সংবাদ শিরোনাম
সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে মায়ের সম্পত্তি নিয়ে ছোটভাইয়ের হাতে বড়ভাই নিহত,আটক-২  » «   দিরাইয়ে বজ্রপাতে দুইজন কৃষকের মৃত্যু  » «   পরিবেশ অধিদপ্তরের অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে সতর্ক থাকার আহবান  » «   সিলেট জেলা ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের ঈদ পুনর্মিলনী ও আলোচনা সভা  » «   ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন মানবাধিকার ও অনুসন্ধান কল্যাণ সোসাইটি’র সভাপতি শেখ লুৎফুর  » «   পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসীর মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক ও সমন্বয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ-সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ  » «   মানবাধিকার ও অনুসন্ধান কল্যাণ সোসাইটি’র ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত  » «   সুনামগঞ্জে কালবৈশাখীর ঝড়ে ৭শতাধিক কাচা ঘরবাড়ি,২ শতাধিক দোকান লন্ডভন্ড  » «   হবিগঞ্জে চাল্যকর ছোবহান হত্যা মামলার ৫ জন আসামীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৯  » «   নবীগঞ্জে ৬ বছরে শিশুকে চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ! ধর্ষনকারী আনহারকে আটক   » «   ফ্যাসিস্ট ডামি সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করা হবে :কাইয়ুম চৌধুরী  » «   বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন সিলেট জেলার উদ্যোগে ইফতার বিতরণ ও দোয়া মাহফিল  » «   সিলেটে পারিবারিক কলহের জেরে ছেলের হাতে বাবা খুন  » «   সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  » «   নবীগঞ্জে ভুল অপারেশন করে শিশুর লিঙ্গ কর্তন-কেয়ার ডায়াগনস্টিক ঘেরাও  » «  

সুনামগঞ্জের বেশ কিছু যুবক নিখোঁজ

76013_103সিলেট পোস্ট রিপোর্ট : মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডের উদ্দেশে সমুদ্রপথে যাত্রা করে সুনামগঞ্জের বেশ কিছু যুবক নিখোঁজ রয়েছে। ভাগ্য বদলের আশায় বিদেশে পাড়ি দিয়ে ৩ মাস ধরে খোঁজ নেই তাদের। নিখোঁজ এসব যুবকের পরিবারে এখন চলছে শুধুই কান্না আর আহাজারি। সচ্ছলতার স্বপ্নে বিভোর এসব যুবকের ভাগ্যে কি ঘটেছে তা পরিবারের লোকজন জানে না। স্বজনকে ফিরে পেতে দিন গুনছেন তারা।
সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়নের দামপাড়া গ্রামের আবদুস সুবাহান ৩ মাস আগে মালয়েশিয়ার উদ্দেশে রওনা হয়। বাড়ি থেকে পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে যাওয়ার পরদিন থেকেই আর কোন কথা হয়নি তার। ৩ মাস ধরে কেমন আছে, কোথায় আছে, জীবিত না মৃত তা পরিবারের লোকজন জানেন না। আবদুস সুবাহানের ফুটফুটে তপা ও শুভা নামের দুটি মেয়েও জানে না তাদের বাবা কোথায় আছে। আবদুস সুবাহানের স্ত্রী রুনা বেগম বলেন, মালয়েশিয়ার উদ্দেশে যাওয়ার দিন মেয়ে দুটিকে ভালভাবে দেখাশোনা করার কথা বলে রওনা দেন। বারবার বাধা দিলেও কোন কথা শোনেননি। এখন কোন খোঁজ নেই। আবদুস সুবাহানের সঙ্গে একই গ্রামের জগাই মিয়ার ছেলে রুবেলও মালয়েশিয়ার উদ্দেশে যায়। তারও কোন খোঁজ নেই। রুবেলের ভাই জানায়, চৈত্র মাসের প্রথমদিকে আমার ভাইকে দালালরা সিলেট নিয়ে যায়। সিলেটে ৩ দিন রাখার পর টেকনাফ নেয়। টেকনাফ নেয়ার পর থেকে আর কোন খোঁজ নেই। সপ্তাহখানেক পর আমার ভাইয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে তারা জানায় জাহাজে আছে। যে কোন দিন মালয়েশিয়া পৌঁছবে। আর কিছুদিন পর দালালদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে সঠিক কোন উত্তর দিতে পারে না তারা। সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়নের সাফেলা গ্রামের আবদুস সালামের ছেলে নুরুজ্জামান ও আবদুর রহিমের ছেলে আবদুল মহিমও একইভাবে মালয়েশিয়া যায়। তাদেরও খোঁজ নেই। নুরুজ্জামানের পিতা আবদুস সালাম বলেন, বাড়ি থেকে রওনা দেয়ার মাসখানেক পর দালালদের কনফারেন্সের মাধ্যমে বাড়িতে ফোন দেয় আবদুল মহিম। মোবাইলে জানায়, সাগরের মাঝে নৌকার মধ্যে খুব কষ্টে আছে। দালালদের কাছে দুই লাখ টাকা দেয়ার জন্য। টাকা না দিলে তাকে মেরে ফেলবে। ছেলের কথা চিন্তা করে দালালদের হাতে টাকা দিয়েছি। টাকা দেয়ার পরও মাস চলে গেছে। আমার ছেলের কোন খোঁজ নেই। জানা গেছে, জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডে লোক পাঠানোর সঙ্গে জড়িত রয়েছে বেশ কয়েকটি দালালচক্র। এদের মধ্যে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার নুরপুর গ্রামের হাবিব, জমসিদ, ইয়াহিয়া ও চট্টগ্রামের হারিছ একটি চক্রের নেতৃত্ব দেয়।
নিখোঁজ ব্যক্তিদের পরিবারের লোকজন জানায়, এ চক্রটিই দামপাড়া ও সাফেলা গ্রামের ওই চার যুবককে মালয়েশিয়া পাঠানোর কথা বলে তাদের কাছ থেকে টাকা নেয়।

বারবার মোবাইল নাম্বার পরিবর্তন করায় দালালচক্রের সদস্যদের সঙ্গে আলাপ করা সম্ভব হয়নি। জানা গেছে, বিভিন্ন গণমাধ্যমে সাগরপথে পাচারের খবর প্রকাশের পর সুনামগঞ্জে দালালচক্রের সদস্যরা আত্মগোপনে আছে।
সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ মানবজমিনকে বলেন, জেলার পাচারকারীচক্রের একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে। দু-একদিনের মধ্যে ওই পাচারকারী দলের সদস্যদের ধরতে পারব। এরপর যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.