সংবাদ শিরোনাম
সিলেটের ওসমানীনগরে মা-মেয়েকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগ  » «   জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির অযৌক্তিক সিদ্বান্ত-বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল  » «   দেশের সংকট নিরসনের জন্য আওয়ামীলীগকে বিতাড়িত করার বিকল্প নেই :খন্দকার মুক্তাদির  » «   চুনারুঘাটে ছেলের হাতে মা খুন,ছেলে আটক  » «   জৈন্তাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২  » «   দোয়ারাবাজারে ভারতীয় মালামালসহ আটক ২   » «   ওসমানীনগর থানার ওসি অথর্ব ও দুর্নীতিবাজ-মোকাব্বির খান এমপি  » «   ভোলায় পুলিশী ন্যাক্কারজনক ঘটনায় সিলেটে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল  » «   সিলেটে ঘুষ ছাড়া সহজে কারো পাসপোর্ট হয়না: ব্যবস্থা নিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি  » «   সুনামগঞ্জে জেলা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশের বাধা  » «   জামালগঞ্জে জামায়াতের আমীর দেশীয় আগ্নেয়াস্ত্র জিহাদি বইসহ ২জন আটক-মামলা  » «   সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুরে পুকুরে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু  » «   জৈন্তাপুর সীমান্তের ডিবির হাওর এলাকায় ৪৮ বিজিবি’র মেডিক্যাল ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত  » «   ওসমানীনগরে সাংবাদিকের বাড়িতে কর্মরত যুবকের লাশ ডোবা থেকে উদ্ধার  » «   দোয়ারাবাজারে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু  » «  

ভারতীয় চাল আমদানি: বঞ্চিত দেশি বোরো চাষিরা

1সিলেটপোস্ট রিপোর্ট : ফসল ভালো হলেও ন্যায্য দাম পাচ্ছে না বোরো ধানের চাষিরা। কষ্টের ফসল নিয়ে তাই হতাশ উত্তরের জনপদ গাইবান্ধার কৃষকেরা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, ভারতীয় চালের আমদানি বেড়ে যাওয়াই দাম পড়ে যাওয়ার মুল কারণ। এদিকে সরকারিভাবে ধান চাল সংগ্রহ শুরু হলে ধানের বাজার বাড়বে বলে মনে করছে জেলা খাদ্য বিভাগ।
টাকায় কেনা তেল, সার, পানি আর কৃষকদের শ্রমে ঘামে মাঠে মাঠে এখন সোনালী ধানের হাতছানি। স্বপ্নের ফসলে সোনালী রং ধরলেও বাজারে ন্যায্য দাম না থাকায় কৃষকেরা আতংকের মধ্যে আছেন। ধানের গোছায় কাচি দিলেও স্বস্তিতে নেই তারা। আমনের পর বোরো ধান নিয়ে স্বপ্ন বুনলেও আশাহত কৃষক।
বাজারে ধানের দর পড়ে যাওয়ায় বোরো চাষিদের এখন মাথায় হাত। তাদের দাবি, বর্তমান বাজারে ধান বিক্রি করে লাভ তো দূরের কথা খরচও উঠবে না। ধানের দাম না থাকার জন্য সব ধরনের ভারতীয় চালের ব্যাপক আমদানিকে দায়ী করলেন ধান ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান।
তবে খাদ্য বিভাগ বলছে, সরকারীভাবে ধান চাল সংগ্রহ শুরু হলে ধানের বাজার বাড়তে পারে।
গাইবান্ধা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘যদি আমরা ধান কেনা শুরু করি তাহলে এর পাশাপাশি মিলাররাও কেনা শুরু করবে। তাহলে মিলাররা বাজার থেকে ধান কেনা শুরু করবে। এর ফলে ধানের দাম কিছুটা হলেও বাড়বে।’
কৃষকদের দাবি, এক বিঘা জমিতে বোরো ধান চাষের জন্য এবার খরচ হয়েছে প্রায় ৮ হাজার টাকা। এক বিঘা জমিতে ধান উৎপাদন হয় ১৮ থেকে ২০ মণ।  বর্তমান বাজারে প্রতি মণ ধান চারশ’ টাকা দরে বিক্রি করলে প্রতি বিঘা জমিতে কৃষকের লোকসান দাঁড়ায় প্রায় ৮’শ থেকে ১ হাজার  টাকা।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়াার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by:

.