সংবাদ শিরোনাম
সিলেটে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী যারা  » «   শিক্ষার্থীরা উচ্চ শিক্ষা অর্জন করতে পারলে তাদের ভবিষ্যৎ উজ্জল হবে-প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান  » «   নবীগঞ্জে বাস- সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১-আহত ৫  » «   নবীগঞ্জে আগুনে পুড়ে ১টি বসত ঘর ছাই! প্রায় ২ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি  » «   সিলেটে হিটস্ট্রোকে শফিকুল ইসলাম নামে এক পথচারি মারা গেছেন  » «   সাংবাদিকের উপর হামলা: চেয়ারম্যান কারাগারে  » «   সিলেটে এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পাসের হার ৮৩ দশমিক ৮৮ শতাংশ  » «   সুনামগঞ্জের ডলুরায় ব্যবসায়ীর উপর হামলার ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন তিন জন  » «   তিন দিনের সফরে সিলেট আসছেন প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী  » «   সিসিকের হোল্ডিং ট্যাক্স সাধারণ মানুষের উপর ‘মরার উপর খাড়ার ঘা’-সিলেট জেলা বিএনপির   » «   প্রেমের টানে চলে আসা দুই সন্তানের জননী খাসিয়া নারীকে ভারতে ফেরত  » «   সিলেটে বিএনপির আরো ১৫ নেতা-নেত্রী বহিস্কার  » «   হুট করেই ছুটি বাতিল করায় পক্ষে বিপক্ষে শনিবারের ক্লাস নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।  » «   মহান মে দিবসে সিলেট সদর উপজেলা বিল্ডিং নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়নের র‌্যালি  » «   উত্তরপূর্ব পত্রিকার কম্পিউটার ইনচার্জে রলাশ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের  » «  

যাদুকাটা নদীতে অবৈধ ড্রেজার মেশিনে বালু উত্তোলন বন্ধে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নিকট অভিযোগ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার যাদুকাটা নদীতে ফাজিলপুর বালু মিশ্রিত পাথর মহালে একটি বালুখেকো চক্র অবৈধ ড্রেজার মেশিন(বোমা মেশিন) দিয়ে রাতের আধাঁরে লাখ লাখ টাকার বালু উত্তোলন বন্ধের দাবীতে এবং বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পৃথকভাবে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

বুধবার দুপুরে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবরে আলাদা দুটি অভিযোগটি দায়ের করেন জেলার তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট গ্রামের কোনাট গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে গোলাম মিয়া ।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়,গত ৮/১০দিন ধরে যাদুকাটা নদীর ফাজিলপুর বালু মিশ্রিত পাথর মহালের সোহালা ও কোনাট মৌজায় এবং শ্রী শ্রী অদ্বৈত্য আশ্রম সংলগ্ন লামাশ্রম ও চালিয়ারঘাট মৌজায় যাদুকাটা-১ ও যাদুকাটা-২ বালু মহালের ইজারাদারগন বেআইনিভাবে প্রতিদিন রাতে পরিবেশ বিধংসী ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবাধে খনিজ বালু উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে। এতে করে আশপাশের ৪০টি গ্রাম নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার আশংঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিরাতে ১৫/২০টি অবৈধ ড্রেজার মেশিন চালিয়ে কয়েকলাখ টাকার বালু উত্তোলনের ফলে যাদুকাটা নদীর উপর সরকারের কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত শাহ আরফিন অদ্বৈত্য মিত্র সেতুটি,এশিয়া মহাদেশের মধ্য বিখ্যাত শিমুল বাগান,লাউড়েরগড় বিজিবি ক্যাম্প,লাউড়েরগড় বাজার,বিন্নাকুলি বাজার,কোনাট বাজার,মিয়ারচর বাজার নদীগর্ভে বিলিন হওয়ার ও শংঙ্কা রয়েছে। সিন্ডিকেটচক্রের সদস্যরা সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্যর ঘনিষ্ট লোকজন বলে তাদের ভয়ে এলাকার নিরীহ লোকজন মুখ খুলতে ভয় পাচ্ছেন। এই নদীতে প্রাকৃতিক উপায়ে আসা বালু,নুরীপাথর ও লাকড়ী উত্তোলন কওে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন আশপাশের ৪০টি গ্রামের হাজারো নারীপূরুষ শ্রমিকেরা। এই অবৈধ ড্রেজার মেশিনের তান্ডবে এবং রাথের আধাঁরে বালু উত্তোলনের ফলে এবং প্রভাবশালীদের ভয়ে নদীতে নামতে না পারায় কর্মহীন হয়ে পড়েছেন হাজার হাজার নারী ও পূরুষ শ্রমিকরা। ফলে তাদের এখন অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটাতে হচ্ছে বলে অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করা হয়। পাশাপাশি নদী তীরবর্তী গ্রাম ও হাটবাজারগুলো ধবংসের হাত থেকে রক্ষা করার দাবী জানানো হয়।

এ ব্যাপারে অভিযোগকারী গোলাম মিয়া জানান,স্থানীয় একটি প্রভাবশালীচক্র রাতের আধাঁরে এই অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করছে। কিন্তু পুলিশকে জানানোর পরও পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। অবিলম্বে যাদুকাটার নদী তীরবর্তী গ্রাম,হাটবাজারগুলো রক্ষায় অবৈধ ড্রেজার মেশিনের তান্ডব বন্ধ করতে প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছেন নদী তীরবর্তী গ্রামের মানুষজন।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার এহসান শাহ জানান,জেলা প্রশাসন আছে তাই অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরীর সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে

সুনামগঞ্জের যাদুকাটা নদীতে অবৈধ ড্রেজার মেশিনে বালু উত্তোলন বন্ধে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নিকট অভিযোগ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার যাদুকাটা নদীতে ফাজিলপুর বালু মিশ্রিত পাথর মহালে একটি বালুখেকো চক্র অবৈধ ড্রেজার মেশিন(বোমা মেশিন) দিয়ে রাতের আধাঁরে লাখ লাখ টাকার বালু উত্তোলন বন্ধের দাবীতে এবং বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পৃথকভাবে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

বুধবার দুপুরে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবরে আলাদা দুটি অভিযোগটি দায়ের করেন জেলার তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট গ্রামের কোনাট গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে গোলাম মিয়া ।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়,গত ৮/১০দিন ধরে যাদুকাটা নদীর ফাজিলপুর বালু মিশ্রিত পাথর মহালের সোহালা ও কোনাট মৌজায় এবং শ্রী শ্রী অদ্বৈত্য আশ্রম সংলগ্ন লামাশ্রম ও চালিয়ারঘাট মৌজায় যাদুকাটা-১ ও যাদুকাটা-২ বালু মহালের ইজারাদারগন বেআইনিভাবে প্রতিদিন রাতে পরিবেশ বিধংসী ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবাধে খনিজ বালু উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে। এতে করে আশপাশের ৪০টি গ্রাম নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার আশংঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিরাতে ১৫/২০টি অবৈধ ড্রেজার মেশিন চালিয়ে কয়েকলাখ টাকার বালু উত্তোলনের ফলে যাদুকাটা নদীর উপর সরকারের কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত শাহ আরফিন অদ্বৈত্য মিত্র সেতুটি,এশিয়া মহাদেশের মধ্য বিখ্যাত শিমুল বাগান,লাউড়েরগড় বিজিবি ক্যাম্প,লাউড়েরগড় বাজার,বিন্নাকুলি বাজার,কোনাট বাজার,মিয়ারচর বাজার নদীগর্ভে বিলিন হওয়ার ও শংঙ্কা রয়েছে। সিন্ডিকেটচক্রের সদস্যরা সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্যর ঘনিষ্ট লোকজন বলে তাদের ভয়ে এলাকার নিরীহ লোকজন মুখ খুলতে ভয় পাচ্ছেন। এই নদীতে প্রাকৃতিক উপায়ে আসা বালু,নুরীপাথর ও লাকড়ী উত্তোলন কওে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন আশপাশের ৪০টি গ্রামের হাজারো নারীপূরুষ শ্রমিকেরা। এই অবৈধ ড্রেজার মেশিনের তান্ডবে এবং রাথের আধাঁরে বালু উত্তোলনের ফলে এবং প্রভাবশালীদের ভয়ে নদীতে নামতে না পারায় কর্মহীন হয়ে পড়েছেন হাজার হাজার নারী ও পূরুষ শ্রমিকরা। ফলে তাদের এখন অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটাতে হচ্ছে বলে অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করা হয়। পাশাপাশি নদী তীরবর্তী গ্রাম ও হাটবাজারগুলো ধবংসের হাত থেকে রক্ষা করার দাবী জানানো হয়।

এ ব্যাপারে অভিযোগকারী গোলাম মিয়া জানান,স্থানীয় একটি প্রভাবশালীচক্র রাতের আধাঁরে এই অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করছে। কিন্তু পুলিশকে জানানোর পরও পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। অবিলম্বে যাদুকাটার নদী তীরবর্তী গ্রাম,হাটবাজারগুলো রক্ষায় অবৈধ ড্রেজার মেশিনের তান্ডব বন্ধ করতে প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছেন নদী তীরবর্তী গ্রামের মানুষজন।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার এহসান শাহ জানান,জেলা প্রশাসন আছে তাই অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরীর সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.