। এ যানের বিরুদ্ধে একইভাবে অভিযানে নামছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন। এ তথ্য জানিয়ে সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, সিলেট নগরীতে ব্যাটারী চালিত কোন যানবাহন থাকতে পারবে না। এ যানের বিরুদ্ধে আবারো কঠোরভাবে অভিযান শুরু হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ৭ মে বৃহস্পতিবার থেকে নগরীতে ব্যাটারী চালিত টমটমের বিরুদ্ধে অভিযানে নামে ভ্রাম্যমান আদালত। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পরিচালিত অভিযানে পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ ও বিআরটিএ কর্মকর্তারা অংশ নেন। অভিযানকালে ৭ মে ৪টি, ১০ মে ১৪টি ও ১১ মে ৫টিসহ মোট ২৩টি টমটম আটক করে নিয়ে যাওয়া হয়। ৩ দিন অভিযান পরিচালনার পর অভিযানটি বন্ধ হয়ে যায়। এ অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত প্রাক বাজেট আলোচনায় এক ব্যক্তি এই অভিযান নিয়ে প্রশ্ন তুলে ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে নানা কথা বলেন। ঐ ব্যক্তি দাবী করেন আটক টমটম অবিলম্বে মালিকদের নিকট ফেরত দিতে হবে। ঐ ব্যক্তির এই বক্তব্যে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এমপি। অর্থমন্ত্রী বলেন, ব্যাটারী চালিত সকল যানবাহন বাজেয়াপ্ত করতে হবে। সিলেটের আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রতি এটি আমার হুকুম। এ ধরণের যানবাহনকে কোনভাবেই ছাড় দেয়া হবে না। প্রয়োজনে ব্যাটারী চালিত যান নিয়ে যারা কথা বলবে এদেরকে জেলে দিতে হবে। এ সবের পক্ষে কথা বলাটাও দু:সাহস। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে তিনি নগর পুলিশের কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও সিলেটের পুলিশ সুপারকে উদ্যোগী হওয়ার নির্দেশ দেন অর্থমন্ত্রী। অর্থমন্ত্রীর এই কঠোর নির্দেশের পর এ বিষয়ে নড়ে চড়ে বসেছে পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, কেবল অর্থমন্ত্রী নন এর আগে ব্যাটারী চালিত যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গত বছরের ১৫ মে বৃহস্পতিবার সিলেট সফরে আসা মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আকস্মিক নগরীর শেখঘাট এলাকায় ব্যাটারী চালিত রিকসার দোকানে হানা দেন। তিনি ঐ দোকান থেকে প্রায় ২০টি ব্যাটারী জব্দ করেন নিজ হাতে। এরপর জব্দকৃত ব্যাটারী কোতোয়ালী থানা পুলিশের নিকট তুলে দিয়ে মন্ত্রী ব্যাটারী বিক্রেতার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে নির্দেশ দিয়ে যান। কিন্তু রহস্যজনক কারণে এ বিষয়ে পুলিশের কোন তৎপরতা দেখা যায়নি। সূত্রে জানা গেছে, এর পর গত বছরের ২ জুলাই তৎকালীন সিটি মেয়র (বর্তমানে সাময়িক বরখাস্ত ও কারাঅন্তরীন) আরিফুল হক চৌধুরী নগরীর প্রধান প্রধান সড়কে ব্যাটারী চালিত যানবাহন চলাচল ‘নিষিদ্ধ ঘোষণা’ অভিযানে নামেন। মেয়রের অভিযানের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামেন টমটম শ্রমিকরা। নগরীর এক সাবেক জনপ্রতিনিধি আড়ালে থেকে শ্রমিকদের কলকাটি নাড়লেও শেষ পর্যন্ত ব্যথ হয় তারা। নগরীর প্রধান প্রধান সড়কে টমটম চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। জানা গেছে, মেয়র আরিফের এই সিদ্ধান্তের পর নগরীর প্রধান প্রধান সড়কে ব্যাটারী চালিত টমটম চলাচল বন্ধ হলেও গত ৫ জানুয়ারীর পর রাজনৈতিক অস্থিরতার সুযোগে পুনরায় প্রধান প্রধান সড়কে টমটম চলাচল পুরোদমে শুরু হয়। সেই আগের মতো আবারো নগরীর সর্বত্র দেখা দেয় টমটমের উপস্থিতি। নগরীর প্রতিটি মোড়ে সকাল-সন্ধ্যা সব সময় টমটমের উপস্থিতি দেখা যায়। এর ফলে নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ এর বিরুদ্ধে অভিযান শুরুর সিদ্ধান্ত নেয়। পরে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে শুরু হয় অভিযান। যা বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। এদিকে, একটি সূত্রে জানা গেছে, নগরীর শেখঘাট, বাদামবাগিচা, লিচু বাগান, শাহী ঈদগাহসহ বিভিন্ন এলাকায় ব্যাটারী চালিত যানবাহন দেদারছে তৈরি হচ্ছে। প্রতিদিনই নগরীর রাস্তায় নামছে ব্যাটারী চালিত নতুন এই যানবাহন। আবার এই যানবাহনের ব্যাটারী চার্জ দেয়ার নামে বাণিজ্য চলছে বিভিন্ন এলাকায়। ক্ষমতাসীন দলের সমর্থিত কয়েক শ্রমিক নেতা এ বাণিজ্যে জড়িত। অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে এই অবৈধ ব্যাটারী চার্জ দিয়ে চালানো হয় অনুমোদনহীন এই যানবাহন। কিন্তু, এ সকল স্থানে কখনো অভিযান চালানো হয়নি। অবশ্য অর্থমন্ত্রীর নির্দেশের পর এবার আরো কঠোর হয়ে অভিযান শুরু হচ্ছে বলে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে। নগরীতে ব্যাটারী চালিত যানবাহন থাকতে পারবে না এমন দৃঢ় মনোভাব নিয়েই পরিচালিত হবে এই অভিযান। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব এ বিষয়ে সিলেটের ডাককে বলেন, ব্যাটারী চালিত যান বৈধ নয়। অবৈধ যানের বিরুদ্ধে শিগগিরই অভিযানে নামবো। নগরীতে অবৈধ যান চলাচল করতে পারবে না। অবৈধ ব্যাটারী ব্যবসা যদি কেউ করেন তাহলে ঐ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ট্রেড লাইসেন্স বাতিল করা হবে। নগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মো: রেজউল করিম সিলেটের ডাককে বলেন, ব্যাটারী চালিত যানবাহন কোনভাবেই বৈধ নয়। অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান শুরু হয়ে গেছে। এই অভিযানে কয়েক দিনের মধ্যে নতুন মাত্রা পাবে। যে যানবাহন আটক করা হবে তা পরবর্তীতে ফেরত দেয়া হবে না। অর্থমন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশ আমাদের জন্যে প্রেরণার। কারণ এর ফলে এখন আর কেউ এ নিয়ে তদবির করতে পারবে না। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি নগরীতে ব্যাটারী চালিত যানবাহন থাকতে পারবে না।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.