সংবাদ শিরোনাম
বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নে কাজ করছেন প্রধানমন্ত্রী : প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী  » «   রমজান উপলক্ষে জুলকার নায়েন ফাউন্ডেশন দোয়ার বই ও খেজুর বিতরণ  » «   ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়েছেন মানবাধিকার ও অনুসন্ধান কল্যাণ সোসাইটি  » «   মাদানী ইস্যুকে কেন্দ্র করে সুনামগঞ্জের পুলিশ তদন্তকেন্দ্রে হামলা ভাংচুর, আটক ৫; পুলিশের ২৭ রাউন্ড ফাঁকা গুলি  » «   সুনামগঞ্জে ইয়াকুবিয়া দাখিল মাদ্রাসার পুস্তক পাচারের সময় পিকআ্পভ্যান বোঝাই পুস্তক আটক  » «   ভাষার মর্যাদাপূর্ণ ব্যবহার সমাজে শান্তি-শৃংঙ্খলা বজায় রাখে -ইমরান আহমদ এমপি  » «   সুনামগঞ্জে ইয়াকুবিয়া দাখিল মাদ্রাসার পুস্তক পাচারের সময় পিকআ্পভ্যান বোঝাই পুস্তক আটক  » «   পাথর কোয়ারী সচলের বিষয়ে সরকারের বিশেষ বিবেচনাধীন রয়েছে-প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ  » «   জৈন্তাপুরে পৃথক ৩ টি সড়ক দুর্ঘটনায় অন্তত ৭ জন আহত হয়েছেন  » «   জৈন্তাপুরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বিরুদ্ধে অভিযান  » «   বালাগঞ্জে অবৈধভাবে বিল সেচ, ধ্বংস হচ্ছে দেশীয় মাছ, কৃষকেরা সংকিত  » «   সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মধ্যে পোশাক বিতরণ করল মানবাধিকার ও অনুসন্ধান কল্যাণ সোসাইটি  » «   নিউইয়র্কে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি প্রবাসী দম্পতি নিহত  » «   মিথ্যা অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হয়ে সহযোগিতার আহবান -ওসি তাজুল ইসলাম (পিপিএম)  » «   ওসমানীনগরে যুবক হত্যাকান্ডের ঘটনায় আটক-৩  » «  

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে অক্সিজেন খুলে নেয়ায় এক শিশুর করুন মৃত্যু

sisuসিলেটপোস্টরিপোর্ট:হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে অক্সিজেন খুলে নেয়ার কারণে আকালেই ঝড়ে গেল ১০ মাসের শিশু মারিয়ায় প্রাণ। অভিযোগ কর্তব্যরত আয়ার বিরুদ্ধে। মাত্র ৩০ টাকার কারণেই নাকি অক্সিজেন খুলে নিয়ে যায় ওই আয়া। সদর হাসপাতালে সাংবাদিকদের কাছে এমনই অভিযোগ করেন শিশু মারিয়ার পিতা ফারুক মিয়া। সূত্রে জানা যায়, মাধবপুর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের ফারুক মিয়ার শিশু কন্যা মারিয়া কে অসুস্থ অবস্থায় হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে এনে ভর্তি করা হয় গতকাল দুপুরে। গতকাল সন্ধ্যায় মারিয়ার অবস্থার অবনতি হলে তাকে অক্সিকেজন দেন কর্ত্যরত চিকিৎসক। কিন্ত অক্সিজেন দেয়ার কিছুক্ষন পরে শিশু ওয়ার্ডে দায়িত্বে থাকা আয়া মাধবী ওই অক্সিজেনটি খুলে নেন। অক্সিজেন খুলে নেয়ার সাথে সাথে মৃত্যুর খুলে ঢলে পরে শিশু মারিয়া। কিছুক্ষন পরেই তার মৃত্যু হয়। অভিযোগ উঠেছে আয়া মাধবী ৩০ টাকার বিনিময়ে নাকি অক্সিজেনটি খুলে নিয়ে অন্য এক রোগীকে দিয়ে দেয়। এ নিয়ে ক্ষোভ দেখা দেয় তাদের আত্মীয় স্বজনদের। এদিকে শিশু মারিয়ার মৃত্যুতে সদর হাসপাতালে কান্নায় ভেঙ্গে পরে মারিয়ার মা ও অন্যান্য আত্মীয় স্বজনরা। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, শিশু ওয়ার্ডে প্রয়োজনের তুলনায় অক্সিজেন কম হওয়ায় এক রোগীর পর অন্য রোগীকে অক্সিজেন দেয়া হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.