সংবাদ শিরোনাম
মৌলভীবাজারের জুড়িতে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামিসহ দুইজন গ্রেফতার  » «   দোয়ারাবাজারে বিদেশী মদের চালানসহ মাদক কারবারি আটক  » «   সুনামগঞ্জের তিন উপজেলার ১৫টি স্পটে চলছে সহশ্রাধিক অবৈধ ক্রাশার মেশিনের তান্ডব  » «   সুনামগঞ্জে পিতা ও কন্যার উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের  » «   সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে স্কুল ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার  » «   সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে অজ্ঞাত বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার  » «   নবীগঞ্জে যুদ্বাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা ফিরোজ মিয়া আমাদের মধ্যে আর নেই! রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাপন  » «   জুড়ীতে ফেনসিডিল ও ইয়াবাসহ আটক ১  » «   ছাতকে আবুল হোসেনকে পরিকল্পিত হত্যা নাকি অন্য কারণ?প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করার অপচেষ্টা   » «   দোয়ারাবাজারে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বরখাস্ত   » «   তাহিরপুরে রাতের আঁধারে কৃষকের জমির ধান কেটে নিল প্রতিপক্ষের লাঠিয়াল বাহিনী   » «   ঢাকা- সিলেট মহাসড়কে অ্যাম্বুলেন্স ও সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষ আহত ৭, আশংখাজনক ভাবে ৫জনকে সিলেট প্রেরন  » «   দিরাইয়ে আওয়ামীলীগের সম্মেলনে হামলার ঘটনায় ৭৭ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা  » «   এ সরকারকে বলে দিতে চাই আর কোনো হুমকি ধামকিতে কাজ হবে না-মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর  » «   সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে আওয়ামীলীগের ত্রি- বার্ষিক সম্মেলনে সংঘর্ষ ও নিহতের মামলায় গ্রেপ্তার ৪  » «  

ব্যবসায়ী হত্যা মামলায় জামিন না পেয়ে কোর্ট হাজত থেকে পালালো এসআই

সিলেটপোস্ট রিপোর্ট :রাজধানীর কাফরুলে ব্যবসায়ী ফারুক হোসেন ওরফে কামাল হত্যা মামলার প্রধান আসামি পুলিশের সাবেক উপপরিদর্শক (এসআই) মো.রেজাউল করিম পাটোয়ারী কোর্ট হাজত থেকে পালিয়েছেন।পুলিশি হেফাজতে ফারুক হোসেন কামাল নামের এক ব্যবসায়ী নিহতের ঘটনায় পুলিশের দুই উপপরিদর্শকসহ (এসআই) তিনজনের জামিন আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।রোববার সকালে আদালতের দেওয়া এ আদেশের পর সন্ধ্যায় আদালতের হাজতখানা থেকে পালিয়েছেন এক এসআই।সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ জজ ড. মো. আখতারুজ্জামান তিন আসামিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। আসামিরা হলেন কাফরুল থানার সাবেক উপপরিদর্শক (এসআই) মো. নুরুজ্জামান ও মো. রেজাউল করিম পাটোয়ারী এবং সোর্স বাবু ওরফে রতন ওরফে বাবু মিয়া।রোববার সন্ধ্যা ৬টার দিকে আদালতের হাজতখানা থেকে পালিয়েছেন পল্লবী থানার সাবেক এসআই রেজাউল করিম পাটোয়ারী। আদালতের একটি দায়িত্বশীল এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।এঘটনার পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি প্রসিকিউশন) কামরুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, আদালতের হাজতখানা থেকে পালিয়ে গেছেন এসআই রেজাউল করিম পাটোয়ারী।বাদীপক্ষের আইনজীবী আবু তৈয়ব জানান, দুই এসআই হাইকোর্ট থেকে প্রথমে দুই মাসের আগাম জামিন পান।এরপর তাঁরা ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন পর্যন্ত জামিন পান।ওই আদালতের জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় আজ রোববার তিন আসামি বিশেষ জজ আদালত ৫-এ আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন। বিচারক তাঁদের জামিনের আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।তিনি আরো জানান, মামলাটিতে পুলিশ ৩০৪ ধারায় (অপরাধজনক প্রাণনাশ)আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করলেও আদালত তা নাকচ করে সরাসরি হত্যার অভিযোগে ৩০২ধারায় আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন এবং মামলার বিচার শুরুর নির্দেশ দেন। আগামী ১৯জানুয়ারি এ মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণের জন্যও দিন নির্ধারণ করেছেন আদালত।জানা যায়, চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার সাহেবগঞ্জ গ্রামের মৃত জামাল হকের ছেলে ফারুক হোসেন কামাল রাজধানীর কাফরুল এলাকায় থেকে উপ-ঠিকাদারির কাজ করতেন।২০১২ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় তৎকালীন পল্লবী থানার এসআই নুরুজ্জামান ও সোর্স রতন কাফরুলের ভা-ারী স্টিলের দোকান থেকে ফারুক হোসেনকে মামলা আছে বলে কাফরুল থানায় নিয়ে যান।মামলার বাদি ও নিহতের ছোট ভাই রাত ১১টায় থানায় গিয়ে থানাহাজতে তাঁর ভাইয়ের চিৎকার শুনতে পান।এসময় তিনি পুলিশকে ম্যানেজ করে ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করলে ফারুক এসআই নুরুজ্জামান ও সোর্স রতনকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে ছাড়িয়ে নিতে বলেন।টাকা না দিলে মেরে ফেলবে বলে জানান।এরপর ২১ফেব্রুয়ারি ফারুককে কাফরুল থানার ৫৭(২)১২ নম্বর মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে পাঁচদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়।আদালত আসামির শরীরে জখমের চিহ্ন দেখে রিমান্ড নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান।পরে ২২ফেব্রুয়ারি কারাগারে ফারুক গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁকে কারা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে কারা হাসপাতালে তাঁর রক্তবমি হলে তাঁকে ২৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মেডিকেলে পাঠানো হয়।সেখানে রাত সাড়ে ১১টায় মারা যান ফারুক।এ ঘটনায় ২০১২সালের ১৮এপ্রিল ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে একটি হত্যা মামলা করেন নিহত ফারুকের বোন পারভীন হক। পরে আদালত মামলাটিকে এজাহার হিসেবে গ্রহণের নির্দেশ দেন।গত ১মার্চ ঢাকার সিএমএম আদালতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়ায় দ-বিধির ৩৪২/৩০৪/১১৪/১০৯ধারায় অভিযোগপত্র দাখিল করেন।এ ঘটনায় কোতোয়ালী থানায় যোগাযোগ করা হলে থানার ডিউটি অফিসার বলেন, ওসি স্যারের সাথে যোগাযোগ করেন।এরপর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সেল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.